1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

দক্ষিণ আফ্রিকার বিদায়, পাকিস্তান সেমিফাইনালে

গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে খেই হারানোটা দক্ষিণ আফ্রিকার একটা বিশেষত্ব, বৈশিষ্ট্য নয়৷ অপরদিকে ইংল্যান্ড দেখাল যে কেভিন পিটারসন ছাড়া দলের অন্যরাও ব্যাট ধরতে জানে৷

default

পাকিস্তান দলে উল্লাস

দক্ষিণ আফ্রিকার ওয়ার্ল্ড টোয়েন্টি-টোয়েন্টি থেকে এ'ভাবে বিদায় নেওয়ার কোনো প্রয়োজন ছিল কি? চার্ল ল্যাঙ্গেভেল্ড অতি চমৎকার বোলিং করে পাকিস্তানকে যে টোটালে আটকে রাখেন, তা তো ধরাছোঁয়ার মধ্যেই ছিল৷ কিন্তু ব্যাটে দক্ষিণ আফ্রিকা যেরকম নুলো ধরা খেলা দেখাল, তা'তে জেতা যায় না, বিশেষ করে অন্যদিকে যদি সাইদ আজমলের দুসরা এবং সেই সঙ্গে উমর আকমল থাকে৷

ভারতের বিরুদ্ধে প্রথম পর্যায়ের খেলাটার মতোই, দক্ষিণ আফ্রিকা বড় দেরীতে গাড়ির পেডালে চাপ দিয়েছে৷ তাদের ব্যাটিং লাইন-আপে বিশ্বের কিছু সেরা হিটার, কিন্তু ফলশ্রুতি প্রথম ১০ ওভারে তিনটি চার এবং তিনটি দুই৷ তা'ও ডে ভিলিয়ার্স ঝলসে ওঠার পর কিছুটা আশা দেখা দিয়েছিল, যেহেতু মার্ক বাউচার এবং এ্যালবি মর্কেল তখনও বাকি৷ দরকার ছিল শেষ চার ওভারে ৪৭ রান৷ কিন্তু পাকিস্তানের স্পিনারদের বিরুদ্ধে ও' কাজটা অতো সোজা নয়৷

অপরদিকে দক্ষিণ আফ্রিকার বোলাররাও গোড়ায় পাকিস্তানকে ১৯ রানে তিন উইকেটে নামিয়ে দিয়েছিল - এই টুর্নামেন্টের নিকৃষ্টতম ওপেনিং৷ অবশ্য পাকিস্তানের টপ অর্ডার চিরকালই একটু নড়বড়ে৷ পরে আকমল ভাইরা ফায়ার ব্রিগেডের কাজ করে৷ আফ্রিদি আসার পর রানও আসতে থাকে৷ যদিও পাকিস্তান শেষ তিন ওভারে আবার শম্বুকগতি হয়ে দাঁড়ায়: মাত্র ১৬ রান৷ কিন্তু সাত উইকেটে ১৪৮ রান করে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ১১ রানে হারানোর জন্য ঐ যথেষ্ট৷

ওদিকে পাকিস্তান জেতার পর ইংল্যান্ড এমনিতেই সেমিফাইনালের জন্য কোয়ালিফাই করে গেছে৷ তবুও নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে জেতার জন্য তারা ১৫০ রান ধাওয়া করছিল৷ অথচ ৬৬টিতেই চারটি উইকেট পড়ে যায়৷ পরে ইয়য়েন মর্গানের ৪০ আর লিউক রাইটের ২৪ মিলে পরিস্থিতি সামলে দেয়৷ অর্থাৎ কেভিন পিটারসন না থাকলেও ইংল্যান্ড জিততে পারে, সেটাই প্রমাণ হল৷

প্রতিবেদন: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সম্পাদনা: রিয়াজুল ইসলাম

সংশ্লিষ্ট বিষয়