1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

তিন দেশ, শিক্ষাব্যবস্থার তিন কাহিনি

ভারত, গুয়াতেমালা, ঘানা – অনেক অমিল সত্ত্বেও উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে মিলও কম নেই৷ শিক্ষার প্রসারের ক্ষেত্রে কোন দেশ কতটা এগিয়ে? তারই একটি সংক্ষিপ্ত খতিয়ান তুলে ধরা হলো৷

ভারত এখনো পিছিয়ে

শিল্প, বাণিজ্য ও শিক্ষার প্রসার ভারতের মতো উদীয়মান দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের গ্যারেন্টি৷

২০১০ সালটি ছিল শিশুদের জন্য ঐতিহাসিক৷ ভারতের সংসদ আইন প্রণয়ন করে শিক্ষাকে মৌলিক অধিকার হিসেবে সাংবিধানিক স্বীকৃতি দিয়েছে৷ প্রাথমিক স্কুলে ভর্তি হলেও ভারতের প্রায় ৯৬ শতাংশ শিশু ফাইনাল পরীক্ষা পর্যন্ত পৌঁছতে পারে না৷

জনসংখ্যার একটা বড় অংশ দারিদ্র্যসীমার নীচে থাকায় শিশুশ্রম একটা সমস্যা৷ ফলে তাদের অনেকেই স্কুলে যেতে পারে না৷

গুয়াতেমালার সাফল্য

গুয়াতেমালা চিরবসন্তের দেশ হিসেবে পরিচিত৷ সেখানে গত শতাব্দীর নব্বইয়ের দশকের গৃহযুদ্ধে অনেক মানুষ প্রাণ হারিয়েছে৷ গুয়াতেমালার জনসংখ্যার ৪০ শতাংশের বয়স ১৪ বছরের কম৷

বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলে অনেক শিশু স্কুলের গণ্ডি পেরোতে পারে না৷ তবে প্রায় ৮৬ শতাংশ শিশু প্রাথমিক শিক্ষার পর্ব শেষ করে৷

আদর্শ দেশ ঘানা

পশ্চিম আফ্রিকার দেশ ঘানার শিক্ষাব্যবস্থাকে আদর্শ মনে করা হয়৷ ২০০৫ সাল থেকে শিশুরা বিনামূল্যে প্রাথমিক শিক্ষার সুযোগ পাচ্ছে৷ সরকার তাদের খাবার ও পোশাকের জন্যও কিছু অর্থ দেয়৷

২০১৫ সালের মধ্যে আফ্রিকার প্রথম দেশ হিসেবে ঘানা দারিদ্র্যের মাত্রা অর্ধেকে কমিয়ে আনতে পারবে বলে অনুমান করা হচ্ছে৷

ঘানার সরকার প্রায় ১৭,০০০ স্কুল তৈরি করেছে৷ আফ্রিকার অনেক দেশেই এত স্কুল নেই৷ ২০১৫ সালের মধ্যে সব শিশুই যাতে স্কুলের শিক্ষা শেষ করতে পারে, সেটাই হলো লক্ষ্য৷

এসবি/ডিজি

ইন্টারনেট লিংক