1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

দুই মাসে ৫০ শিশু হত্যা

ঢাকায় আবারো দুই শিশু হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় দেশের মানুষ স্তম্ভিত৷ সোমবার এই দুই ভাই-বোন হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন পরিবারের সদস্যদের হাতে, পারিবারিক কলহের জেরে৷ এ ঘটনায় তাদের মাকে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ৷

অডিও শুনুন 03:27

‘দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না হওয়ায় শিশু হত্যার ঘটনা বেড়ে যাচ্ছে'

বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার এক প্রতিবেদন বলছে, চলতি বছরের জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি মাসে বাংদেশের বিভিন্ন স্থানে ৫০টি শিশুকে হত্যা করা হয়েছে৷

প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘অপরাধীরা নিজেদের স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য নিষ্পাপ শিশুদের সহজ লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করছে৷ এছাড়া সামাজিক ও পারিবারিক অবক্ষয়, বেকারত্ব, অনৈতিক উচ্চাকাঙ্খা, সংস্কৃতির নেতিবাচক প্রভাব, অনলাইন প্রযুক্তির কু-প্রভাব, পর্নোগ্রাফির প্রসার, অনৈতিক জীবনযাপন, মানবপাচার, বিরোধ বা শত্রুতা, ব্যক্তি স্বার্থপরতা, লোভ, সামাজিক ও রাজনৈতিক অস্থিরতা ক্রমাগত শিশু হত্যাকাণ্ডের কারণ৷'

মানবাধিকার এই সংস্থা আরো মনে করে, ‘শিশুহত্যার মতো ঘৃণিত অপরাধে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না হওয়ায় শিশু হত্যার ঘটনা বেড়ে যাচ্ছে৷' তাদের হিসাব মতে, গত এক বছরে ২৯২টি শিশু হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছে৷ আর গত চার বছরে সারাদেশে এক হাজার ৮৫টি শিশুকে হত্যা করা হয়েছে বলে জানিয়এছে সংস্থাটি৷

শিশু হত্যার এই ক্রমবর্ধমান হারের সঙ্গে আরো উদ্বেগজনক বিষয় হলো যে, মূলত পরিবারের সদস্য, আত্মীয় এবং পরিচিতদের হাতেই অধিকাংশ শিশু হত্যা বা নৃশংসতার শিকার হচ্ছে৷

বাংলাদেশ মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের প্রধান নির্বাহী অ্যাডভোটে এলিনা খান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘গত একবছরে শিশু হত্যা ও শিশুর প্রতি সহিংসতা যেভাবে বেড়েছে তাতে আমাদের মূল্যবোধ, নৈতিকতা ও মানবিকতা প্রশ্নের মুখে পড়েছে৷'' তাঁর কথায়, ‘‘এখন ঘরেই শিশুরা নিরাপদ নয়৷ বাবা-মায়ের হাতেই শিশুদের জীবন দিতে হচ্ছে৷ মূল্যবোধের এরচেয়ে আর চরম অবক্ষয় কী হতে পারে!''

তিনি আরো বলেন, ‘‘শিশুরা অসহায়৷ তারা প্রতিবাদ করতে পারে না৷ তারা এখন লোভ- লালসা এবং প্রতিশোধের শিকারে পরিণত হচ্ছে৷ তারা কোনো স্বার্থের সঙ্গে জড়ির না থাকলে স্বার্থেরই বলি হচ্ছে তারা৷''

এলিনা খান বলেন, ‘‘দেশে শিশু নির্যাতনবিরোধী কঠোর আইন আছে৷ কিন্তু মানসিকতার পরিবর্তন না হলে এই আইনে কাজ হবে না৷ আইন প্রয়োগকারী সংস্থা শিশুদের গুরুত্ব দেয় না৷ শিশুদের প্রতি যে অপরাধ করা হয়, তা সহজে আমলে নিতে চায় না তারা৷ তাই শিশুদের বিষয় সর্বোচ্চ গুরুত্ব না দেয়া হলে আমরা ভয়াবহ বির্যয়ের মুখে পড়ব৷''

তাঁর মতে, ‘‘পরিস্থিতি যা দাঁড়িয়েছে, তাতে শিশুরা কোথায় নিরাপত্তা পাবে তাই বোঝা মুশকিল৷ তাই রাষ্ট্র, সমাজ ও ব্যক্তিকে এখনই উদ্যোগ নিতে হবে৷ শিশুদের সুরক্ষা এবং নিরাপত্তাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে হবে৷''

আশ্চর্যের বিষয় হলো, ঢাকাসহ বাংলাদেশের প্রত্যেক এলাকার থানাগুলোতে শিশুদের জন্য ‘হেল্প ডেস্ক' থাকার বিধান আছে৷ কিন্তু বাস্তবে আইনে থাকলেও তা কাজে নেই৷ যেমন এলিনা খানের কথায়, ‘‘কাগজে কলমে আছে, কিন্তু তা কার্যকর নেই৷'' তাই ‘‘এখন থেকেই জরুরি ভিত্তিতে শিশু-বান্ধব পরিবেশ তৈরির কাজ শুরু করা দরকার৷ নয়ত পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়