1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

দাদার রেকর্ড ভাঙছেন নাতি

রক্তেই অ্যাডভেঞ্চার, অতএব নিজেই নিজের জন্য নতুন চ্যালেঞ্জ স্থির করবেন, এতে আশ্চর্যের কী আছে! পিতামহের রেকর্ড ভাঙতে তাই একটানা ৩১ দিন জলের নীচে থাকতে চান ফাবিয়ঁ কুস্তো৷ ফ্লোরিডায় শুরু হয়ে গেছে সেই অভিযান৷

Malaysian Airlines Suche nach Black Box 8.April

প্রতীকী ছবি

জাক কুস্তো৷ সমুদ্রের নীচের আশ্চর্য জগত মানবজাতির সামনে তুলে ধরার ক্ষেত্রে যাঁর অবদান কোনোদিন ভোলার নয়৷ তাঁর তোলা ভিডিও তথ্যচিত্র গোটা বিশ্বকে মুগ্ধ করেছে৷ সেই মুগ্ধ দর্শকদের মধ্যে ছিলেন নাতি ফাবিয়ঁ-ও৷ ১৯৬৩ সালে লোহিত সাগরে জাক একটানা ৩০ দিন জলের তলায় একটি অভিযান চালিয়েছিলেন৷ ‘কনশেল্ফ ২' নামের এক যানে সেই দিনগুলি ফুটে উঠেছিলো ‘ওয়ার্ল্ড উইদাউট সান' নামের এক তথ্যচিত্রে৷ স্কুবা ডাইভিং-এও নতুন মাত্রা যোগ করেছিলেন তিনি৷ ১৯৯৭ সালে মারা জান জাক কুস্তো৷

Jacques Cousteau

জাক কুস্তো

এবার ফাবিয়ঁ গত রবিবার ফ্লোরিডা উপকূলে একটি সাবমেরিন ল্যাব নিয়ে ডুব মেরেছেন৷ ৩১ দিন পরে তাঁর বেরোনোর কথা৷ ৩৭ বর্গ মিটারের এই বাসের মতো দেখতে গবেষণাগারে তাঁর সঙ্গে রয়েছেন আরও ৫ জন৷ এই সময়কালে তিনি বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা চালাবেন এবং একটি তথ্যচিত্রও তৈরি করবেন৷ গোটা সময় জুড়ে এই অভিযানের লাইভ সম্প্রচার চলছে৷ সামাজিক নেটওয়ার্কের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের সঙ্গে যোগাযোগের ব্যবস্থাও রয়েছে৷ ক্লাসরুমে শিশু-কিশোরদের সঙ্গে ভিডিও চ্যাট-ও করতে চান ফাবিয়ঁ৷

‘মিশন ৩১' নামের এই অভিযানের প্রেক্ষাপটও অভিনব৷ আসলে ঠিক এই মুহূর্তে পিতামহের রেকর্ড ভাঙার কোনো পরিকল্পনা ছিল না ৪৬ বছর বয়স্ক ফাবিয়ঁ-এর৷ বছর দুয়েক আগে ‘অ্যাকোয়েরিয়াস' নামের সাবমেরিন গবেষণাগার পরিদর্শন করতে গিয়েছিলেন তিনি৷ মার্কিন প্রশাসন তখন বাজেট কমানোর চাপে পড়ে এই ল্যাবের অর্থায়ন পুরোপুরি বন্ধ করে দেওয়ার উদ্যোগ নিচ্ছিলো৷ রেকর্ড ভাঙার উদ্যোগের পরিকল্পনা ‘অ্যাকোয়েরিয়াস'-এর ভবিষ্যৎ আপাতত নিশ্চিত করছে৷ উল্লেখ্য, এই গবেষাণাগারে মহাকাশচারীরাও অনুশীলন করে থাকেন৷

রেকর্ড ভাঙার বিষয়টি সংবাদ মাধ্যমের দৌলতে বেশ চাঞ্চল্য সৃষ্টি করছে, এ বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই৷ ফাবিয়ঁ কুস্তো কিন্তু ব্যক্তিগত খ্যাতির জন্য এই কাজ করছেন না৷ তাঁর আশা, এর ফলে জলবায়ু পরিবর্তন ও সমুদ্রের উপর তার প্রভাব সম্পর্কে সচেতনতা বাড়বে৷ তিনি বলেন, অর্থনীতি, ব্যক্তিগত জীবন, ব্যবসায়িক কাজকর্ম থেকে শুরু করে নিজের স্বাস্থ্য, নিজের সন্তানের স্বাস্থ্য – প্রায় যে কোনো উদ্দেশ্য সফল করতে হলে মহাসাগরের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে হবে৷ অথচ এই মুহূর্তে তা মোটেই ভালো নেই৷

এসবি / জেডএইচ (এপি, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন