1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

‘তিন কোটি শিশু শিক্ষার আলো থেকে বঞ্চিত’

এর অন্যতম কারণ হল বিভিন্ন সংঘর্ষ আর সংঘাতে শিশুদের সেনা হিসেবে নিয়োগ, পালিয়ে যাওয়া এবং মৃত্যু৷ বার্ষিক গ্লোবাল মনিটরিং রিপোর্টে একথা জানিয়েছে ইউনেস্কো৷

default

প্রতীকী ছবি

ইউনেস্কোর প্রতিবেদনটির নাম ‘দ্য হিডেন ক্রাইসিস : আর্মড কনফ্লিক্ট অ্যান্ড এডুকেশন'৷ এই প্রতিবেদনের মধ্যে দিয়েই জাতিসংঘকে সতর্ক করে দিয়েছে ইউনেস্কো৷ মিলেনিয়াম উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার লক্ষ্যগুলোর অন্যতম ‘শিশুদের জন্য শিক্ষা' হয়তো ২০১৫ সালের মধ্যে পূরণ করা সম্ভব হবে না৷ কারণ, বিভিন্ন ধরণের সংঘাতপূর্ণ এলাকায় শিশুদের শিক্ষার কোন ব্যবস্থা একেবারেই নেই৷ সেখানকার শিশুরা খুবই অল্প বয়সে বেঁচে থাকার জন্য হাতে তুলে নেয় অস্ত্র অথবা পরিবারের সঙ্গে দূরে কোথাও পালিয়ে যায়৷ দক্ষিণ এবং পশ্চিম এশিয়াই ‘সবার জন্য শিক্ষা' প্রকল্প নিয়ে এগিয়ে রয়েছে বিশ্বের অন্যান্য প্রান্তরের চেয়ে৷ তবে মূল চ্যালেঞ্জ এখনো রয়ে গেছে৷

ইউনেস্কোর পরিচালক কেভিন ওয়াটকিন্স এশিয়ায় শিক্ষার বিস্তার মিশ্র বলে মন্তব্য করেন৷ এশিয়ার যে সব দেশে সংঘাত চলছে, সেখানে ‘শিশুদের জন্য শিক্ষা'র কোন স্থান নেই৷ এক্ষেত্রে আফগনিস্তান প্রসঙ্গে তিনি বলেন, গত ৩০ বছরেরও বেশি সময় ধরে দেশটিতে শিক্ষাব্যবস্থা স্থবির হয়ে রয়েছে৷ গত পাঁচ বছরে শিশু মৃত্যুর হার বাড়ার কারণে শিশুদের স্কুলে পাঠানো নয় বরং বাঁচিয়ে রাখাই মূল চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখা দিয়েছে৷ এরপর আসছে পাকিস্তান৷ ২০০৯ সালে প্রায় ৬ লক্ষ শিশু স্কুলে আসছে না বলে স্কুল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে৷ এর কারণ হিসেবে সংঘাত এড়াতে অন্যত্র চলে যাওয়া এবং মৃত্যুই মূল কারণ বলে জনানো হয়েছে৷ এশিয়াতে প্রায় ২৭ শতাংশ শিশু স্কুলের পড়াশোনা থেকে পুরোপুরি বঞ্চিত৷

Kinder in Bangladesch FLASH-Galerie

বাংলাদেশে ছেলে-মেয়েরা এক সঙ্গে স্কুলে যাচ্ছে, ব্লগার আলী মাহমেদ এর বিশেষ স্কুল এর ছবি

ভারতে প্রায় ৩০ শতাংশ শিশু বিভিন্ন বাড়িতে কাজ করে৷ এরা কেউই স্কুলে যায় না৷ বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে এই সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে৷

তবে এক্ষেত্রে পাকিস্তান এবং ভারতে পেছনে ফেলে এগিয়ে গেছে বাংলাদেশ৷ সেখানে ছেলে-মেয়েরা এক সঙ্গে স্কুলে যাচ্ছে৷ সমানে সমান৷ গত দশ বছর ধরে তা লক্ষ্য করা গেছে৷ এর অন্যতম কারণ হল বাংলাদেশ কোন ধরণের অভ্যন্তরীণ বা আন্তর্জাতিক সংঘর্ষে জড়িত নয়৷

বিভিন্ন ধরণের সংঘাতের কারণে শিক্ষাক্ষেত্র থেকে বাজেট কমানো হচ্ছে৷ প্রায় ২১টি উন্নয়নশীল দেশ শিক্ষার চেয়ে অস্ত্র কেনার পেছনেই বেশি অর্থ ব্যয় করতে প্রস্তুত৷ প্রতিবেদনে স্পষ্ট উল্লেখ করা হয়, পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পেছনে যত অর্থ ব্যয় করা হয় তার এক পঞ্চমাংশ দিয়ে গোটা দেশের শিক্ষা ব্যবস্থাকে সচল রাখা সম্ভব৷ কম্বোডিয়া এবং ভিয়েতনামে শিক্ষাক্ষেত্রের জন্য যে বাজেট নির্ধারিত, তার চেয়ে ১.৭ শতাংশ বেশি হচ্ছে সেনাবাহিনীর বাজেট৷

প্রতিবেদন: মারিনা জোয়ারদার

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

সংশ্লিষ্ট বিষয়