1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

দুবাই চলচ্চিত্র উৎসবে সেরা ছবি ‘স্ট্রে বুলেট’

দুবাই আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে সেরা ছবির পুরস্কার পেল ‘স্ট্রে বুলেট’ তথা ‘বিচ্ছিন্ন গোলা’৷ লেবানিজ পরিচালক জর্জেস হাচেমের তৈরি ছবিটিতে দেখানো হয়েছে লেবাননের গৃহযুদ্ধ পরবর্তী সময়ের একটি প্রেম কাহিনী৷

‘ক্যারামেল, ছবি, দৃশ্য, নাদিনে, লাবাকি, দুবাই, চলচ্চিত্র, উৎসব, সেরা, ‘স্ট্রে বুলেট’, Nadine Labaki, Film, Caramel, সংস্কৃতি, বিনোদন, Festival, Dubai, Cinema, Culture, Entertainment,

‘ক্যারামেল’ ছবির একটি দৃশ্যে নাদিনে লাবাকি

১৯৭৫ থেকে ১৯৯০ সময়ে চলা গৃহযুদ্ধের পর লেবাননের সামাজিক প্রেক্ষাপট তুলে ধরা হয়েছে ‘স্ট্রে বুলেট' ছবিটিতে৷ উঠে এসেছে এক তরুণীর প্রেম কাহিনী৷ পিতামাতার পছন্দের পাত্র, নাকি দীর্ঘদিনের প্রেমিককে বেছে নেবেন - এই নিয়ে দোদুল্যমান নায়িকা৷ মূলত সাবেক প্রেমিক হঠাৎ নিরুদ্দেশ হওয়ার পর আবার নতুন করে তাঁদের সাক্ষাতের ফলেই এমন দ্বিমুখী প্রেমের সাগরে হাবুডুবু খাচ্ছেন হাচেমের তৈরি এই তরুণী নায়িকা৷

ছবিটিতে নায়িকার ভূমিকায় অভিনয় করেছেন নাদিনে লাবাকি৷ ২০০৭ সালে তৈরি ‘ক্যারামেল' ছবির সফল পরিচালক হিসেবে ইতিমধ্যে বেশ খ্যাতি কুড়িয়েছেন লাবাকি৷ এবার দুবাই উৎসবে স্বর্ণ ‘মুহর' প্রাপ্ত ছবির নায়ক হিসেবে কৃতিত্বের পাল্লা আরো একটু ভারি হলো লাবাকির৷ রবিবার ফরাসি অভিনেত্রী ইসাবেলা হুপার্টের হাত থেকে স্বর্ণ ‘মুহর' গ্রহণ করলেন পরিচালক হাচেম৷ দুবাই উৎসবে নিজের ছবি ‘কোপাকাবানা' নিয়ে হাজির হয়েছিলেন হুপার্ট৷ সেই সুবাদে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে মঞ্চ শোভিত করেছেন এই ফরাসি চলচ্চিত্র তারকা৷

বিচারকদের বিবেচনায় বিশেষ পুরস্কার পেল জর্ডানীয় পরিচালক মোহাম্মাদ আল-হাশকির ছবি ‘ট্রানজিট সিটিজ'৷ দুবাই উৎসবে সেরা অভিনেতা এবং অভিনেত্রীর পদক ছিনিয়ে নিলেন মাগেদ আল-কিদওয়ানি এবং বুশরা৷ মিশরের সমাজ ব্যবস্থায় যৌন হয়রানির চিত্র নিয়ে তৈরি ছবি ‘সিক্স, সেভেন, এইট' ছবিতে অভিনয় করে এই সম্মানজনক পদক পেলেন তাঁরা৷ মিশরীয় এই ছবির পরিচালক মোহামেদ দিয়াব৷

দুবাই উৎসবে আজীবন সম্মাননা পদক পেয়েছেন মালিয়ান পরিচালক সুলেমান সিসে৷ আরব ছবির ধারায় মিশর, লেবানন, সিরিয়া, ইরাক এবং মরোক্কোর মোট ১২টি ছবি ছিল প্রতিযোগিতার তালিকায়৷ এ বছর সপ্তমবারের মতো অনুষ্ঠিত হলো দুবাই আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব৷ ৫৭টি দেশের মোট ১৫৭ টি ছবি দেখানো হয়েছে এবারের উৎসবে৷

প্রতিবেদন: হোসাইন আব্দুল হাই

সম্পাদনা: রিয়াজুল ইসলাম

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক