1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

দক্ষিণ কোরিয়ায় পরিবেশ বান্ধব বাস চালু

পরিবেশ বান্ধব পরিবহণ ব্যবস্থা চালু করল দক্ষিণ কোরিয়া৷ কোরিয়া অ্যাডভান্সড ইন্সটিটিউট অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি - কেএআইএসটি উদ্ভাবন করেছে এই পরিবহণ ব্যবস্থা৷

default

এমনভাবে বাসের উপরে বৈদ্যুতিক তার ঝুলবে না নতুন ব্যবস্থায়

মঙ্গলবার রাজধানী সৌলের মেয়র ওহ সে-হুন এবং কেআইএসটি'র প্রেসিডেন্ট সুহ নাম-পয়ো আনুষ্ঠানিকভাবে এই ব্যবস্থার উদ্বোধন করেন৷ ওহ এবং সুহ সহ বিশিষ্ট অতিথিবর্গ এই নতুন বাসে চড়ে সৌল গ্রান্ড পার্কের চারিদিকে ২.২ কিলোমিটার পথ পাড়ি দেন৷ প্রাথমিক পর্যায়ে অনলাইন ইলেক্ট্রিক ভেহিকল - ওএলইভি নামের তিনটি বাস সৌলের দক্ষিণাঞ্চলের একটি বিনোদন পার্কে রাখা হয়েছে৷

বাসের ব্যাটারি রিচার্জ করার জন্য পুরো রাস্তা বরাবর চারটি খণ্ডে ৪০০ মিটার বৈদ্যুতিক পাত বসানো হয়েছে৷ ‘রিচার্জিং রোড' এর উপর দিয়ে চলার সময় রাস্তায় পুঁতে রাখা বৈদ্যুতিক তারের ফালি থেকে চৌম্বকীয় পদ্ধতিতে শক্তি সংগ্রহ করতে পারবে বাসগুলো৷ ওএলইভি বাসগুলোর নিচের দিকে থাকা ‘পিক-আপ' যন্ত্রাংশ রাস্তায় পুঁতে রাখা বৈদ্যুতিক পাতের সাথে সংস্পর্শ ছাড়াই শক্তি টেনে নিতে পারবে৷ এই শক্তি বাস চালনার কাজে ব্যবহৃত হবে কিংবা ব্যাটারিতে জমা থাকবে৷

Togo Bus Fußball Anschlag Flash-Galerie

ফাইল ছবি

এই নমুনা পরিবহণ ব্যবস্থা যদি সফল প্রমাণিত হয়, তবে রাজধানীর বাস রুটে এগুলো নামানোর পরিকল্পনা রয়েছে কেআইএসটি'র৷ সৌলের বাস রুটগুলোতে ব্যবহার করতে হলে, বাস স্টপ, পার্কিং প্লেস এবং জংশনগুলোর মতো বাস রুটের ২০ শতাংশ স্থানে ভূ-নিম্নস্থ বৈদ্যুতিক পাত বসানো হবে৷ তারা জানিয়েছে, প্রচলিত বৈদ্যুতিক যানবাহনগুলোতে ব্যবহৃত ব্যাটারির পাঁচ ভাগের একভাগ আকারের ব্যাটারি প্রয়োজন হবে ওএলইভি'র জন্য৷ যার ফলে এগুলো রিচার্জ হওয়াটা বেশ সহজতর হবে৷ এছাড়া প্রচলিত বৈদ্যুতিক ট্রাম কিংবা ট্রলি বাসের জন্য যেমন উপর থেকে বৈদ্যুতিক তার টাঙ্গাতে হয়, সেটিও লাগছে না এই নতুন পরিবহণ ব্যবস্থায়৷

কেএআইএসটি বলছে, প্রথম ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে এই প্রযুক্তি উদ্ভাবনের চেষ্টা করা হয়েছিল, কিন্তু তখন এর কোন সুস্পষ্ট ফল পাওয়া যায়নি৷ সুহ বলেন, ‘‘বিশ্বের বৈদ্যুতিক যান-বাহনগুলোর মধ্যে এটিই সবচেয়ে অল্প ব্যয় সাপেক্ষ পরিবহণ৷ এর পরিচালনা ব্যয় প্রচলিত বৈদ্যুতিক যান-বাহনসমূহের তিন ভাগের এক ভাগ ৷'' সুহ আরো দাবি করেন যে, ‘‘জনসাধারণের চলাচলের জন্য এই প্রযুক্তির প্রয়োগের সুযোগ অসীম৷'' তিনি বলেন, ‘‘আমি এও বলতে চাই যে, এটিই ২১ শতকের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রযুক্তিগত অর্জনের একটি৷'' এছাড়া আগামী নভেম্বরে সৌলে অনুষ্ঠিতব্য জি ২০ বৈঠকে উপস্থিত প্রতিনিধিদের এই নব উদ্ভাবিত বাসে করে পরিবহণ করার পরিকল্পনার কথাও জানিয়েছেন সুহ৷

প্রতিবেদক: হোসাইন আব্দুল হাই

সম্পাদনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সংশ্লিষ্ট বিষয়