1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

দারিদ্র্য বিমোচনে এক মঞ্চে সরকার ও বিরোধী দল

সারাদেশের বন্যা পরিস্থিতি, বন্যার্তদের দুর্ভোগ, অ্যানথ্রাক্স আতঙ্ক, সংসদ অধিবেশনে ফেরা নিয়ে বিরোধী দলের শর্ত, যৌথ সামরিক অনুশীলন, সৌদি আরবে শ্রমিক রপ্তানি সংক্রান্ত খবরগুলো বিশেষভাবে গুরুত্ব পেয়েছে আজকের পত্র-পত্রিকায়৷

Bangladesh, slums, Dhaka, দারিদ্র্য, সরকার, বিরোধী দল, ঢাকা, বাংলাদেশ

ফাইল ছবি

দারিদ্র্য বিমোচনে এক মঞ্চে দাঁড়িয়েছিলেন সরকার ও বিরোধী দলের নেতারা৷ শুক্রবার বিকেলে জাতীয় সংসদের দক্ষিণ প্লাজায় দারিদ্র্য বিরোধী জনসমাবেশে নেতারা দেশ থেকে দারিদ্র্য দূরীকরণে একমত হন৷ দৈনিক ইত্তেফাক, প্রথম আলো, কালেরকণ্ঠ, জনকণ্ঠ, নিউএইজসহ প্রায় সব পত্রিকায় শিরোনাম হয়েছে দুই দলের এক মঞ্চে আসার খবরটি৷ এতে বলা হয়েছে, জাতীয় সংসদের সর্বদলীয় সংসদীয় গ্রুপ এবং দারিদ্র্য বিরোধী ক্যাম্পেইন সহস্রাব্দের উন্নয়ন লক্ষ্যগুলো অর্জনে এ সমাবেশের আয়োজন করে৷ সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্য পাঠ করেন এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক এবং বিরোধী দলীয় নেত্রী খালেদা জিয়ার শুভেচ্ছা বক্তব্য পাঠ করেন জয়নুল আবদিন ফারুক৷

পুলিশের বিরুদ্ধেও চাঁদা আদায়ের অভিযোগ

আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে সমন্বিত প্রয়াস জরুরি, বললেন পুলিশের মহাপরিদর্শক হাসান মাহমুদ খন্দকার৷ তিনি বলেন, পুলিশ বাহিনীর কাছে জনগণের প্রত্যাশা অনেক৷ জনগণের এ প্রত্যাশা ও প্রাপ্তির মধ্যে যখন অমিল দেখা দেয় তখন দুইপক্ষের মধ্যে দূরত্ব সৃষ্টি হয়৷ তাই পুলিশ ও জনগণের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক স্থাপন করতে হবে৷ শুক্রবার ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সদস্যদের সাথে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন৷ দৈনিক জনকণ্ঠ, সমকাল, ইত্তেফাক, যুগান্তর, ডেইলি স্টারসহ প্রায় সব পত্রিকার প্রথম পাতায় স্থান পেয়েছে খবরটি৷ এতে আরো বলা হয়েছে, সভায় ব্যবসায়ীরা চাঁদাবাজি, ছিনতাই নিয়ে তাঁদের ক্ষোভ প্রকাশ করেন৷ এমনকি পুলিশও তাঁদের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করে বলে তাঁরা অভিযোগ করেন৷ ব্যবসায়ীরা চাঁদা আদায় প্রতিরোধে বিশেষ সেল গঠনের পরামর্শ দেন৷

পাবনা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত

পাবনায় ছাত্রলীগ ও যুবলীগ কর্মীদের হামলায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের অফিস সহকারী পদে নিয়োগ পরীক্ষা ভণ্ডুল হয়ে গেছে৷ শুক্রবার পরীক্ষা চলার সময় হামলায় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকসহ ১৫ জন আহত হন৷ এ সময় চারটি গাড়ি এবং পাবনা জিলা স্কুল ও সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দরজা-জানালা ভাঙচুর করা হয়৷ দৈনিক যায়যায়দিন, ইত্তেফাক, কালের কণ্ঠ, সমকালসহ সব পত্রিকাতেই অন্যতম শীর্ষ খবর হয়েছে এটি৷ এতে বলা হয়েছে, এ ঘটনায় ৩২ জনের বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার আইনে পৃথক দুটি মামলা হয়েছে৷ তবে যুবলীগ ও ছাত্রলীগ হামলার ঘটনায় নিজেদের সম্পৃক্ততা অস্বীকার করেছে৷

গ্রন্থনা: হোসাইন আব্দুল হাই

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়