1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

দিল্লি ভোটের পূর্বাভাসে কংগ্রেসের চেয়ে বিজেপি এগিয়ে

রাজধানী দিল্লি বিধানসভার ৭০টি আসনে ভোট পড়েছে প্রাথমিক হিসেবে ৬৫ শতাংশের বেশির৷ সাতটি দল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও কংগ্রেস ও বিজেপির মূল লড়াই-এ শামিল হয়েছে এবার আম আদমি পার্টি৷

ভারতের হিন্দি বলয়ে পাঁচটি রাজ্য ছত্তিশগড়, মধ্যপ্রদেশ, মিজোরাম, রাজস্থান এবং দিল্লি বিধানসভার ভোটগ্রহণ শেষ হলেও সবার নজর ছিল দিল্লি বিধানসভা ভোটের দিকে৷ এই পাঁচটি রাজ্যের ভোটের ফলাফলকে আগামী বছরের সাধারণ নির্বাচনের ‘সেমিফাইনাল' বলে মনে করছেন অনেকে৷ কড়া নিরাপত্তার মধ্যে দিল্লি বিধানসভার ৭০টি আসনের জন্য ভোট পড়ে প্রাথমিক হিসেবে ৬৫ শতাংশের বেশি৷ ভোটযুদ্ধে মোট সাতটি দল থাকলেও আসল লড়াইটা হয় ত্রিমুখী৷ কংগ্রেস, বিজেপি এবং আম আদমি পার্টির মধ্যে৷

বুথ ফেরত সমীক্ষায় বলা হচ্ছে, দিল্লি বিধানসভা ত্রিশঙ্কু হবার সম্ভাবনা বেশি৷ তবে বিজেপি থাকবে কংগ্রেসের চেয়ে এগিয়ে, সমীক্ষার পূর্বাভাসে এমনটাই বলা হয়েছে৷ দিল্লিতে তৃতীয় বৃহত্তম দল হিসেবে উঠে আসবে আম আদমি পার্টি৷

২০০৮ সালের নির্বাচনে ভোট পড়েছিল ৫৮ শতাংশ৷ এবারে বেশি ভোট পড়ার কারণ রুজি রোজগারের তাগিদে লাখ লাখ লোক দিল্লিতে এসেছে৷ বস্তি বানিয়ে যত্রতত্র রয়ে গেছে৷ দিল্লিতে মোট ১ কোটি ১৯ লাখ ভোটারের মধ্যে একটা বড় অংশ এই বস্তিবাসী৷ এরাই রাজনৈতিক দলগুলির আসল ভোটব্যাংক৷ তাই এদের সরানোর প্রশ্ন নেই৷ ভোটের মুখে অনেক অবৈধ কলোনিকে রাতারাতি বৈধ করে দিয়েছে শাসকদল৷ ভোট কেনার জন্য নির্বাচন-বিধিকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে কিছু রাজনৈতিক দল অকাতরে বিলিয়ে গেছে মদ ও নগদ টাকা৷ পুলিশী হানায় দিল্লিতে উদ্ধার করা হয় দেড় হাজার লিটারের বেশি চোলাই মদ, সাড়ে সাতশো লিটার ভারতে তৈরি বিদেশি মদ এবং নগদ দেড় কোটি টাকা৷

দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনের সম্ভাব্য ফলাফলের কেন্দ্রবিন্ধু এখন তাই অরবিন্দ কেজরিওয়ালের আম আদমি পার্টি৷ ভোটের ময়দানে এই প্রথম নেমে পড়েছে দলের নির্বাচনি প্রতীকচিহ্ন ‘ঝাঁটা' হাতে৷ দুর্নীতি ও কুশাসন ও দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধিকে বিদেয় করতে৷ উল্লেখ্য, দু বছর আগে দুর্নীতির বিরুদ্ধে আন্না হাজারের আন্দোলনের পুরোভাগে ছিলেন কেজরিওয়াল৷ দিল্লির কমনওয়েলথ গেমস এবং টু-জি স্পেকট্রাম বণ্টনে অনিয়মে যুবসমাজ যখন কেন্দ্রের বিরুদ্ধে অসন্তোষে ফেটে পড়ে তখন কেজরিওয়াল তাঁদের অসন্তোষকে রাজনৈতিক রূপ দিতে গঠন করেন আম আদমি পার্টি৷ তাই অনেকের ধারণা ছাত্র ও যুব সম্প্রদায়ের ভোট যেতে পারে আম আদমি পার্টির ঝুলিতে৷ পাশাপাশি স্বচ্ছ ও পরিচ্ছন্ন ভাবমূর্তি তুলে ধরে থাবা বসিয়েছে বস্তি এলাকার প্রান্তিক মানুষদের ভোটেও৷ যেহেতু আম আদমি পার্টি সংগঠন শক্তিশালী নয়৷ কাজেই, দুর্নীতি, মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ, মহিলাদের নিরাপত্তা, নির্বাচনি সংস্কার, বিচার বিভাগের সংস্কার, পরিকাঠামোর বিকাশের মতো দলের দেয়া বিভিন্ন প্রতিশ্রুতি পূরণ করা কতটা সম্ভব হবে তা নিয়েও প্রশ্ন থাকছে৷ এককভাবে সরকার গড়ার মতো আসন না পেলেও সরকার গড়তে আম আদমি পার্টির ভূমিকা যে গুরুত্বপূর্ণ হবে তা নিয়ে সংশয় নেই বলে ধরে নিয়েছেন ভোট বিশ্লেষকরা৷ আর এটাই এখন কংগ্রেস আর বিজেপির রাতের ঘুম কেড়ে নিয়েছে৷

রাজনৈতিক শক্তি পরীক্ষায় আম আদমি পার্টি উৎরে গেলে দিল্লির আঞ্চলিক দলের তকমা ঝেড়ে ফেলে সর্বভারতীয় স্তরে তাদের রাজনৈতিক আসন পাকা করার দিকে এগিয়ে যাবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়