1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

তাহলে কি পিছু হটলো বিএনপি?

৫ই জানুয়ারি একরফা নির্বাচনের এক বছর৷ নির্বাচন বর্জনকারী বিএনপি দিনটিকে কেন্দ্র করে সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টির কথা বলেছিল, বলেছিল কঠোর আন্দোলনের কথা৷ কিন্তু শেষ পর্যন্ত সমাবেশ ও কালো পতাকা মিছিলের কর্মসূচি দিয়েছে তারা৷

গাজীপুরে গত শনিবারের সমাবেশ যে কোনো মূল্যে সফল করার ঘোষণা দিয়েছিলেন বিএনপি-র ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর৷ সমাবেশে খালেদা জিয়ার থাকার কথা ছিল৷ কিন্তু ছাত্রলীগ একই স্থানে একই সময়ে সমাবেশ ডাকার পর, ১৪৪ ধারা জারি করে জেলা প্রশাসন৷ এরপর আর এগোয়নি৷ কারণ প্রতিবাদে-সমাবেশ ছেড়ে শুধুমাত্র রুটিন হরতাল পালন করেছে বিএনপি৷

১৪৪ ধারা জারি করার পর থেকেই পরিস্থিতি আঁচ করা যাচ্ছিল৷ যদিও এর আগের সপ্তাহে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার আদালতে হাজিরার দিন ছাত্র ও যুব দল ‘শো-ডাউন' করে তাদের ‘যোগ্যতার' জানান দেয়ার চেষ্টা করে৷ কিন্তু সেই পর্যন্তই৷

বছরের শেষ দিন সন্ধ্যায় খালেদা জিয়া সংবাদ সম্মেলন ডাকেন৷ বিএনপি-র নেতা-কর্মীদের অনেকেই আশা করেছিলেন হয়ত তিনি কঠোর কোনো সরকারবিরোধী কর্মসূচি দেবেনে৷ কিন্তু শেষ পর্যন্ত তিনি ৫ই জানুয়ারিকে ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস' পালনের ঘোষণা দিয়ে ঐ দিন ঢাকায় সমাবেশ এবং ঢাকাসহ সারা দেশে কালো পতাকা মিছিলের কর্মসূচি দেন৷

বিএনপি-র এই কর্মসূচিতে আশাহত হয়ে পড়েছেন কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যন্ত অনেক নেতা-কর্মী৷ তাঁদের কথা, ‘‘বার বার আমাদের চূড়ান্ত প্রস্তুতি নিতে বলে শেষ পর্যন্ত কেন্দ্রীয় নেতারাই পিছু হটেন৷ তাঁরা নিজেরা আন্দোলনের মাঠে থাকেন না৷ আর আন্দোলন করতেও দেন না৷''

তবে বিএনপি-র কেন্দ্রীয় নেতাদের কয়েকজন মনে করেন, ‘‘খুব সহসাই সরকারের ওপর আন্তর্জাতিক পর্যায় থেকে নির্বাচনের জন্য চাপ সৃষ্টি হবে৷ তাই এখনই চূড়ান্ত আন্দোলনে না গিয়ে সেই পর্যন্ত অপেক্ষা করা ভালো৷''

কিন্তু তৃনমূলের নেতা-কর্মীদের বড় একটি অংশ মনে করেন যে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের দ্বন্দ্ব এবং নিস্ক্রিয়তা বিএনপি-কে পিছিয়ে দিচ্ছে৷ আন্দোলন গড়ে তোলার মতো সাহস বা সামর্থ্য কোনোটিই তাঁদের নেই৷

ঢাকার কলাবাগান এলাকার যুবলীগ নেতা সালাউদ্দিন আহমেদ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এভাবে বার বার হতাশ করলে আমাদের মন ভেঙে যাবে৷ তৃণমূলের মনোভাব কেন্দ্রীয় নেতারা বুঝছেন না৷ তাঁরা নিজেরা ভয় পাচ্ছেন মাঠে নামতে৷'’

বিএনপি-র চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট আহমেদ আজম খান অবশ্য ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এটা পিছু হটা নয়৷ এটা আন্দোলনের কৌশল৷ একটি আইনি বাধাকে উপেক্ষা করে আন্দোলন করার সময় এখনো আসেনি৷'' তিনি বলেন, ‘‘অতীতে ১৪৪ ধারা ভাঙার নজির যে নেই, তা নয়৷ কিন্তু গাজীপুরে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে সামাবেশ করার পরিবেশ ও পরিস্থতি আজ নেই৷'''

অ্যাডভোকেট আহমেদ আজম খান বলেন, ‘‘বিএনপি একটি নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে৷ তাই ৫ই জানয়ারি কালো পতাকা মিছিল এবং সমাবেশের কর্মসূচি দিয়েছে৷ এতে তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা যদি হতাশ হন, তাহলে বুঝতে হবে চূড়ান্ত আন্দোলনের জন্য তাঁরা প্রস্তুত হচ্ছেন৷ আর ধাপে ধাপে সেই চূড়ান্ত আন্দোলন গড়ে উঠবে৷''

বিএনপি-র আন্দোলন গড়ে তোলার সক্ষমতা আছে কিনা – এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘সক্ষমতা থাকলেই সব সময় চূড়ান্ত আন্দোলন করা যায় না৷ ৫ই জানুয়ারির আগে থেকেই বিএনপি আন্দোলনে আছে৷ আর সেই আন্দোলন একমসয় চূড়ান্ত রূপ পাবেই৷''

এদিকে বিএনপি-র এই ‘মাজুল' কর্মসূচিতে উল্লসিত সরকারি দল৷ তারা ৫ই জানুয়ারিকে ‘গণতন্ত্র ও সংবিধান রক্ষা দিসব' হিসেবে পালন করবে৷ ঢাকায় করবে সমাবেশ৷ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বৃহস্পতিবার বলেন, ‘‘নির্বাচনে অংশ না নেয়ার একটি ভুল সিদ্ধান্তে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া সংসদ থেকে ‘মাইনাস' হয়েছেন৷ এখন আরেকটি ভুল সিদ্ধান্তের কারণে তিনি রাজনীতি থেকেও মাইনাস হতে পারেন৷ মাইনাসের ফর্মুলা আওয়ামী লীগের নয়৷ তাঁর ভুল সিদ্ধান্তের জন্য দেশের জনগণই তাঁকে মাইনাস করবে৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়