1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

তুরস্ক

তুরস্কের সংসদে তুমুল মারামারি, দু'জন হাসপাতালে

এক সপ্তাহের মধ্যে আবার উত্তেজনা চরমে উঠল তুরস্কের সংসদে৷ সরকার এবং বিরোধী দলের সংসদ সদস্যদের তর্কাতর্কির এক পর্যায়ে আবার শুরু হলো মারামারি৷ মারামারিতে আহত হয়ে অন্তত দু'জন সংসদ সদস্য এখন হাসপাতালে৷

তুরস্কের সংসদে থেকে থেকেই উত্তেজনা চরমে উঠছে৷ প্রেসিডেন্টের ক্ষমতা আরো বাড়ানোর জন্য প্রস্তাবিত বিলটি সংসদে উত্থাপনের পর থেকেই এ অবস্থার শুরু৷ প্রস্তাবিত বিলে প্রেসিডেন্ট রেচেপ তাইয়েপ এর্দোয়ানকে যে কোনো সময় মন্ত্রীদের নিয়োগ এবং বরখাস্ত করাসহ বেশ কিছু ক্ষমতা দেয়ার কথা বলা হয়েছে৷ বিলটি সংসদে পাশ হলেই অবশ্য এর্দোয়ানের ক্ষমতা বাড়বে না৷ পাশ হওয়ার পর এ নিয়ে গণভোট হবে৷

ভিডিও দেখুন 00:24

আর সেখানে ক্ষমতাসীন দল জাস্টিস ফর ডেভেলপমেন্ট পার্টি (একেপি)-র প্রস্তাব করা এ বিল যে বিপুল সমর্থন পাবে তা প্রায় নিশ্চিত৷ বিরোধীরা বলছেন, এ কারণেই এমন একটি বিষয় নিয়ে গণভোট চাচ্ছে একেপি৷ তাঁরা মনে করেন, এর্দোয়ানের ক্ষমতা আরো বাড়ালে দেশে গণতন্ত্র আরো বিপন্ন হবে, দেশে তখন এক ব্যক্তির শাসন সাংবিধানিকভাবেও প্রতিষ্ঠিত হবে৷

বৃহস্পতিবার বিলটি নিয়ে আলোচনা শুরুর পরই বিরোধী দলের সদস্যরা প্রতিবাদ শুরু করেন৷ নির্দলীয় সংসদ সদস্য আয়লিন নাজলিয়াকা মাইক্রোফোনের সঙ্গে শিকল দিয়ে নিজের হাত বাঁধতে বাঁধতে বলে ওঠেন, ‘‘এক ব্যক্তির শাসনকে ‘না' বলতে আমি আমার হাত শিকল দিয়ে বাঁধছি৷''

সঙ্গে সঙ্গেই সংসদে শুরু হয়ে যায় হট্টগোল৷ পরিস্থিতি শান্ত করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন ডেপুটি স্পিকার৷ একেপি-র কয়েকজন সাংসদ ছুটে গিয়ে আয়লিনের হাত মাইক্রোফোন থেকে খোলার জন্য টানাটানি শুরু করলে পরিস্থিতি একেবারেই নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়৷ বিশেষ করে সরকারি এবং বিরোধী দলের নারী সাংসদদের মধ্যে শুরু হয়ে যায় মারামারি৷ মারামারিতে আহত হয়ে কুর্দিশ পিপল'স ডেমোক্রেটিক পার্টি (এইচডিপি)-র পারভিন বুলদান এবং সরকারি দলের গোকেন এন্ক হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন৷

তুরস্কের সংসদে গত কিছুদিনে এই নিয়ে তৃতীয়বার মারামারি হলো৷

প্রেসিডেন্টের ক্ষমতা বাড়ানোর এই বিলটির ওপর সংসদে এ সপ্তাহেই শেষবারের মতো ভোটাভুটি হওয়ার কথা৷ ভোটে বিলটি অনুমোদন পেলে গণভোটের দিন স্থির করা হবে৷

এসিবি/ডিজি (এএফপি, এপি)

আমাদের দেশের সংসদেও এমন মারামারির ঘটনা কি কখনও আপনি প্রত্যক্ষ করেছেন? জানান আমাদের, লিখুন নীচের ঘরে৷

 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়