1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

তুরস্ক

তুরস্কে জার্মান সাংবাদিক গ্রেপ্তার

সন্ত্রাসবাদের অভিযোগে জার্মান সাংবাদিক মেজালে টোলুকে তুরস্কে আটক করা হয়েছে বলে জার্মান গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে৷ কুর্দিপন্থি গণমাধ্যমে তাঁর কাজ প্রকাশিত হত বলে জানা গেছে৷

জার্মানির সমাজতান্ত্রিক ভাবধারার দৈনিক ‘নয়েস ডয়েচলান্ড'-এ প্রথম টোলুর আটকের খবর প্রকাশিত হয়৷ এরপর জার্মানির সরকারি প্রচারমাধ্যম এআরডি এবং তুরস্কের সংবাদপত্র ‘ডিকেন'-ও এই খবর প্রচারিত হয়েছে৷

৩৩ বছর বয়সি টোলুকে ৩০ এপ্রিল রাতে তাঁর ইস্তাম্বুলের বাসা থেকে আটক করা হয়৷ এরপর ৬ মে তাঁকে আনুষ্ঠানিকভাবে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানিয়েছে জার্মান বার্তা সংস্থা ডিপিএ৷

জার্মানির দৈনিক সংবাদপত্র ‘টাৎস' তাদের তুরস্কে থাকা সূত্রের বরাত দিয়ে জানিয়েছে, সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের বিরুদ্ধে অভিযানে অংশ হিসেবে টোলুকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷

টোলুর বিরুদ্ধে ‘সন্ত্রাসী এক সংস্থার হয়ে প্রোপাগান্ডা' চালানো ও ‘একটি সন্ত্রাসী সংস্থার সদস্য' হওয়ার অভিযোগ আনা হতে পারে বলে প্রতিবেদনগুলোতে বলা হয়েছে৷

Screenshot Twitteraccount der Journalistin Mesale Tolu (twitter.com/Mesale_Tolu)

মেজালে টোলুকের টুইটার একাউন্ট

টোলুর কাজ

গ্রেপ্তারের আগে টোলুর কাজ প্রধানত সমাজতান্ত্রিক ভাবধারা ও কুর্দিপন্থি গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে৷ যেমন বেসরকারি ইটিএইচএ নিউজ এজেন্সি ও নেদারল্যান্ডস ভিত্তিক এএনএফ৷ তুর্কি সরকারের মতে, এএনএফ নিষিদ্ধ ঘোষিত কুর্দিস্থান ওয়ার্কার্স পার্টি বা পিকেকে-র সঙ্গে জড়িত৷ ইটিএইচএ জানিয়েছে, টোলু তাদের হয়ে অনুবাদকের কাজ করতেন৷ এছাড়া ‘ফ্রি রেডিও'-তেও টোলুর কাজ প্রচারিত হয়েছে৷ তুর্কি সরকার সম্প্রতি এটি বন্ধ করে দিয়েছে৷ উল্লেখ্য, গত বছরের ব্যর্থ অভ্যুত্থানের পর তুর্কি সরকার দেশটির গণমাধ্যমের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে৷ এর আওতায় দেড়শ'র বেশি সাংবাদিককে গ্রেপ্তার করা হয়৷

জার্মানির দক্ষিণাঞ্চলে জন্মগ্রহণ ও বেড়ে ওঠা টোলু বছর দশেক আগে জার্মানির নাগরিকত্ব গ্রহণ করেন৷ সেজন্য তাঁকে তুর্কি নাগরিকত্ব বাতিল করতে হয়েছে৷ বছর দুয়েক থেকে তিনি তাঁর স্বামী ও দুই বছরের সন্তান নিয়ে ইস্তাম্বুলে বাস করছিলেন৷ টোলুর স্বামী সুয়াত চরলুকেও একই অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ ফলে তাঁদের সন্তান এখন আত্মীয়স্বজনের কাছে আছেন৷ টোলুর স্বামী তুর্কি নাগরিক৷

প্রমাণ হিসেবে শেষকৃত্য অংশগ্রহণের ঘটনা?

টোলুর একজন আইনজীবী ‘টাৎস'-কে জানিয়েছেন, ২০১৫ সালে পুলিশের হাতে নিহত হওয়া নিষিদ্ধ ঘোষিত এমএলকেপি-র দুই সন্ত্রাসীর শেষকৃত্যে টোলুর অংশ নেয়ার ঘটনা তাঁর বিরুদ্ধে মামলার অন্যতম প্রমাণ হিসেবে উপস্থাপন করা হতে পারে৷

এর আগে জার্মান-তুর্কি সাংবাদিক ডেনিস ইউচেলকে গত ফেব্রুয়ারিতে গ্রেপ্তার করে তুর্কি কর্তৃপক্ষ৷ তিনি এখনও গ্রেপ্তার আছেন৷

তুরস্কের ইউরোপীয় বিষয়ক মন্ত্রী ওমর চেলিক বলেছেন, ‘‘তুরস্ক বিদেশি সাংবাদিকদের জন্য নিরাপদ দেশ, যদি তাঁরা সন্ত্রাসী কার্যকলাপের সঙ্গে যুক্ত না হন৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়