1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

দারিদ্র্যের ট্র্যাফিক লাইট

গরিব বলতে মানুষ কতো গরিব হতে পারে? প্যারাগুয়ের একটি এনজিও গাঁয়ের মানুষদের নিজেদেরই নির্ধারণ করতে বলে, তাঁরা কতোটা গরিব এবং ঠিক কোথায় গরিব৷ তারপর শুরু হয় দারিদ্র্য দূরীকরণ৷

গরিব বলতে মানুষ কতো গরিব হতে পারে? প্যারাগুয়ের একটি এনজিও গাঁয়ের মানুষদের নিজেদেরই নির্ধারণ করতে বলে, তাঁরা কতোটা গরিব এবং ঠিক কোথায় গরিব৷ তারপর শুরু হয় দারিদ্র্য দূরীকরণ৷

প্যারাগুয়ের রাজধানী আসুনসিয়ন থেকে গাড়িতে আধ ঘণ্টা লাগে সান লোরেন্সো যেতে৷ এখানে দু'লাখ সত্তর হাজার মানুষের বসবাস, তাদের অনেকেরই অস্তিত্ব দারিদ্র্যসীমার নীচে৷ যেমন মার্টা মেসা একটি রেস্টুরেন্টের মালিক৷ একটি ক্ষুদ্র ঋণ নিয়ে তিনি এই দোকানটি খোলেন কয়েক বছর আগে৷ মার্টা বলেন, ‘‘এম্পানাদা, অন্যান্য খাবারদাবার, স্ন্যাক্স, কোল্ড ড্রিঙ্কস, সন্ধ্যেয় হ্যামবার্গার পর্যন্ত৷ আমি চব্বিশ ঘণ্টা এখানে থাকি৷ এটা একসঙ্গে আমার বাড়ি আর দোকান৷''

মার্টা মেসা-র দোকান ভালোই চলেছে, যদিও তিনি ঠিক বড়লোক হয়ে ওঠেননি৷ ন্যান্সি রামোস নিয়মিতভাবে সেখানে গিয়ে দেখেন, মার্টার পরিস্থিতির কীভাবে উন্নতি করা যায়৷ ন্যান্সি প্যারাগুয়ে ফাউন্ডেশন-এর হয়ে কাজ করেন৷ এই সংস্থাটি একাধিকবার মার্টার ক্ষুদ্র ঋণের ব্যবস্থা করে দিয়েছে৷ ন্যান্সি সবসময়েই তাঁর ট্যাবলেট সঙ্গে নিয়ে আসেন – এছাড়া একটি জরিপের কাগজ, যাকে তিনি ‘দারিদ্র্যের ট্র্যাফিক লাইট' নাম দিয়েছেন৷ ন্যান্সি বলেন: ‘‘আমি যখন একটি পরিবারকে জিজ্ঞাসা করি: তোমরা কি গরিব? অনেক সময় তারা উত্তরই দিতে পারে না; কথায় বোঝাতে পারে না, তারা কতোটা গরিব৷ আমাদের ট্র্যাফিক লাইট সিস্টেম দিয়ে আমরা ধাপে ধাপে বার করে নিই, তাদের দারিদ্র্যটা কোথায়৷''

দারিদ্রের লাল-সবুজ-হলদে

মূল কথা হল, মার্টা মেসা তাঁর নিজের অবস্থা নিজেই পরীক্ষা করেন, আর্থিক সঙ্গতি থেকে স্বাস্থ্যগত পরিস্থিতি৷ ন্যান্সি সঠিক প্রশ্নগুলি করেন৷ ন্যান্সি বোঝালেন: ‘‘এখানে যেমন আমরা সঞ্চয়ের ইন্ডিকেটরটা নিয়েছি৷ এই ছবিটার মানে হল, এই পরিবারটির কোনো সঞ্চয় নেই৷ এই ছবিটার মানে হল, এরা মাঝেমধ্যে কিছুটা বাঁচিয়ে থাকেন৷ আর এই পরিবারটি মাস ছয়েক ধরে সঞ্চয় করছে৷''

লক্ষ্য হলো, লাল থেকে হলদে হয়ে সবুজে পৌঁছনো৷ এই সব রং থেকে প্রতিবার বোঝা যায়, কোথায় প্রগতি হয়েছে, কোথায় ঘাটতি রয়েছে৷ মার্টা মেসা-র ক্ষেত্রে তাঁর স্নানের ঘরটি এখনো লালের ঘরে৷ মার্টা জানালেন: ‘‘আমার সবচেয়ে বেশি দরকার হল, একটা নতুন বাথরুম৷ এখানে সব কিছু আরো নতুন, আরো আধুনিক হওয়া দরকার, দেয়াল, মেঝে, সব কিছু আরো ভালো হওয়া চাই, আমার পরিবারের জন্য, আমার ছেলের জন্য৷''

পরের কয়েক সপ্তাহ ধরে সেটাই হবে লক্ষ্য৷ মার্টার নথির জন্য আর একটি ছবি তুললেই মার্টা আর তাঁর সমস্যার রেকর্ড রয়ে গেল৷ ন্যান্সি যখন পরের বারে আসবেন, তার আগে অগ্রগতি ঘটা চাই৷

রোজগারের পন্থা

প্যারাগুয়ের মানুষদের প্রায় এক-চতুর্থাংশ দারিদ্র্যে জীবন কাটান৷ কয়েক বছর আগেও এই সংখ্যা ছিল অনেক বেশি৷ রোজগারের অপরাপর পন্থা সৃষ্টির প্রচেষ্টা সফল হচ্ছে, বলে মনে হয়৷ প্যারাগুয়ে ফাউন্ডেশন ঠিক সেই পন্থাতেই কাজ করে, বিশেষ করে মহিলাদের ক্ষেত্রে৷ ন্যান্সি জানালেন: ‘‘আমরা নানা রকম রোজগারের পন্থা উদ্ভাবন করতে সাহায্য করি, যেমন ছোট ব্যবসা৷ ক্ষুদ্র ঋণের মাধ্যমেও সেটা করা হয়৷ মহিলারা এ ভাবে সরাসরি ও তাড়াতাড়ি টাকা রোজগারের সুযোগ পান৷''

হোসেফা হিমেনেস এখানেই বাস করেন৷ গত তিন মাস ধরে তিনি এই প্রকল্পে সংশ্লিষ্ট৷ তাঁর ব্যবসা হল সাবান তৈরি করা৷ প্যারাগুয়ে ফাউন্ডেশন-এর সাহায্যে সাবান তৈরি একটা ভালো ব্যবসা হয়ে উঠেছে৷ হোসেফা জানালেন: ‘‘আমি সাবান কিনি প্যারাগুয়ে ফাউন্ডেশনের কাছ থেকে, তারপরে সেটা মিশিয়ে বিক্রি করি৷ খুব ভালোই বিক্রি হয়৷'' ন্যান্সি রামোস-ও মাঝেমধ্যে এখানে এসে হোসেফা-র সঙ্গে তাঁর অবস্থা নিয়ে কথা বলেন৷ হোসেফা-রও একটা স্বপ্ন আছে: ‘‘আমি একটা নতুন রান্নাঘর চাই, সেটাই হল আমার স্বপ্ন৷ আমি সেটাকে বাস্তব করতে চাই৷''

হোসেফা আপাতত খোলা আকাশের নীচে রাঁধেন৷ তবে শীঘ্রই এই পরিস্থিতি বদলে যাবে, বলে আশা করা যায়৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক