1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

তুরস্কের সঙ্গে বিরোধে ডয়চে ভেলের পাশে জার্মান সরকার

ডয়চে ভেলের নেয়া তুরস্কের যুব ও ক্রীড়ামন্ত্রী আকিফ চায়াতাই কেলেচের সাক্ষাৎকারের ভিডিও বাজেয়াপ্ত করার সমালোচনা করেছেন জার্মান কূটনীতিকরা৷ গণমাধ্যম এবং সংস্কৃতি বিষয়ক কমিশনার মনিকা গ্যুর্টনার এ বিষয়ে কড়া মন্তব্য করেছেন৷

ডয়চে ভেলের নেয়া ভিডিও সাক্ষাৎকার বাজেয়াপ্ত করায় তুরস্কের যুব ও ক্রীড়ামন্ত্রণালয়ের কড়া সমালোচনা করেছেন মনিক গ্যুর্টনার৷ বুধবার জার্মানির বুন্ডেসটাগে এ বিষয়ে তিনি বক্তব্য রাখলে তা ব্যাপক প্রশংসা কুড়ায়৷ গ্যুর্টনার বলেন, ‘‘একজন মন্ত্রীর টেলিভিশন সাক্ষাৎকার নেয়ার পর সেই ফুটেজ জোর করে নিয়ে যাওয়া, তুরস্কে যা গতকাল (সোমবার) ঘটেছে, তা কোনোভাবেই আমাদের বাকস্বাধীনতার সজ্ঞার মধ্যে পড়ে না৷ এটা অত্যন্ত উদ্বেগজনক৷'' সংসদে বাজেট বিষয়ক অধিবেশন চলাকালে এ কথা বলেন তিনি৷

ডয়চে ভেলের টক শো ‘কনফ্লিক্ট জোন'-এর জন্য তুরস্কের যুব ও ক্রীড়ামন্ত্রী আকিফ চায়াতাই কেলেচের সাক্ষাৎকার নিচ্ছিলেন মিশায়েল ফ্রিডমান৷ আঙ্কারায় সাক্ষাৎকারের এক পর্যায়ে তুরস্কের সাম্প্রতিক ব্যর্থ সেনা অভ্যুত্থান এবং পরবর্তী ঘটনাবলীর প্রসঙ্গ উঠে আসে৷ সাক্ষাৎকার শেষে কেলেচের মুখপাত্র ভিডিও সাক্ষাৎকারটি প্রচারে ডয়চে ভেলেকে নিষেধ করে৷ কিন্তু তাতে রাজি না হওয়ায় মন্ত্রণালয়ের কর্মীরা ফুটেজ বাজেয়াপ্ত করে৷

ডয়চে ভেলে এই ঘটনা জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়কে জানালে তুরস্কে নিযুক্ত জার্মান রাষ্ট্রদূত মার্টন এর্ডমান তুরস্কের যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করেন৷ আলোচনায় তিনি জার্মানি যে বাকস্বাধীনতাকে বিশেষ গুরুত্ব দেয় সে কথা জানিয়েছেন বলে ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মার্টিন শ্যেফার৷

Deutschland Kulturstaatsministerin Monika Grütters und DW Intendant Peter Limburg

গণমাধ্যম এবং সংস্কৃতি বিষয়ক কমিশনার মনিকা গ্যুর্টনারের সাথে ডয়চে ভেলের মহাপরিচালক পেটার লিমবুর্গ

এটা ছিল ‘‘একটি প্রগাঢ় কিন্তু ভালো এবং গঠনমূলক আলোচনা, যেখানে উভয়পক্ষ আশা প্রকাশ করেছে যে, মন্ত্রণালয়ের ঘটনায় তুরস্ক এবং জার্মানির সম্পর্ক আরো খারাপের দিকে যাবে না'', বলেন শ্যেফার৷ প্রসঙ্গত, সম্প্রতি জার্মানির বুন্ডেসটাগে আর্মেনীয়দের হত্যালীলাকে গণহত্যা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ায় এবং তুরস্কে ব্যর্থ সেনা অভ্যুত্থান পরবর্তী রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে জার্মানির সঙ্গে সেদেশের সম্পর্কে ফাটল ধরে৷

শ্যেফার জানিয়েছেন, তুরস্কের কর্মকর্তারা ফুটেজ নিয়ে যাওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেনি, তবে তারা সেটিকে ‘বাজেয়াপ্ত' করা মনে করছে না৷ তিনি জানান, শর্তহীনভাবে ফুটেজ ফেরত দেয়ার ডয়চে ভেলের দাবিকে সমর্থন দিয়েছে জার্মানির কেন্দ্রীয় সরকার, কেননা, ‘‘আমাদের কাছে বাকস্বাধীনতা কোনোভাবেই আপোষযোগ্য নয়৷''

আপনার কি কিছু বলার আছে? লিখুন নীচে, মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়