1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ত্রাণ পাঠাতে হিমশিম খাচ্ছে কর্মীরা

পাকিস্তানের বন্যার্ত মানুষের কাছে ত্রাণ পাঠাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে ত্রাণকর্মীদের৷ সেখানে চলছে বৃষ্টি৷ ফলে আশঙ্কা নতুন নতুন এলাকা পানিবন্দি হবার৷ আর মানুষের চরম দুর্ভোগ, সে তো আর বলার অপেক্ষা রাখে না৷

default

খাবারের আশায় বন্যার্ত শিশুরা

মানুষের হাহাকারের যেন শেষ নেই৷ বন্ধুরাষ্ট্র এবং সাহায্য সংস্থাগুলোর কাছ থেকে পর্যাপ্ত ত্রাণ পাওয়া গেলেও তা পৌঁছানো যাচ্ছে না বন্যার্ত মানুষের কাছে৷ কী কারণ? উত্তরে দাতা সংস্থাগুলো জানাচ্ছে, পানি বন্দি মানুষের কাছে ত্রাণ পৌঁছানোর জন্য এখানে যানবাহনের খুব অভাব, বিশেষ করে হেলিকপ্টারের৷

এ অবস্থায় জাতিসংঘ সদস্য দেশগুলোর প্রতি যত দ্রুত সম্ভব হেলিকপ্টার পাঠানোর বিশেষ অনুরোধ জানিয়েছে৷ সেই সঙ্গে দক্ষিণে আট লাখ বিচ্ছিন্ন মানুষের কাছে পৌঁছানোটাই একটি বড় ধরণের চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ এদের কাছে দ্রুত খাদ্য সামগ্রী এবং সাহায্য উপকরণ পাঠানো প্রয়োজন, কারণ তারা খাদ্য আর

Pakistan / Flutkatastrophe / Hochwasser / Überschwemmungen

পানীয়হীন অবস্থায় রয়েছে অনেক দিন৷ আর এ কাজ কেবল মাত্র হেলিকপ্টার দিয়েই সম্ভব, সেকথাও বলে দিয়েছেন মাঠ পর্যায়ে কাজ করছে জাতিসংঘের এমন কর্মকর্তারা ৷

অবশ্য জানা যাচ্ছে, শুধু যানবাহনের অভাব এবং বন্যার পানি বেড়ে যাওয়াটাই যে ত্রাণ বিতরণে সমস্যার সৃষ্টি করেছে, তাই নয়, এর সঙ্গে যোগ হয়েছে বৃষ্টি৷ ঘন বৃষ্টির কারণে পানি উপচে যাচ্ছে বিভিন্ন স্থানে৷ ভাসিয়ে নিয়ে গেছে সেতু, কার্লভার্ট৷ ফলে বন্যার পানির দখলে গেছে আরও নতুন নতুন এলাকা৷ আগামী কয়েকদিনে এই অবস্থা আরও ভয়াবহ হয়ে উঠতে পারে বলে আশঙ্কা৷ বন্যায় সবচেয়ে বেশি নাকাল হয়েছে যে প্রদেশ, অর্থাৎ সেই সিন্ধু প্রদেশের কৃষি মন্ত্রী জাম সাইফুল্লাহ ধারিজো বলেছেন, ‘‘আমরা এখন যুদ্ধাবস্থায় আছি৷ ঠিক যুদ্ধকালীন যা যা করা প্রয়োজন, ঠিক সেভাবেই সব করা হচ্ছে৷''

স্মরণকালের ভয়াবহতম এই বন্যায় প্রায় দুই কোটি মানুষ সরাসরি ক্ষতির মুখোমুখি৷ এখনো ৫০ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত৷ এই অবস্থায় জাতিসংঘের আহ্বান যতটা দ্রুত সম্ভব, সেখানে আরও ত্রাণ এবং ত্রাণ বণ্টনের জন্য যান পাঠানোর৷ ইসলামাবাদের হিসাবে এই বন্যায় এ পর্যন্ত ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ হবে অন্তত ৪৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার৷ তাছাড়া বন্যায় পানিবাহিত রোগ ছড়িয়ে পড়ছে বলেও খবর৷ তাই এই পরিস্থিতি কী করে মোকাবিলা করা যায়, বিশেষ করে বন্যা-পরবর্তী রোগ বালাই মোকাবিলাটাই চ্যালেঞ্জ হিসাবে মনে করছেন প্রধানমন্ত্রী ইউসুফ রাজা গিলানি৷ আর তাই তিনি আলোচনা করেছেন দেশ ও বিদেশের চিকিৎসক এবং সাহায্য সংগঠনগুলোর কর্মকর্তাদের সঙ্গে পরবর্তী করণীয় নিয়ে৷

প্রতিবেদন: সাগর সরওয়ার

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন