1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

তুর্কি পার্লামেন্টে প্রথমবারের মতো হিজাবে নারী

বৃহস্পতিবার তুরস্কের ইসলামপন্থি সরকারি দলের চারজন পার্লামেন্ট সদস্য হিজাব পরে পার্লামেন্টে উপস্থিত হয়েছিলেন৷ কয়েক সপ্তাহ আগে মাথায় স্কার্ফ পরার উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার পর, তাঁরাই প্রথম হিজাব পরে সেখানে গেলেন৷

default

ফাইল ফটো

তুরস্কে দীর্ঘ সময় ধরে সরকারি প্রতিষ্ঠানে নারীদের হিজাব পরার উপর নিষেধাজ্ঞা ছিল৷ কেননা, আগের সব সরকারই ধর্ম নিরপেক্ষতার কথা বলে নারীদের হিজাব করা বা পরার অনুমোদন করেনি৷

কিন্তু গত ৩০ সেপ্টেম্বর এই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী রেচেপ তাইয়েপ এর্দোয়ান৷ গণতান্ত্রিক সংস্কার আর নারী স্বাধীনতার অংশ হিসেবে গত এই ঘোষণা দেন তিনি৷

এর্দোয়ানের দল জানায়, নাগরিক অধিকারের অংশ হিসেবেই এই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হয়েছে, কেননা এর আগে মুসলিম নারীরা নিজেদের আস্থা ও বিশ্বাস জনসমক্ষে প্রকাশ করতে দ্বিধা বোধ করত৷ তবে এখনও বিচারপতি, আইনজীবী, পুলিশ ও সেনাবাহিনীতে এই নিষেধাজ্ঞা বহাল আছে৷

বৃহস্পতিবার চার নারী সংসদ সদস্য যখন হিজার পরে পার্লামেন্ট কক্ষে প্রবেশ করেন, তখন প্রধানমন্ত্রী রেচেপ তাইয়েপ এর্দোয়ানের ‘জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টি'-র অন্য সদস্যরা তাঁদের উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান৷ নারীদের একজন নুরকান ডালবুডাক রয়টার্সকে জানিয়েছেন, একটি নতুন যুগের শুরু হলো, যার নেতুত্ব দিলেন তাঁরা৷ এমনকি এ ঘটনার সাক্ষীও থাকলেন৷

অপর এক নারী সদস্য গোনুল বেকিন সাকুলুবে বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানান যে, তাঁরা হজ করে এসে স্কার্ফ পরা শুরু করেছেন৷ আর এখন থেকে কখনোই এটা খুলে ফেলার প্রয়োজন পরবে না বলে মনে করেন তিনি৷ তাঁর বিশ্বাস, সবাই তাঁর এই পদক্ষেপের প্রতি সম্মান করবেন৷

উল্লেখ্য এর আগে, বিরোধী দল ‘রিপাবলিকান পিপলস পার্টি'-র সদস্যরা হিজাবের বিরুদ্ধে অবস্থান নিলেও সেদিন তাঁরা কোনো মন্তব্য করেননি৷

১৯৯৯ সালে তুর্কি-মার্কিন সংসদ সদস্য মার্ভে কাভাচি শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে হিজাব পরে এলে তাঁকে তাতে অংশ নিতে দেয়া হয়নি৷ তাঁকে পার্লামেন্ট থেকে কেবল বেরই করে দেয়া হয়নি, তুরস্কের নাগরিকত্বও বাতিল করে দেয়া হয়েছিল৷

এপিবি/ডিজি (এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন