1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

দায়িত্ববোধ ও মাত্রাজ্ঞানের অভাব

জুরিমণ্ডলী রায় দিয়েছে, ফার্গুসন জ্বলছে৷ এমনটা কি আগেই জানা ছিল না? ডয়চে ভেলের মিওদ্রাগ সোরিচ মনে করেন, সব স্তরেই দায়িত্বপ্রাপ্তদের মাত্রাজ্ঞান ছাড়িয়ে গেছে৷

সংশয় রয়ে গিয়েছিল, ফলে রায় অভিযুক্তের পক্ষেই গেল৷ জুরিমণ্ডলী শেষ পর্যন্ত মামলার বিরুদ্ধে অবস্থান নিল৷ বলা হয়েছে, সাক্ষীদের বয়ানের মধ্যে প্রচুর অসঙ্গতি ধরা পড়েছে৷ পুলিশ কর্মী ড্যারেন উইলসন কর্তব্যে গাফিলতি করেছেন বা আইন ভেঙেছেন, এমন কোনো প্রত্যক্ষ প্রমাণও পাওয়া যায়নি৷ উইলসন নিজে এক বিবৃতিতে ১৮ বছর বয়স্ক তরুণের হত্যার ক্ষেত্রে আত্মপক্ষ সমর্থন করেছেন৷ বলেছেন, তাঁকে যে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছিল, সেই অনুযায়ী তিনি পদক্ষেপ নিয়েছেন৷ শীতল কণ্ঠে সবজান্তা মনোভাব দেখিয়ে কথা বলেছেন তিনি৷ নিজেই গুলি চালিয়ে নিজেকেই শিকার হিসেবে তুলে ধরেছেন উইলসন৷ এর থেকে তিনি নীরব থাকলেই ভালো হতো!

Miodrag Soric

মিওদ্রাগ সোরিচ

দ্বিতীয় শ্রেণির পুলিশ

কাটা ঘায়ে নুনের ছিটে দিয়ে উইলসন গোটা দেশে অ্যাফ্রো-অ্যামেরিকান সম্প্রদায়ের পক্ষে জুরিমণ্ডলীর রায় মেনে নেওয়া আরও কঠিন করে তুলেছেন৷ ড্যারেন উইলসন কোনো জনপ্রিয় চরিত্র নয়৷ গোটা বিশ্বে অ্যামেরিকান পুলিশ সম্পর্কে যে ধারণা চালু আছে, তিনি তারই প্রতিমূর্তি৷ তারা আগে গুলি চালায়, তারপর প্রশ্ন করে৷ সমস্যা হলো, এই ধারণা যে ভুল নয়, প্রায়ই তার প্রমাণ পাওয়া যায়৷

তথ্য-পরিসংখ্যান এক স্পষ্ট চিত্র তুলে ধরছে৷ অ্যাফ্রো-অ্যামেরিকান সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে পুলিশের মাত্রাতিরিক্ত হিংসা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এক বাস্তব সত্য, যদিও মার্কিন নাগরিকরা বিষয়টি ঢেকে রাখার চেষ্টা করেন৷ পুলিশের প্রশিক্ষণের মধ্যেও অনেক ত্রুটি রয়েছে৷ জার্মানিতে এক্ষেত্রে যে মানদণ্ড রয়েছে, তা সেখানে খাটে না৷ কোনো ব্যক্তিকে যদি ফ্রাংকফুর্ট শহরে পুলিশের কাজ করার জন্য উপযুক্ত বলে না মনে করা হয়, তিনি অন্য এক শহরে সেই কাজ পাবেন, এমনটা কল্পনাও করা যায় না৷ কিন্তু অ্যামেরিকার মিসুরি রাজ্যে সেটাই ঘটছে৷ ভালো পুলিশকর্মীরা সেন্ট লুইস শহরে টহল দিতে পারেন৷ তাঁদের ‘কম ভালো' সতীর্থদের ফার্গুসনের মতো সামাজিক সমস্যার কেন্দ্রে পরিস্থিতি সামলানোর জন্য পাঠানো হয়৷ সেখানে ‘দ্বিতীয় শ্রেণি'-র এই পুলিশকর্মীদের বেতনও কম৷ ফলে তাদের উদ্যমও যে কম, তাতে অবাক হবার কারণ আছে কি?

নতুন করে বর্ণবাদ-ভিত্তিক অশান্তি?

মাইকেল ব্রাউনের মৃত্যু শুধু একটা মর্মান্তিক ঘটনা নয়৷ পুলিশ ভাবনাচিন্তা না করেই তাড়াহুড়ো করে অস্ত্র ব্যবহার করছে, এমন ঘটনাও বিচ্ছিন্ন নয়৷ প্রায় প্রতিদিনই অ্যামেরিকায় কোথাও না কোথাও এমন ঘটনার খবর পাওয়া যায়৷ সবকটি ঘটনা সংবাদ শিরোনাম পর্যন্ত পৌঁছয় না৷ মাইকেল ব্রাউনের ঘটনা গোটা দেশে বর্ণবাদ-ভিত্তিক অশান্তি ছড়িয়ে দেবার ক্ষমতা রাখে৷ রাজনৈতিক নেতৃত্ব বিষয়টিকে কীভাবে সামাল দেয়, তার উপর অনেকটা নির্ভর করবে৷ প্রেসিডেন্ট ওবামা ও ওয়াশিংটনের নেতাদের আচরণ এ ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ৷

Proteste gegen den Ferguson Urteil in Los Angeles 25.11.2014

মিসুরির রাজ্য স্তরের রাজনীতিকরা যে একেবারেই পরিস্থিতি সামাল দেবার যোগ্য নন, সেটা তাঁরা বুঝিয়ে দিয়েছেন

মিসুরির রাজ্য স্তরের রাজনীতিকরা যে একেবারেই পরিস্থিতি সামাল দেবার যোগ্য নন, সেটা তাঁরা বুঝিয়ে দিয়েছেন৷ যেমন গভর্নর জে নিক্সন৷ ফার্গুসন শহরে আইন-শৃঙ্খলার দায়িত্ব কার, এক সাক্ষাৎকারে তিনি সেই প্রশ্নেরও জবাব দিতে পারেননি৷ তোতলামি করে তিনি এখন সারা দেশে পরিহাসের পাত্র হয়ে উঠেছেন৷ দায়িত্বপ্রাপ্ত সরকারি কৌঁসুলি রবার্ট পি ম্যাককোলো-ও এই ঘটনার ক্ষেত্রে দায়িত্ববোধের পরিচয় দেননি৷ মাইকেল ব্রাউনের মৃত্যুর পর অনেকেই তাঁর বিরুদ্ধে পক্ষপাতের অভিযোগ করেছেন৷ কারণ ম্যাককোলো-র বাবাও পুলিশ ছিলেন এবং এক অ্যাফ্রো-অ্যামেরিকানের গুলিতে প্রাণ হারান৷ তিনি সব তথ্য-প্রমাণ জুরিমণ্ডলীর হাতে তুলে দেবার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন৷ ভালো হতো, যদি তিনি এই ‘কেস'-টি কোনো বিশেষ কৌঁসুলির হাতে তুলে দিতেন৷ সেই ব্যক্তি তখন জুরিমণ্ডলীর সদস্যদের সঙ্গে বসে সে সব পরীক্ষা করে দেখতে পারতেন৷ ম্যাককোলো এমন প্রস্তাবে কান দেননি৷ অহংবোধ অথবা দায়িত্ববোধ সম্পর্কে ভুল ধারণা হয়ত তাঁকে এমন আচরণে উদ্বুদ্ধ করেছে৷ শেষ পর্যন্ত তিনি নিজের এলাকার প্রতি কোনো দায়িত্ব পালন করেননি৷ পরিস্থিতি সামাল দিতে ব্যর্থ হয়েছেন – মিসুরি রাজ্যে এমন স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাদের তালিকা বেশ দীর্ঘ৷ যেমন ফার্গুসন শহরের মেয়র৷ রাজনীতির ক্ষেত্রে যোগ্যতার অভাবের বিরুদ্ধে অবশ্যই তেমন কিছু করার থাকে না৷ নাগরিকদের অন্য জনপ্রতিনিধি বেছে নিতে হবে৷

তবে অ্যামেরিকায় রাজনীতি ও বিচারব্যবস্থা ব্যবস্থা সম্পর্কে হতাশার মনোভাব হিংসাত্মক কার্যকলাপের অজুহাত হতে পারে না, যেমনটা বার বার দেখা যাচ্ছে৷ যারা দোকানে লুটপাট করছে ও গাড়িতে আগুন লাগাচ্ছে, তাদের জেলে পাঠানো উচিত৷ ফার্গুসনের বাসিন্দাদের ভাবতে হবে, কীভাবে উত্তেজনা কমানো সম্ভব৷ মাইকেল ব্রাউনের বাবা-মা উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত তুলে ধরছেন৷ তাঁরা শান্তি ও শান্তিপূর্ণ পদক্ষেপের ডাক দিচ্ছেন৷ স্থানীয় গির্জা, শ্রমিক সংগঠন ও এনজিও-গুলিও একই সুরে আহ্বান জানাচ্ছে৷ অ্যামেরিকার জন্য এই কঠিন সময়ে তাঁদের সবার বিশেষ দায়িত্ব রয়েছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন