1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

তিস্তার পানির জন্য বিএনপির লংমার্চ

তিস্তা নদীর পানির ন্যায্য বণ্টনের দাবিতে বিএনপির দু'দিনের লংমার্চ শুরু হয়েছে৷ প্রথম দিনে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, তিস্তার পানির জন্য সবাই মিলে ভারতকে ঐক্যবদ্ধভাবে চাপ দিতে হবে৷

মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে রাজধানী ঢাকা খেকে নীলফামারীর ডালিয়া ব্যারাজ অভিমুখে শুরু হয় বিএনপির লংমার্চ৷ উত্তরার অদূরে আজমপুর ওভার ব্রিজের কাছে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মধ্য দিয়ে এই লংমার্চ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর৷

বিএনপির নেতা-কর্মীরা প্রায় অর্ধশত গাড়ি নিয়ে লংমার্চে অংশ নেন৷ লংমার্চের উদ্বোধনী বক্তৃতায় মির্জা ফখরুল বলেন, ‘‘এই লংমার্চ সরকারের বিরুদ্ধে নয়৷ এর উদ্দেশ্য মানুষকে সচেতন করা, যেন তাঁরা ভারতের কাছ থেকে পানির ন্যায্য হিস্যার দাবিতে আরও জোরালো অবস্থান নিতে পারে৷'' সরকারের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘‘তিস্তা নদীতে ন্যায্য পানি দিতে বাধ্য করতে আপনারা ভারতকে চাপ দিন৷''

ভারতের কাছ থেকে ন্যায্য পানি পাওয়ার বিষয়ে বাংলাদেশের যৌক্তিক দাবিটি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে অবহিত করাও এই লংমার্চের অন্যতম উদ্দেশ্য বলে জানান মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর৷ বাংলাদেশের মানুষের কথা বিবেচনা করে, ন্যায্য দাবি অনুযায়ী তিস্তা নদীতে পানি দেওয়ার জন্য ভারতের প্রতি আহ্বান জানান তিনি৷

মঙ্গলবার উত্তরা, টঙ্গী, জয়দেবপুর, কোনাবাড়ী, কালিয়াকৈর, সিরাজগঞ্জ, বগুড়া, গাইবান্ধা হয়ে রংপুরে গিয়ে অবস্থান নেবেন লংমার্চে অংশ নেওয়া বিএনপির নেতা-কর্মীরা৷ বুধবার সকাল ৯টায় রংপুরে জনসভা হবে৷ সেখান থেকে লংমার্চ তিস্তা ব্যারাজ অভিমুখে রওনা দেবে৷ আর বেলা ১১টায় নীলফামারীর তিস্তা ব্যারাজের ডালিয়া এলাকায় সমাবেশের মধ্য দিয়ে লংমার্চ শেষ হবে৷

Mirza Fakhrul Islam Alamgir 10.12.2012

‘তিস্তা নদীতে ন্যায্য পানি দিতে বাধ্য করতে ভারতকে চাপ দিন''

মির্জা ফখরুল লংমার্চের পথ সভায় বলেন, ‘‘দেশের ৫৪টি নদী ভারত থেকে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে৷ এগুলো আন্তর্জাতিক নদী৷ তাই নদীর ন্যায্য হিস্যা পাওয়া আমাদের অধিকার৷ এই সরকার আমাদের অধিকার আদায়ে ব্যর্থ হয়েছে৷ যারা অধিকার আদায়ে ব্যর্থ, তাদের উত্‍খাত করতে হবে৷''

শুধু তাই নয়, ভবিষ্যতে নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলন গড়ে তোলার ওপর গুরুত্ব দেন তিনি৷ সেই আন্দোলনে অংশ নিতে এখনই সবাইকে প্রস্তুত হওয়ার আহ্বান জানান বিএনপির এই নেতা৷

লংমাচের্র প্রথম দিনে বিএনপির নেতা-কর্মীদের ব্যাপক উপস্থিতি অবশ্য লক্ষ্য করা যায়নি৷ এর কারণ হিসেবে দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতি এবং প্রচণ্ড দাবদাহের কথা বলেন নেতা-কর্মীরা৷

অন্যদিকে বিএনপির লংমার্চকে তথাকথিত গাড়ি-মার্চ এবং রাজনৈতিক স্টান্টবাজি বলে মন্তব্য করেছে ১৪ দল৷ মঙ্গলবার রাজধানীর ধানমন্ডিতে ১৪ দলের বৈঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে ১৪ দলের মুখপাত্র ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, বিএনপির নেতৃত্বে লংমার্চের নামে তথাকথিত গাড়ি-মার্চ শুরু হয়েছে৷ এটা রাজনৈতিক স্টান্টবাজি ছাড়া কিছু নয়৷

তিনি বলেন, ‘‘৫ই জানুয়ারির নির্বাচনে না এসে বিএনপির নেতা-কর্মীরা হতাশ৷ তাই কর্মীদের চাঙা করতে এই কর্মসূচি (লংমার্চ) নেওয়া হয়েছে৷ পানির সমস্যা তো সবারই সমস্যা৷ তাই এটা ইস্যু হতে পারে না৷ এই সমস্যার সমাধান আমরাও চাই৷''

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘‘ভারতে এখন নির্বাচন হচ্ছে৷ আমরা আশা করছি সেখানে নতুন সরকার ক্ষমতায় এলে তাদের সঙ্গে আলোচনা করে অদূর ভাবিষ্যতে তিস্তা সমস্যার সমাধান হবে৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়