1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

দুই কোরিয়ার আলোচনায় সিওলের প্রতি ওবামার সমর্থন

উত্তর কোরিয়ার সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে দক্ষিণ কোরিয়া আলোচনায় বসার ঘোষণা দিয়েছে৷ গত নভেম্বরে দক্ষিণ কোরিয়ার একটি দ্বীপে গুলিবর্ষণের পরে এটিই হতে যাচ্ছে দুই কোরিয়ার মধ্যে প্রথম আলোচনা৷ সিওল বুধবার এই ঘোষণা দিল৷

U.S. President, Barack Obama

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা

কোরিয় উপদ্বীপের সীমান্তবর্তী গ্রাম পানমুনজমে ১১ ফেব্রুয়ারি এই আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে৷ দুই কোরিয়ার মধ্যে প্রাথমিক এই সামরিক বৈঠকে দক্ষিণ কোরিয়ার যুদ্ধ জাহাজ ডুবিয়ে দেওয়া এবং দ্বীপ ইয়নপিয়ং-এর ওপর গত বছরে উত্তর কোরিয়ার হামলা নিয়ে আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে৷ উচ্চ পর্যায়ের এই সামরিক আলোচনা, খুব সম্ভবত মন্ত্রী পর্যায়ের এই আলোচনার বিস্তারিত সিওল প্রকাশ করবে যদি পিয়ংইয়ং ঐ দুটি হামলার কথা স্বীকার করে এবং ভবিষ্যতে এইরকম প্ররোচনামূলক কাজ না করার ব্যাপারে একমত হয়৷

তবে এর আগে উত্তর কোরিয়া দক্ষিণ কোরিয়ার জাহাজডুবির ব্যাপারে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেছে এবং বলেছে, দ্বীপে গুলিবর্ষণের ব্যাপারে দক্ষিণ কোরিয়ায় তাদেরকে প্ররোচিত করেছে৷

South Korea

গত বছর ইয়নপিয় দ্বীপ’এর ওপর হামলা করে উত্তর কোরিয়া

দক্ষিণ কোরিয়ার একত্রীকরণ মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, কোরিয় উপদ্বীপে শান্তি স্থাপনে এবং উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে সত্যিকার সম্পর্ক উন্নয়নের জন্যে উত্তর কোরিয়াকে এই সব প্রস্তাব মেনে নিতে ববে৷

এদিকে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বলেছেন উত্তর কোরিয়াকে তার পারমাণবিক উচ্চাকাঙ্খা পরিত্যাগ করতে হবে৷ একই সঙ্গে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতি আবারো তাঁর সমর্থন ব্যক্ত করেছেন৷ ওবামা তাঁর ‘স্টেট অফ দ্য ইউনিয়ন' ভাষণে এই বক্তব্য রাখেন৷

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘‘কোরিয় উপদ্বীপে আমরা আমাদের মিত্র দক্ষিণ কোরিয়ার পাশে দাঁড়াবো এবং উত্তর কোরিয়া পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি থেকে দূরে থাকার যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে তা তাদের রক্ষা করতে হবে৷''

প্রতিবেদন: ফাহমিদা সুলতানা

সম্পাদনা: সুপ্রিয় বন্দোপাধ্যায়

সংশ্লিষ্ট বিষয়