1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

তুরস্ক

তুরস্কে জরুরি অবস্থার মেয়াদ বাড়ছে

‘‘গণতন্ত্র, আইনের শাসন নাগরিকদের অধিকার ও স্বাধীনতা রক্ষা’’-র উদ্দেশ্যের কথা বলে জরুরি অবস্থার মেয়াদ বাড়াতে চলেছে তুরস্ক৷ বুধবার সে দেশের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা সংস্থা এমজিকে চলমান জরুরি অবস্থার মেয়াদ বাড়ানোর আহ্বান জানায়৷

রাজধানী আংকারায় প্রেসিডেন্ট রেচেপ তাইয়েপ এর্দোয়ানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক সভায় জরুরি অবস্থার মেয়াদ আরো দীর্ঘ করার প্রস্তাবটি রাখে এমজিকে৷ সভা শেষে দেয়া এক বিবৃতিতে এমজিকে-র প্রধান বলেন, ‘‘গণতন্ত্র, আইনের শাসন এবং নাগরিকদের অধিকার ও স্বাধীনতা রক্ষার বিষয়টি নিশ্চিত  করার জন্য জরুরি অবস্থার মেয়াদ বাড়ানো উচিত৷’’

গত ১৫ই জুলাই কথিত ব্যর্থ অভ্যুত্থানের পর তুরস্কে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়৷ এর্দোয়ান সরকার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে কার্যত নিশ্চিহ্ন করার জন্যই এ পদক্ষেপ নিয়েছে বলে সমালোচনা রয়েছে৷ প্রশ্নবিদ্ধ এবং ব্যর্থ ওই অভ্যুত্থান প্রয়াসের পর থেকে সারা দেশে ব্যাপক ধরপাকড় শুরু করা হয়৷ ধরপাকড় এখনো চলছে৷

বুধবার এনটিভিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তুরস্কের আইনমন্ত্রী জানান, গত দু’মাসে মোট ৭০ হাজার মানুষের বিরুদ্ধে অভ্যুত্থান প্রয়াসে জড়িত থাকার অভিযোগে তদন্ত শুরু করা হয়েছে৷ তদন্তাধীন ব্যক্তিদের মধ্যে কমপক্ষে ৩২ হাজারই এখন কারাবন্দি৷ তুর্কি এবং আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থাগুলোর দেয়া তথ্য অনুযায়ী কারাবন্দির সংখ্যা অনেক বেশি৷

এদিকে তুরস্কের সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, সারা দেশে ইতিমধ্যে ১৭৪টি নতুন কারাগার তৈরির কাজ শুরু করেছে এর্দোয়ান সরকার৷ পাঁচ বছরের মধ্যে এ নির্মাণকাজ শেষ হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে৷ 

বিরোধীদের প্রতিবাদ

জরুরি অবস্থার মেয়াদ বৃদ্ধির পরিকল্পনায় ইতিমধ্যে উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন রিপাবলিকান পিপল’স পার্টি (সিএইচপি)-র নেতা কেমাল কিলিচদারোগ্লু৷ তুরস্কের এক টেলিভিশন চ্যানেলকে তিনি বলেন, ‘‘আমি অবশ্যই হয়রানিমূলক কার্যকলাপের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবো৷’’

এসিবি/ডিজি (রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়