1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

পাঠক ভাবনা

‘তুমিও একটি মিষ্টি বচ্চা, অন্যান্য শিশুদের মতোই'

বাংলাদেশের চার বছর বয়সি একটি শিশু রহস্যময় জটিল রোগের কারণে দেখতে বুড়োদের মতো হয়ে গেছে৷ এ তথ্যটি অনেক পাঠকের মনকেই প্রচণ্ডভাবে নাড়া দিয়েছে, যা তাঁরা জানিয়েছেন ডয়চে ভেলের ফেসবুক পাতায়৷

বাংলাদেশের চার বছর বয়সি একটি শিশু রহস্যময় জটিল রোগের কারণে দেখতে বুড়োদের মতো হয়ে গেছে৷ এ তথ্যটি অনেক পাঠকের মনকেই প্রচণ্ডভাবে নাড়া দিয়েছে, যা তাঁরা জানিয়েছেন ডয়চে ভেলের ফেসবুক পাতায়৷

ফেসবুকবন্ধু জেরিন সুলতানা সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রাণভরে দোয়া করছেন বায়েজিদকে সুস্থ করে দেওয়ার জন্য৷ ফেসবুকে বন্ধু আবুল কালামও সেই কামনাই করেছেন৷

তবে ডয়চে ভেলে থেকে প্রকাশিত এই প্রতিবেদনটিতে শিশু বায়েজিদকে ‘বৃদ্ধ শিশু' লেখায় দুঃখ পেয়েছেন পাঠক জুয়েল৷ নিজের সে অনুভূতি তিনি প্রকাশ করেছেন এভাবে, ‘‘শিশু আবার বৃদ্ধ হয় কী করে? মাতৃগর্ভাবস্থায় এই শিশু হরমোনজনিত কারণে এ রূপ মুখাকৃতি ধারণ করেছে৷ তাই শিশুটি বুড়ো নয় বরং দেখতে বুড়ো৷ তাই বলা উচিত বৃদ্ধমুখো বা বুড়োমুখো শিশু৷''

বায়েজিদকে নিয়ে পাঠক আতিক আবদুল্লারও মত অনেকটা জুয়েল ইব্রাহিমের মতোই৷

‘‘শিশু বায়েজিদের চিকিৎসা সফল হোক'' – এই কামনা পাঠক রেইনের৷ তিনি বায়েজিদকে লক্ষ্য করে লিখেছেন, ‘‘তুমিও একটি মিষ্টি বচ্চা, অন্যান্য শিশুদের মতোই৷ তাড়াতাড়ি সুস্থ হয়ে ওঠো৷''

তবে সারা বিশ্বের বর্তমান অবস্থা নিয়ে পুরনো বন্ধু সোহেল রানার মনটা মনে হয় খুবই অস্থির৷ তাই হয়ত তিনি শিশু বায়েজিদের অসুখের ব্যাপারেও ভীত৷ তাঁর ধারণা, এগুলো নাকি ‘কেয়ামতের আলামত'৷

অন্যদিকে পাঠক সবুজ মিয়া, আলমগীর হোসেন, জামাল উদ্দিন, রিয়াদ, সানজিদা পারভিন মিতাসহ অনেকেই বায়েজিদ সিকদারের পরিবারের মতো আশা করছেন এবং দোয়া করছেন যাতে চিকিৎসকরা শিশুটিকে অন্য স্বাভাবিক শিশুদের মতো অবস্থায় ফিরিয়ে নিতে পারেন৷

আর বন্ধু নুপুর সাঈদ শিশু বায়েজিদের চিকিৎসার আপডেট জানানোর অনুরোধ করেছেন ডয়চে ভেলেকে৷

সংকলন: নুরুননাহার সাত্তার

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন