1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

দারিদ্র্যপীড়িত এলাকায় আলোর দিশারী ‘বাসক্লিনিক’

বিশ্বের আর কোনো শিল্পোন্নত দেশে জন্মের পর এত বেশি শিশুর মৃত্যু হয় না, যেমনটি হয়ে থাকে যুক্তরাষ্ট্রে৷ অপর্যাপ্ত স্বাস্থ্য পরিষেবা ও দারিদ্র্যই হলো এর মূল কারণ৷ এক্ষেত্রে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে একটি বেসরকারি উদ্যোগ৷

default

বাসক্লিনিকে চিকিৎসা সেবা চলছে

বাস স্টপ অ্যানেক্সোটিয়া: অ্যামেরিকার রাজধানী ওয়াশিংটনের এক দরিদ্র জনবসতি৷ এই এলাকায় একটি বাস এসে দাঁড়ায় মাঝে মাঝে৷ এক ভ্রাম্যমাণ শিশু ক্লিনিক এটি৷ চিকিৎসক ও নানা ধরনের চিকিৎসার সরঞ্জাম রয়েছে এতে৷ মায়েরা আশেপাশের বাড়িগুলি থেকে ছুটে আসেন তাঁদের অসুস্থ বাচ্চাদের নিয়ে৷ এক মা বলেন, ‘‘আমি আমার মেয়েকে নিয়ে এসেছি৷ দুই মাস ধরে তার কাশি হয়েছে৷'' মায়ের শরীরও অত্যন্ত কাহিল৷ মুখে অল্প কয়েকটি দাঁত৷ পাঁচ মাসের জুলিয়া ২২ বছর বয়সি এই তরুণীর তৃতীয় সন্তান৷ ‘‘আমার তিন ও পাঁচ বছর বয়সি আরও দুই সন্তান রয়েছে'', বলেন এই তরুণী মা৷

রাজধানীর ভুলে যাওয়া অঞ্চল

১৭ বছর বয়সে প্রথম সন্তান হয় তাঁর৷ প্রত্যেকটি মেয়েরই আলাদা আলাদা বাবা৷ মা আবার স্কুলে যাচ্ছেন৷ কোনোরকমে এই ব্যবস্থাটা করতে পেরেছেন তিনি৷ এই অঞ্চলের অসংখ্য সিংগেল বা একক মায়ের একজন তিনি৷ এদের মধ্যে ৯০ শতাংশই আফ্রো অ্যামেরিকান৷ বিশ্বের সবচেয়ে ধনী দেশের রাজধানীর ভুলে যাওয়া এই অংশে দুই জনের মধ্যে একজন বেকার৷ অনেকেই স্কুলের শিক্ষা শেষ করতে পারেননি৷

Armut macht krank

বাসক্লিনিকে থেকে চিকিৎসা নিয়েছেন এই মা-মেয়ে

এইডস-এর হার এত বেশি যে আফ্রিকার কোনো কোনো অঞ্চলেও এমনটি দেখা যায় না৷ ১০০ জনে একজন এই ভাইরাস বহন করেন৷ একজন ডাক্তারকে পারিশ্রমিক দিয়ে রাখাটা অন্ধকারাচ্ছন্ন এই এলাকায় রীতিমত বিলাসিতা৷

জর্জটাউন বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফ থেকে একটি বাসকে অতি আধুনিক এক ‘হাসপাতালে' পরিণত করা হয়েছে৷ সমস্যাপূর্ণ সাতটি এলাকায় নিয়মিত যাতায়াত করে এটি৷ সাদা রঙের এই যানটি বিষন্ন এই অঞ্চলে অনেকটা ‘উফো'-র মতোই অচেনা এক বস্তু মনে হয়৷ আশার আলোও জাগায়৷ অ্যানেকোসটিয়া যেন এক উত্তপ্ত জনবসতি৷

মৃত্যুর হার কিছুটা কমেছে

ওয়াশিংটনে গত কয়েক বছরে মৃত্যুর হার কমে ৫০০ থেকে ৯০ হয়েছে৷ তবে এই ধরনের হত্যাকাণ্ডের আবার বেশিরভাগই ঘটেছে অ্যানেকোস্টিয়ায়৷

বাসটির ভেতরে কয়েকটি বুথ বানিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষার জায়গা তৈরি করা হয়েছে৷ একটি দৃশ্যের কথা কল্পনা করা যাক: বাসের ভেতরে সরু করিডোরের ওয়েটিং রুমটা সবসময় রোগীতে ভর্তি থাকে৷ এক অল্পবয়সি ডাক্তার জুলিয়াকে পরীক্ষা করতে এক বুথের দরজা ঠেলে বের হয়ে আসেন৷ করিডোরে একটি ছোট ছেলেকে টিকা দেওয়া হচ্ছে৷ আর একটি বুথে এক মা নিজের স্বাস্থ্যটাও পরীক্ষা করিয়ে নিচ্ছেন৷

২০ বছর ধরে সাদা রঙের ‘রোনাল্ড ম্যাকডোনাল্ড কেয়ার মোবাইল প্রোগ্রাম' অ্যানেকোস্টিয়াতে যাতায়াত করছে৷ দাতাদের সহায়তায় চলে এর কার্যক্রম৷

Armut macht krank

সবার পক্ষে চিকিৎসা সেবা পাওয়া সম্ভব হয় না

এ পর্যন্ত ৫০,০০০ রোগী চিকিৎসা পেয়েছেন এই কর্মসুচি থেকে৷ বলেন প্রকল্পটির প্রতিষ্ঠাতা শিশু চিকিৎসক মাথিউ লেভি৷ তাঁর কথায়, ‘‘আমরা এই প্রকল্প শুরু করেছি, যেহেতু শহরের এই অংশে ধনী ও দরিদ্রের মধ্যে পার্থক্যটা বেড়ে যাচ্ছে৷ আমরা এই পিছিয়ে পড়া মানুষদের কাছে চিকিৎসার সুযোগ সুবিধা পৌঁছে দিতে চাই৷''

ধীর গতিতে চলা স্বাস্থ্য সংস্কার

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ওবামার স্লথ গতিতে চলা স্বাস্থ্যপরিষেবা সংস্কার মাঝে মাঝেই হোঁচট খাচ্ছে৷ আশা করা যায় অচিরেই সবার জন্য স্বাস্থ্যবিমা চালু করা সম্ভব হবে৷ আর তাহলে স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় এক বিরাট বাধা দূর হবে৷ বলেন জর্জ টাউন ইউনিভার্সিটি ক্লিনিকের প্রফেসর ম্যাথিউ লেভি৷ তবে অনেক বাধা রয়েছে সামনে৷ ওয়াশিংটনে ধনী দরিদ্রের বিরাট ফারাক একটা বড় অন্তরায়৷ কোনো কোনো এলাকায় শিশু মৃত্যুর হার উন্নয়নশীল দেশের সমতুল্য৷ এই মত প্রকাশ করেন ড. লেভি৷

‘সেভ দ্য চিল্ডরেন' সংগঠনের তথ্য অনুযায়ী, অ্যামেরিকায় প্রতিবছর যত শিশু জন্মের পরপরই মৃত্যু বরণ করে, সেরকম কোনো শিল্পোন্নত দেশে দেখা যায় না৷ এই হার অন্যান্য শিল্পোন্নত দেশের চেয়ে ৫০ শতাংশ বেশি৷ অপর্যাপ্ত চিকিৎসা সেবা ও মন্দ শিক্ষা এর মূল কারণ৷ এর বিরুদ্ধে লড়াই করছেন ড. লেভি ও তাঁর টিম৷

বিশেষ অসুখ নিয়ে আসেন অল্পবয়সিরা

Armut macht krank

প্রকল্পটির প্রতিষ্ঠাতা শিশু চিকিৎসক মাথিউ লেভি

এইডস, স্থূলতা, ডায়বেটিস, হাঁপানি, বিশেষ করে এসব অসুখ-বিসুখ নিয়েই তাঁর কাছে আসে অল্পবয়সি রোগীরা৷ এছাড়া মানসিক দিক দিয়েও সহায়তা করা হয় অনেককে৷ ‘‘আতঙ্ক, ডিপ্রেশন ইত্যাদি সমস্যা দেখা দিলে আমরা তাদের সমাজকর্মীদের কাছে পাঠাই'', জানান ড. লেভি৷

স্ট্যান্ডফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষেধকমূলক চিকিৎসায় বিশেষজ্ঞ সঞ্জয় বসু এবং অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনৈতিক বিশেষজ্ঞ ডেভিড স্টাকলারের সমীক্ষার ফলাফলে জানা গিয়েছে: দারিদ্র্য মানুষকে অসুস্থ করে তোলে৷ সঞ্জয় বসু জানান, অর্থনৈতিক সংকটের কারণে অ্যামেরিকায় আত্মহত্যার হারও বেড়ে গিয়েছে৷ সুইডেনের মতো দেশগুলি নির্দিষ্ট সামাজিক নীতি দ্বারা এই অবস্থার রাশ টানতে পেরেছে৷

নতুন নতুন ব্যাধিও মাথা চাড়া দিচ্ছে

আর্থিক দুর্বলতার কারণে নতুন নতুন ব্যাধিও মাথা চাড়া দিয়ে উঠছে অ্যামেরিকায়৷ দারিদ্র্য ও বেকারত্বের কারণে অনেকই বাড়ি-ঘর ছাড়তে বাধ্য হয়েছিলেন, তাঁদের সেই পরিত্যক্ত বাসস্থান ও বাগানে হঠাৎ করেই অচেনা জীবাণু আস্তানা গেড়েছে, যা আগে কখনও দেখা যায়নি৷ যেমন ওয়েস্ট নাইল ভাইরাস, যেগুলি মশা দ্বারা সংক্রমিত হয়৷

শিশু চিকিৎসক লেভির কাছে বিষয়টি স্পষ্ট: দারিদ্র্য পীড়িত এলাকার পরিবারগুলির প্রয়োজন সঠিক পরামর্শ ও মানসিক সহায়তা৷ তাঁর দেশটির সামাজিক নেটওয়ার্কে রয়েছে অনেক ছিদ্র৷ সবার জন্য স্বাস্থ্য বিমা হয়ত কিছু কিছু ছিদ্র বন্ধ করতে সাহায্য করবে৷ তবে তাঁর ‘শিশু-ক্লিনিকটি'-কে পার হতে হবে এখনও আরো অনেকটা পথ৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন