1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি-তুরস্ক

তুরস্কে মৃত্যুদণ্ড ফিরিয়ে আনার গণভোটে জার্মানির ‘না’

তুরস্কে মৃত্যুদণ্ড ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে সম্ভাব্য গণভোটে জার্মানিতে বসবাসরত তুর্কিরা জার্মানিতে অবস্থানকালে ভোট দিতে পারবেন না বলে জানিয়েছে জার্মান সরকার৷ জার্মান আইনের সঙ্গে সাংঘর্ষিক হওয়ায় এই অবস্থান নিয়েছে জার্মানি৷

তুরস্কের প্রেসিডেন্টের ক্ষমতা বৃদ্ধি সংক্রান্ত গণভোটে জার্মানিতে বসেই অংশ গ্রহণের সুযোগ পেয়েছিলেন জার্মানিতে বসবাসরত তুর্কিরা৷ কিন্তু মৃত্যুদণ্ড ফিরিয়ে আনা সংক্রান্ত এক সম্ভাব্য গণভোটে ভোট দেয়ার সুযোগ দেয়া হবে না বলে আগেভাগেই জানিয়ে দিয়েছে জার্মান সরকার৷ আঙ্কারা অবশ্য এখনো এমন কোনো গণভোট আয়োজনের প্রস্তাব জার্মানিকে দেয়নি৷

জার্মান সরকারের মুখপাত্র স্টেফেন সাইবার্ট শুক্রবার বার্লিনে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন যে, তুরস্ক মৃত্যুদণ্ড সংক্রান্ত কোনো গণভোটের আয়োজন করলে তাতে জার্মানিতে বসে ভোট দেয়ার সুযোগ দেয়া হবে না, কেননা, বিষয়টি জার্মানিতে রাজনৈতিকভাবে ধারণাতীত এবং জার্মানির সাধারণ আইন এবং ইউরোপের মূল্যবোধের বিপরীত৷

প্রসঙ্গত, গত মাসে গণভোটে অল্প ব্যবধানে জয় পাওয়ার পর তুরস্কে মৃত্যুদণ্ড ফিরিয়ে আনতে আরেকটি গণভোট আয়োজনের আভাস দেন প্রেসিডেন্ট রেচেপ তাইয়েপ এর্দোয়ান৷ তুরস্কের আইন অনুযায়ী, বিদেশে বসবাসরত তুর্কিরা তুরস্কের যে কোনো নির্বাচনে ভোট দিতে পারেন৷ তবে জার্মান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, জার্মানিতে অন্য কোনো দেশ এ রকম কোনো ভোটের আয়োজন করতে চাইলে আগে জার্মান সরকারের অনুমতি নিতে হবে৷

সাইবার্ট এই বিষয়ে কথা বলার আগেই অবশ্য সেটির বিরোধিতা করেন আসন্ন নির্বাচনে ম্যার্কেলের প্রতিদ্বন্দ্বী মার্টিন শ্যুলৎস৷ ডেয়ার স্পিগেল পত্রিকাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, আমরা এমন কিছুর আয়োজন করতে দিতে পারিনা যা আমাদের মূল্যবোধ এবং সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক৷

উল্লেখ্য, ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য হওয়ার আশায় ২০০৪ সালে মৃত্যুদণ্ড বাতিল করে তুরস্ক৷ ইউরোপীয় ইউনিয়ন শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ডের অনুমোদন দেয় না৷ ফলে তুরস্ক যদি মৃত্যুদণ্ড ফিরিয়ে আনে, তাহলে সে দেশের ইউরোপীয় ইউনিয়নে প্রবেশের সম্ভাবনা শেষ হয়ে যাবে৷

এআই/এসিবি (এপি, ডিপিএ, ইপিডি, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়