1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

থাইল্যান্ড-ক্যাম্বোডিয়া সীমান্তে সংঘর্ষ অব্যাহত

দ্বাদশ শতাব্দীর হিন্দু মন্দির সংলগ্ন এলাকার মালিকানাকে কেন্দ্র করে টানা ৬ দিন ধরে থাইল্যান্ড ও ক্যাম্বোডিয়ার সেনাবাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষ চলছে৷

default

সংঘর্ষে আহত এক থাই সেনা কে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে

সীমান্ত এলাকার ডাংরেক জঙ্গলের গভীরে প্রাচীন কালে তৈরি ‘প্রেয়া বিহার', ‘তা মোয়ান' এবং ‘তা ক্রাবে' নামের তিনটি হিন্দু মন্দির রয়েছে৷ ১৯৫০ সালে ঔপনিবেশিক শক্তি ফ্রান্স ক্যাম্বোডিয়া ছেড়ে চলে যাওয়ার পর থেকেই থাইল্যান্ড ও ক্যাম্বোডিয়া গোটা এলাকা নিজেদের বলে দাবি করে আসছে৷ ৪৯ বছর আগে এক আন্তর্জাতিক আদালত প্রেয়া বিহার মন্দিরের মালিকানা ক্যাম্বোডিয়ার বলে রায় দিয়েছিল৷ বিচ্ছিন্ন সংঘর্ষ সত্ত্বেও সেখানে বড় মাপের সংঘাত দেখা যায় নি, যেমনটা সম্প্রতি দেখা যাচ্ছে৷ গত ফেব্রুয়ারি মাসে প্রেয়া বিহার মন্দিরের কাছাকাছি সংঘর্ষে ১১ জন নিহত হয়েছিল৷ তারপর গত মঙ্গলবার পর্যন্ত দুই দেশের সেনাবাহিনী সীমান্তে যৌথ টহলদারি চালিয়ে যাচ্ছিল৷ কিন্তু আবার নতুন করে সংঘর্ষ শুরু হয়েছে৷

এর মধ্যে সংকটের শান্তিপূর্ণ সমাধানের লক্ষ্যে দুই দেশের প্রতিরক্ষা মন্ত্রীদের আলোচনা আচমকা বাতিল হয়ে গেছে৷ পরিকল্পনা অনুযায়ী থাইল্যান্ডের প্রতিরক্ষামন্ত্রী প্রাউয়িত ওংসুয়ন ক্যাম্বোডিয়ার রাজধানী নম পেন'এ গিয়ে সেদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তেয়া বান'এর সঙ্গে বৈঠকে বসবেন, এমন কথা ছিল৷ কিন্তু ওংসুয়ন তার বদলে ‘পূর্ব পরিকল্পিত' আলোচনার জন্য চীনের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন৷ থাই প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র বলেছেন, ‘‘আমরা আলোচনার প্রস্তাবকে স্বাগত জানাই, তবে তার আগে ক্যাম্বোডিয়ার সেনাবাহিনীকে গোলাগুলি চালানো বন্ধ করতে হবে৷'' দুই দেশের মধ্যে সমাধানসূত্র নিয়েও মতবিরোধ রয়েছে৷ থাইল্যান্ড দ্বিপাক্ষিক পর্যায়ে সীমান্ত সংকটের সমাধান চাইলেও ক্যাম্বোডিয়া আন্তর্জাতিক স্তরে মধ্যস্থতা চায়৷ বুধবার ক্যাম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রী হুন সেন অবিলম্বে যুদ্ধবিরতির আবেদন জানিয়েছেন এবং থাই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনার প্রস্তাব রেখেছেন৷

এই সংকটের সমাধানে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার জোট ‘আসিয়ান'ও তৎপরতা দেখাচ্ছে৷ ‘আসিয়ান'এর পররাষ্ট্র মন্ত্রীরা গত ফেব্রুয়ারি মাসে জাকার্তায় থাই-ক্যাম্বোডিয়া সীমান্তের বিতর্কিত এলাকায় নিরপেক্ষ পর্যবেক্ষক মোতায়েন করার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, ক্যাম্বোডিয়া তা কার্যকর করতে চাইছে৷ কিন্তু থাই সেনাবাহিনীর বিরোধিতার কারণে এই বোঝাপড়া আপাতত থমকে রয়েছে৷ থাই পররাষ্ট্র মন্ত্রী জাকার্তায় ‘আসিয়ান'এর বর্তমান সভাপতি দেশ ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মার্তি নাতালেগাওয়া'র সঙ্গে আলোচনায় বসবেন বলে শোনা যাচ্ছে৷

সীমান্ত এলাকায় বিতর্কিত ভূখণ্ডকে কেন্দ্র করে এই সংঘর্ষের মূল কারণ সম্পর্কে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা নানা রকম তত্ত্ব খাড়া করছেন৷ অনেকেই মনে করছেন, এর পেছনে দুই দেশের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি কাজ করছে৷ বিশেষ করে দুই দেশের সরকারই নিজেদের দেশের উগ্র জাতীয়তাবাদীদের তুষ্ট করতে চাইছে৷ থাইল্যান্ডে আগামী জুলাই মাসে সাধারণ নির্বাচন৷ সেদেশের সামরিক বাহিনী রাজনীতির উপর নিজেদের প্রভাব বজায় রাখতে সচেষ্ট রয়েছে৷ বিরোধীদের শক্তি সীমিত রাখতে সেনাবাহিনী রক্ষণশীল শাসক শ্রেণিকে সন্তুষ্ট রাখার চেষ্টা করছে৷

প্রতিবেদন: সঞ্জীব বর্মন

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক