1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

দিল্লীসহ উত্তর ভারতের বন্যা পরিস্থিতি বিপজ্জনক

টানা বৃষ্টি এবং বাঁধ থেকে জল ছাড়ার ফলে যমুনা,গঙ্গা ও অন্য বড় বড় নদীর জলস্তর বিপদসীমার ওপর দিয়ে বয়ে চলেছে৷ প্লাবিত নদীর দুপাশের নীচুএলাকাগুলি৷ পরিস্থিতির মোকাবিলায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে জরুরি বৈঠকে বসে দিল্লী সরকার৷

default

ডুবে গেছে গড়মুক্তেশ্বর ও গাজিয়াবাদ জেলার ১২টি গ্রাম (ফাইল ফটো)

২৪-ঘন্টা বন্যা পরিস্থিতির দিকে নজর রাখছে সেচ ও বন্যা নিয়ন্ত্রণ বিভাগ৷

দিল্লি এখন বানভাসি৷ গত ৩২ বছরে যমুনা নদীর জলস্তর এতটা বাড়েনি৷ গত দু'দিন ধরে টানা বৃষ্টি এবং হরিয়ানার যমুনানগরে হাতানিকুন্ড জলাধার থেকে প্রায় ৭লাখ কিউসেক জল ছাড়ার ফলে আজ দিল্লী ও হরিয়ানায় যমুনানদীর জল বিপদসীমার বেশ ওপর দিয়ে বয়ে চলেছে৷ নদীর দুপাশের নীচু এলাকা থেকে দু'হাজার পরিবারকে নিরাপদ জায়গায় সরানো হয়েছে৷ রাখা হয়েছে অস্থায়ী শিবিরে৷ দিল্লীর মুখ্যমন্ত্রী শীলা দীক্ষিত অবশ্য অভয় দিয়ে বলেছেন, প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে৷ আজ সকালে জানা গেছে দিল্লির বাইরে কয়েক জায়গায় বাঁধ ভেঙ্গে গেছে বলে ওইসব জায়গা জলমগ্ন হওয়ায় দিল্লীর দিকে জলপ্রবাহ হয়তো কমতে পারে৷ তবে নীচু এলাকা থেকে ইতিমধ্যেই বাসিন্দাদের অন্যত্র সরানো হয়েছে৷ শিবির বসানো হয়েছে, খাবারের বন্দোবস্তোও করা হয়েছে৷ কিন্তু ত্রাণ ও উদ্ধারের কাজ ভাল না হওয়ার অভিযোগে স্থানীয় বাসিন্দারা বিক্ষোভ দেখায়৷

তবে কমনওয়েলথ গেমসের খেলোয়াড় ও কর্মকর্তাদের থাকার জন্য আবাসন প্রকল্প যমুনার পাড়ে তৈরি করা হলেও তা অক্ষত আছে৷ যদিও লাগাতার বৃষ্টির দরুণ কিছু স্টেডিয়ামে জল চুঁইয়ে পড়ে৷ স্টেডিয়ামের কোনো কোনো জায়গায় জল জমে মশার উপদ্রব বাড়ায়৷ টানা বর্ষায় মহানগরীর বিভিন্ন স্থানে জলনিকাশি ব্যবস্থায় গলদ থাকায় ডেঙ্গু ও মশাবাহিত রোগ ছড়ানোর আশঙ্কা দেখা দিয়েছে৷ গেমসের আয়োজকদের কপালে ভাঁজ, বৃষ্টির জন্য পরিকাঠামো শেষ করার কাজ নির্ধারিত সময়সূচি অনুযায়ী চলছেনা৷ কারণ বৃষ্টি ও বন্যায় রেল ও সড়ক যোগাযোগ বিপর্যস্ত হওয়ায় আশপাশের রাজ্যগুলি থেকে সাজসরঞ্জাম আসতে দেরি হচ্ছে৷

উত্তর ভারতের অন্যান্য রাজ্য যেমন হরিয়ানা, পাঞ্জাব, গুজরাট, হিমাচলপ্রদেশের স্বাভাবিক জনজীবন বিপর্যস্ত৷ হরিদ্বার ও বিজনৌরের জলাধার থেকে জল ছাড়ার দরুণ গঙ্গা নদীর জলস্তর বৃদ্ধি পেয়েছে৷ ডুবে গেছে গড়মুক্তেশ্বর ও গাজিয়াবাদ জেলার ১২টি গ্রাম ৷ হরিয়ানায় বানভাসি ৮০টি গ্রাম৷ ত্রাণ ও উদ্ধারে হাত লাগিয়েছ সেনা, জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বিভাগ ও স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা৷ জেলা প্রশাসন সতর্কতা জারি করেছে৷

দিল্লির বন্যা নিয়ন্ত্রণ দপ্তরের মন্ত্রী জানান,পরিস্থিতির মোকাবিলায় তৈরি রাখা হয়েছে খালি সিমেন্ট ব্যাগ, পাথর, কাঠের খুঁটি, লাইফ জ্যাকেট, সার্চ লাইট ইত্যাদি৷

প্রতিবেদন: অনিল চট্টোপাধ্যায়, নতুনদিল্লী

সম্পাদনা: সুপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়

সংশ্লিষ্ট বিষয়