1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

দুই সন্তানের বিনিময়ে ঋণ শোধের চেষ্টা

ঋণের বোঝা মেটাতে দুই সন্তানকে পাওনাদারদের হাতে তুলে দিয়ে ফেঁসে গেলেন মেক্সিকান পিতা৷ তবে তিনি তা স্বীকার না করে, বলে আসছিলেন, দুই শিশু অপহৃত হয়েছে৷ কিন্তু গোয়েন্দাদের সামনে সত্য স্বীকার করতেই হয়েছে এই নিষ্ঠুর পিতাকে৷

default

মেক্সিকো সিটি (ফাইল ছবি)

মেক্সিকোর কৌঁসুলিরা জানিয়েছেন, জ্যাভিয়ের কোভারুবিয়াস গোয়েন্দাদের সামনে আর চাপা রাখতে পারেননি প্রকৃত ঘটনা৷ গোয়েন্দারা যখন ঘটনার বিভিন্ন সূত্র ধরে প্রমাণ তুলে ধরেন যে, কোভারুবিয়াসের বানানো গল্প মিথ্যা, তখন শেষ পর্যন্ত তিনিও স্বীকার করেন তাঁর অপরাধ কর্মের কথা৷ জানা গেছে, ২৫ হাজার পেসো অর্থাৎ এক হাজার নয় শ' পঁচিশ মার্কিন ডলার সমপরিমাণ ঋণ শোধের জন্যই কোভারুবিয়াস দুই সন্তানকে তুলে দেন পাওনাদারদের হাতে৷

আর এরপর ভান করতে থাকেন যে, গত ১৮ মে মেক্সিকো শহরের টেপিটোর রাস্তা থেকে তাঁর দুই সন্তানকে অপহরণ করা হয়েছে৷ এমনকি কোভারুবিয়াসের গল্পের প্রেক্ষিতে টেপিটোর মানুষ ঐ এলাকায় আরো নিরাপত্তা বাড়ানোর দাবিতে বিক্ষোভ ও সড়ক অবরোধ করে৷ শুধু তাই নয়, বিক্ষোভের এক পর্যায়ে পুলিশের সাথে সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটে টেপিটোতে৷ এ অবস্থায় পুলিশ যখন তাঁকে আরো জিজ্ঞাসাবাদ করতে থাকে হারানো সন্তানদের সম্পর্কে, তখনই তিনি আত্মগোপন করেন৷ তবে তাতেও রক্ষা হয়নি মাত্র ২০ বছর বয়সি এই তরুণ পিতার৷ হিডালগো রাজ্য থেকে গ্রেপ্তার হন কোভারুবিয়াস৷

তাঁর এই বানানো গল্প যে মিথ্যা তার সূত্র পাওয়া যায় প্রথমত ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা থেকে৷ কারণ তাতে দেখা গেছে, তাঁর গল্পে উল্লেখ করা সময়ে আদৌ তিনি ঐ এলাকায় যাননি৷ আবার ডাক্তারি পরীক্ষাতেও ধরা পড়ে যে, নিজের দেহের ক্ষতটি আসলে নিজেই সৃষ্টি করেছিলেন কোভারুবিয়াস৷ তাঁর সামনে গোয়েন্দারা যখন এসব প্রমাণ হাজির করেন, তখন কোভারুবিয়াস স্বীকার করতে বাধ্য হন যে, প্রকৃতপক্ষে তাঁর দুই সন্তান আইসিস এবং ডারিয়েনকে মেক্সিকো শহরের এক মহিলার হাতে তুলে দেন তিনি৷ বিনিময়ে তিনি মুক্তি পান ঐ ঋণের বোঝা থেকে৷

পুলিশ জানিয়েছে যে, নিজের স্ত্রী যেন তাঁর ঋণের কথা জানতে না পারে সেজন্যেই কোভারুবিয়াস এই গল্প বানিয়েছিলেন বলে স্বীকার করেন তিনি৷ পুলিশ আরো জানায়, সন্তান দুজনকে এখনও খুঁজে পাওয়া যায়নি৷ তাই আরো জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কোভারুবিয়াসকে আটক রাখা হয়েছে৷

প্রতিবেদন: হোসাইন আব্দুল হাই

সম্পাদনা: রিয়াজুল ইসলাম

সংশ্লিষ্ট বিষয়