1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

দাঁতের মাজন হতে হবে আকর্ষণীয়

ঝকঝকে, মুক্তোর মতো সুন্দর, সুস্থ দাঁত কে না চায়? তবে দাঁত থাকতে, দাঁতের প্রকৃত মর্যাদা দিতে যে জিনিসটা সবচেয়ে জরুরি – তা হচ্ছে কার্যকর এবং সুস্বাদু একটা দাঁতের মাজন৷ ‘টুথপেস্ট' তৈরির রহস্য অনেকেরই অজানা৷

মাজনের সবুজ রেখা দেখতে বেশ তাজা, কিন্তু টিউবে ঢোকানোর আগে অনেক কাজ করতে হয়৷ এর পেছনে গবেষকদের অনেক কারসাজি থাকে৷ একই মাজনের টিউবে সবুজ ও সাদা রেখা আসলে গবেষণাগারে তৈরি হয়৷ তবে মাজন শুধু দাঁত পরিষ্কার করলেই চলবে না, স্বাদেও তা ভালো হওয়া চাই৷ সেটা ঠিক হলে তবেই উৎপাদন শুরু হয়৷ সব মালমশলা নিখুঁত মাপে হওয়া চাই, ঠিক যেমনটা কেক তৈরির সময়ে লাগে৷

মাজন বা টুথপেস্ট কোম্পানির কর্মী মিশায়েল ক্নাউয়ার বিষয়টা সম্পর্কে বললেন, ‘‘মাজন তৈরির জন্য বিশেষ কিছু কাঁচামাল চাই, যেমন দস্তার ক্লোরাইড বা রঙের পিগমেন্ট৷ সবুজ মাজন তৈরি করতে গেলে এই সব কাঁচামাল বিশাল এক মিক্সারে ঢালতে হবে৷''

Wohnungssuche Business-WG

দাঁত সুন্দর রাখতে কে না চায়?

কম্পিউটারের সাহায্যে একেবারে নিখুঁত পরিমাপ ঠিক করা হয়৷ ১৫টি আলাদা কাঁচামাল মিশিয়ে এই মাজন তৈরি করা হয়৷ এর মধ্যে রয়েছে মিষ্টি স্বাদ আনার সুইটনার, তাজা পুদিনার গন্ধ ইত্যাদি৷ ঢাকনা ভালো করে বন্ধ করার পর সবচেয়ে দরকারি জিনিসটা আসে, যা দিয়ে দাঁত পরিষ্কার করা হয়৷ তার মধ্যে রয়েছে কৃত্রিমভাবে তৈরি সিলিকা৷

এবার সবকিছু ভালো করে মেশাতে হয়৷ কিন্তু ডোরাকাটা মাজনের এই মোটা রঙিন রেখার মধ্যে আসলে কী আছে? কোনো বিশেষ পদার্থ? না, একেবারে ভুল ধারণা৷ আসল কথা হলো স্বাদ ও গন্ধ ভালো হওয়া চাই৷ দেখতেও খারাপ হলে চলবে না৷

মাজন কোম্পানির আরেক কর্মী ব্রিগিটা কাসাগ্রান্ডা বললেন, ‘‘মাজনের মধ্যে এমন এক রঙিন রেখা থাকা খুব জরুরি৷ ক্রেতার মনে হয়, এর নিশ্চয় কোনো আলাদা প্রভাব রয়েছে৷ যেমন সবুজ রেখা মানে প্রকৃতি ও ভেষজ মালমাশলা৷''

ঘণ্টাখানেক পর মিক্সারের কাজ শেষ হয়৷ এরপর প্রায় ১,২০০ কিলোগ্রাম তাজা মাজন ট্যাংকে ঢালা হয়৷ তার সামান্য একটা নমুনা পরীক্ষার জন্য ল্যাবে পাঠানো হয়৷ সেখানে দেখা হয়, পেস্ট কতটা তরল হয়েছে৷ তারপরই সবুজ ও সাদা মাজন টিউবে ভরা হয়৷

পরীক্ষা সফল হওয়ার পর এক দিন ধরে মাজন বিশ্রাম নেয়৷ তারপর আস্তে আস্তে টিউবে ভরা হয়৷ যা মনে হয়, তার তুলনায় কাজটা কিন্তু সহজ৷

বিশেষ পাইপের সাহায্যে ডোরাকাটা মাজন তৈরি হয়৷ পাইপ সোজা টিউবে ঢুকিয়ে দেওয়া হয়৷ তারপর তার মধ্যে সাদা-সবুজ বা সাদা-নীল রঙ ভরে ওঠে৷ এটাই হলো রহস্য৷ মাজন ভরার এই পাইপই কাজটা করে৷ এরপর টিউবের উপর দিকটা বন্ধ করা হয়৷ ব্যস, মাজন তৈরি৷ একটি রোবোট বছরে প্রায় ৫ কোটি টিউব প্যাকিং করে, যার পরিমাণ প্রায় সাড়ে সাত হাজার টন৷

সবশেষে পরীক্ষা করে দেখা হয়, ডোরাকাটা মাজনের রঙিন রেখাগুলি সমান পরিমাণে টিউব থেকে বের হচ্ছে কি না৷ কারণ চোখের দেখা বলে কথা! যে পুরোপুরি বিশ্বাস করে যে মাজনের সবুজ রেখাই দাঁত বেশি পরিষ্কার করে, তার কাছে দাঁত মাজার মজাই আলাদা!

এসবি/জেডএইচ

নির্বাচিত প্রতিবেদন