1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

তালেবান হত্যায় কি জার্মান সেনাদের ভূমিকা ছিল?

আফগানিস্তানে গত বছর পর্যন্ত সক্রিয় থাকা মার্কিন নেতৃত্বাধীন আইসাফ বাহিনীর হয়ে কাজ করেছে জার্মান সেনাবাহিনী৷ সে সময় তালেবান হত্যায় তাঁদের ভূমিকা নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে জার্মানির জনপ্রিয় দৈনিক ‘বিল্ড’৷

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তালেবান হত্যা জার্মানির জড়িত থাকার ব্যাপারে আগে যতটা ধারণা করা হতো, জার্মান সেনাদের ভূমিকা ছিল তার চেয়েও বেশি৷ উত্তর আফগানিস্তানে আইসাফ বাহিনীর আঞ্চলিক কমান্ডার ছিলেন জার্মান সেনাবাহিনীর মেজর জেনারেল মার্কুস ক্নাইপ৷ তিনি ব্যক্তিগতভাবে ‘আটক কিংবা হত্যা'-র জন্য তালেবান বাছাইয়ের কাজ করতেন বলে দাবি পত্রিকাটির৷

উল্লেখ্য, তালেবানের শীর্ষ পর্যায় থেকে শুরু করে মাঝারি ও সমর্থক পর্যায়ের ব্যক্তিদের তালিকা তৈরি করতো ন্যাটো৷ এই তালিকাকে ‘আটক অথবা হত্যা' তালিকা বলা হতো৷ এই হত্যার বিষয়টি আন্তর্জাতিকভাবে সামরিক বাহিনীর মধ্যে ‘টার্গেটেড কিলিং' হিসেবে পরিচিত৷ জঙ্গিদের মোবাইল ব্যবহারের তথ্য দিয়ে তাদের অবস্থান শনাক্ত করা হতো৷ জার্মান ম্যাগাজিন ‘ডেয়ার স্পিগেল'-এর মতে, আফগানিস্তানে তালেবানের বিরুদ্ধে লড়তে এই তালিকা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে৷

বিল্ড পত্রিকা তাদের প্রতিবেদনে বলেছে, আফগানিস্তানের মাজার-ই-শরিফে স্থাপিত জার্মান বাহিনীর সদর দপ্তরে ‘টার্গেট সাপোর্ট সেল' ছিল৷ এই কেন্দ্রের কাজ ছিল ‘তালিকার জন্য সম্ভাব্য তালেবান জঙ্গিদের সম্পর্কে তথ্য জোগাড় করা'৷ এই কাজে জার্মান গোয়েন্দা সংস্থার সহায়তা নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে বিল্ড৷ জার্মান সেনাবাহিনীর গোপন কাগজপত্র থেকে এসব তথ্য পাওয়া যাওয়ার দাবি করেছে পত্রিকাটি৷

এবারই প্রথম নয়

হত্যা প্রক্রিয়ার সঙ্গে জার্মানির সংশ্লিষ্টতা থাকার বিষয়টি এবারই যে প্রথম জানা গেল তা নয়৷ এর আগে ২০১২ সালের জানুয়ারিতে বার্লিনের ‘জার্মান ইনস্টিটিউট ফর ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড সিকিউরিটি অ্যাফেয়ার্স (এসডাব্লিউপি)'-এর এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল যে, আফগানিস্তানে দায়িত্ব পালনের সময় জার্মান বাহিনী তালিকা তৈরির সঙ্গে ‘সরাসরি' জড়িত ছিল৷ অবশ্য তালিকায় নাম দেয়াদের কয়েকজনকে হত্যা নয়, শুধু আটকের সুপারিশ করেছিল জার্মানি – এমনটাই বলা হয়েছে এসডাব্লিউপি-র প্রতিবেদনে৷

জার্মানরা ‘ফুল তুলতে' সেখানে যায়নি

এসডাব্লিউপি-র প্রতিবেদন বলছে, জার্মান বাহিনীর দেয়া তালিকা থেকে তালেবান জঙ্গিদের যে বিভিন্ন কারণে হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে সেটা অস্বীকার করা যায় না৷ ন্যাটোর সাবেক কর্মকর্তা এগোন রামস বলছেন, ‘‘অবশ্যই'' জার্মানদের দেয়া তালিকা থেকে তালেবানদের হত্যা করা হয়েছে৷ জার্মান সেনারা আফগানিস্তানে ‘ফুল তুলতে' যায়নি বলেও মন্তব্য করেন তিনি৷

জড়িতদের শাস্তি দাবি

জার্মানির বাম রাজনীতিক ইয়ান ফন আকেন বলেন, ‘‘বিচার ছাড়া অভিযুক্তদের মারা হত্যার মতো অপরাধ৷'' জার্মানি যদি ন্যাটোর ‘হত্যা তালিকা'-য় নাম সরবরাহ করে থাকে তাহলে অবশ্যই এর বিচার করতে হবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন