1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

তেজস্ক্রিয়তা বিকিরণ বন্ধে জাপানের মহাপরিকল্পনা

এক দিন দুই দিন নয়, জাপানের ফুকুশিমা পরমাণু কেন্দ্র থেকে তেজস্ক্রিয়তা বিকিরণ বন্ধে আরও ছয় থেকে নয় মাস সময়ের প্রয়োজন৷ তবে কর্তৃপক্ষের আশা, আগামী তিন মাস পর থেকেই কমতে শুরু করবে তেজস্ক্রিয়তা বিকিরণ৷

default

পরিবেশে তেজস্ক্রিয়তার পরীক্ষা করছেন এক গবেষক

সুনামির আঘাতে বিস্ফোরিত ফুকুশিমা দায়াচি পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে ক্ষতিকারক মাত্রায় তেজস্ক্রিয়তা ছড়িয়ে পড়ছে সর্বত্র৷ বিষাক্ত হয়ে উঠছে বাতাস, বিষাক্ত হচ্ছে পানি, মাটি৷ আর এই বিকিরণ বন্ধ করতে এবং তা যেন আর ক্ষতি করতে না পারে, সে জন্য চলছে প্রাণপণ চেষ্টা৷ পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির পরিচালক কোম্পানি টোকিও ইলেক্টিক পাওয়ার কোম্পানি বা টেপকোর প্রকৌশলী এবং বিজ্ঞানীরা এই বিকিরণ বন্ধ করতে একটি উচ্চাভিলাষী পরিকল্পনা আজ চূড়ান্ত করেছেন৷

পরিকল্পনা অনুসারে এই বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির ‘কোল্ড শাটডাউন' বা তেজস্ক্রিয়তা একেবারে বন্ধ করে দিতে সময়ের প্রয়োজন হবে ছয় থেকে আট মাস৷ সাধারণত এই ধরণের দুর্ঘটনার পর পরমাণু রডগুলোকে ঠান্ডা রাখতে উপরে বিশেষ পাথুরে মাটি এবং সিমেন্ট দিয়ে আস্তর দিয়ে দেয়া হয়৷ এক কথায় ঐ রডগুলোকে কবর দেয়া হয়৷ আর পরমাণু রডগুলোকে ঠান্ডা রাখতে ঐ মাটির আস্তরের উপর ২৪ ঘন্টা পানি ফেলা হয়৷ এই সূত্র অনুসারেই কাজটি করতে যাচ্ছে টেপকো৷ এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নে বেশ ঝুঁকি রয়েছে৷ সেই ঝুকি কতটা কমিয়ে কাজ করা যায়, পরিকল্পনাতে সেই কথাও বলা হয়েছে৷

এদিকে, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন প্রলয়ংকরী ভূমিকম্প ও সুনামির পর যুক্তরাষ্ট্রের ঘনিষ্ঠ মিত্রের প্রতি সংহতি জানানোর লক্ষ্যে এখন রয়েছেন জাপানে৷ হিলারি তাঁর সংক্ষিপ্ত সফরকালে প্রধানমন্ত্রী নাওতো কান ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী তাকিয়েকি মাতসুমোতোর সাথে বৈঠক করবেন বলে জানা যাচ্ছে৷ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর জাপান তার সবচেয়ে কঠিন সংকট মোকাবিলা করার প্রেক্ষাপটে হিলারি এ সফর করছেন বলে জানাচ্ছে এএফপি৷

২৫ বছরের মধ্যে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় এবং সবচেয়ে ক্ষতিকর জাপানের এই পরমাণু দুর্ঘটনা, শক্তিশালী ভূমিকম্প ও সুনামি আঘাত হানার পর যুক্তরাষ্ট্র ২০ হাজার সৈন্য, জাহাজ এবং বিমান তল্লাশি, উদ্ধার ও ত্রাণ তৎপরতা চালাতে সহায়তা করছে৷ গত মাসে জাপানে আঘাত হানা এই ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল রিখটার স্কেলে নয়৷

প্রতিবেদন: সাগর সরওয়ার

সম্পাদনা: রিয়াজুল ইসলাম

নির্বাচিত প্রতিবেদন