1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

দশ হাজার শরণার্থী শিশুকে খুঁজে পাচ্ছে না পুলিশ

ইউরোপে শরণার্থী হিসেবে আসা কমপক্ষে ১০ হাজার শিশুকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না৷ তাদের অনেককে দাসত্ব ও যৌনকর্মে বাধ্য করা হয়েছে বলে আশঙ্কা করছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের পুলিশ সংস্থা ইউরোপোল৷

সংস্থার ‘চিফ অফ স্টাফ' ব্রায়ান ডোনাল্ড ব্রিটিশ দৈনিক ‘দ্য অবজারভার'-কে বলেন, ‘‘এটা বলা অযৌক্তিক হবে না যে আমরা ১০ হাজারের বেশি শিশুকে খুঁজছি৷'' আসল সংখ্যা এর চেয়েও বেশি হতে পারে বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি৷ অবশ্য হারিয়ে যাওয়া শিশুদের মধ্যে কেউ কেউ হয়ত ইতিমধ্যে তাদের পরিবারের সঙ্গে আবারও মিলিত হয়ে থাকতে পারে বলে মনে করেন ডোনাল্ড৷ তবে তারা কোথায় আছে সে বিষয়ে কোনো তথ্য নেই৷

এদিকে, ইউরোপোল-এর একজন মুখপাত্র আরেক ব্রিটিশ দৈনিক ‘দ্য গার্ডিয়ান'-কে জানিয়েছেন, ইউরোপে শরণার্থীদের আগমনকে ঘিরে লাভবান হতে চাওয়া ‘অনেক' অপরাধীকে হাঙ্গেরি ও জার্মানি থেকে আটক করা হয়েছে৷ ঐ একই মুখপাত্র জার্মান সংবাদ সংস্থা ডিপিএ-কে জানিয়েছেন, শরণার্থী চোরাচালান থেকে লাভবান হওয়া অপরাধী গোষ্ঠীগুলো যে তাদের পদ্ধতি পরিবর্তন করে শিশু দাসত্ব ও যৌনকর্ম বিষয়ক ব্যবসায় যুক্ত হয়েছে সেই তথ্য ইউরোপোলের কাছে রয়েছে৷

ইউরোপোল-এর হিসাবে, ২০১৫ সালে ইউরোপে যে ১০ লক্ষেরও বেশি শরণার্থী এসেছে তাদের মধ্যে ২৭ শতাংশ শিশু হতে পারে৷

জার্মানির অবস্থা

২০১৫ সালে জার্মানিতে ৩৫ থেকে ৪০ হাজার শিশু শরণার্থী হিসেবে প্রবেশ করেছে বলে জানিয়েছে জার্মান সংগঠন ‘ফেডারেল এসোসিয়েশন ফর আনএকমপেনিড মাইনর রিফিউজিস' বা বিইউএমএফ৷ মূলত আফগানিস্তান, সিরিয়া, ইরাক, ইরিত্রিয়া ও সোমালিয়া থেকে তারা এসেছে৷

বিইউএমএফ-এর কর্মকর্তা নিলস এশপেনহোর্স্ট জানান, আগত শিশুদের মধ্যে ১৫ থেকে ২৫ শতাংশ শিশু হারিয়ে যেয়ে থাকতে পারে৷ পুলিশ এখন ‘হারিয়ে যাওয়া সাইকেল' যেভাবে খোঁজে সেভাবে হারিয়ে যাওয়া শরণার্থী শিশুদের খুঁজবে বলে ডয়চে ভেলের কাছে মন্তব্য করেন এশপেনহোর্স্ট৷

শরণার্থীদের আগমনকে ঘিরে লাভবান হতে চাওয়া অপরাধীদের কী শাস্তি হওয়া উচিত? জানান নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়