1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

তালেবান নেতা হাকিমুল্লাহ মেহসুদের ভিডিও

টেপটিতে ধারণ করা বক্তব্যে মেহসুদ সতর্ক করে দিয়ে বলে, ''আমেরিকার প্রধান শহরগুলোতে হামলার জন্যে নিজেদেরকে উৎসর্গ করতে প্রস্তুত আমাদের যোদ্ধারা৷ এবং সেই সময়ও খুব কাছেই৷''

default

হাকিমুল্লাহ মেহসুদ

পাকিস্তানী তালেবান নেতা হাকিমুল্লাহ মেহসুদ মারা যায়নি, জীবিত আছে৷ শুধু তাই নয়, ইন্টারনেট ভিডিও-তে মেহসুদ যুক্তরাষ্ট্রে আত্মঘাতী হামলা চালানোর কথাও বলেছে৷ গত জানুয়ারিতে চালক বিহীন একটি মার্কিন বিমান হামলায় তার মৃত্যু হয় বলে ধারণা করা হয়েছিল৷

ভিডিও টেপটি নতুন করে যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র পাকিস্তানে জঙ্গিদের শক্তি নিয়ে প্রশ্ন তুলতেই পারে৷ শনিবার সন্ধ্যায় নিউইয়র্কের টাইমস স্কোয়ারে একটি গাড়ি বোমা হামলার চেষ্টার, অল্পক্ষণ পরেই এই হামলার দায়িত্ব পাকিস্তানের তালেবান গোষ্ঠী স্বীকার করার পর, ভিডিও টেপটি পোস্ট করা হয়৷

টেপটিতে ধারণ করা বক্তব্যে মেহসুদ সতর্ক করে দিয়ে বলে, ''আমেরিকার প্রধান শহরগুলোতে হামলার জন্যে নিজেদেরকে উৎসর্গ করতে প্রস্তুত আমাদের যোদ্ধারা৷ এবং সেই সময়ও খুব কাছেই৷'' বলা হয়েছে, টেপটির কন্ঠস্বর ধারণ করা হয়, ৪-ঠা এপ্রিল ২০১০-এ৷ টেপে এই মর্মেও হুমকি দেয়া হয় যে তালেবান যোদ্ধারা আমেরিকার ওপর প্রতিশোধ নেবে৷

কিছুদিন আগে পাকিস্তানের তালেবান আন্দোলন, তেহরিক-ই তালিবান পাকিস্তান বা (টিটিপি), আল কায়েদার সঙ্গে যোগাযোগ সত্ত্বেও তাদের আন্দোলনকে সব জায়গায় ছড়িয়ে না দিয়ে ইসলামাবাদ ভিত্তিক করার ওপর জোর দিয়েছে৷ আর এই কারণেই পর্যবেক্ষকরা ধারণা করছেন, মেহসুদের এই হুঁশিয়ারি এবং টাইমস স্কোয়ারে বোমা হামলার চেষ্টার দায়িত্ব স্বীকার তাদের দুর্বলতা ফাঁস হবার ইঙ্গিতই দিচ্ছে৷ কেননা এই জঙ্গি গোষ্ঠীটির বিরুদ্ধে পাকিস্তানী সেনাবাহিনী তাদের অভিযান অব্যাহত রেখেছে৷

তালেবান বিশেষজ্ঞ, রহিমুল্লাহ ইসুফজাই বলেছেন, টিটিপি-র হারানোর কিছু নেই৷ পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে টিটিপি , হয় বাঁচো না হয় লড়াই করো, অনেকটা এই ধরনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ এবং যেভাবে, যখনই পারছে তারা পাকিস্তান সরকার ও সেনাবাহিনীকে লজ্জায় ফেলতে চাইছে৷ তাই যুক্তরাষ্ট্রে তালিবান হামলার দাবি তাদেরকে এ ক্ষেত্রে হয়ত সাহায্য করতে পারে৷

তবে ৩০-শে ডিসেম্বর আফগানিস্তানের পূর্বাঞ্চল খোস্ত-এ একটি আত্মঘাতী বোমা হামলায় জঙ্গি গোষ্ঠিটির জড়িত থাকার সন্দেহ পর্যবেক্ষকদের অবাক করেছে৷ ঐ হামলায়, মার্কিন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার ৭ জন কর্মী প্রাণ হারান৷ কোন গোয়েন্দা সংস্থার উপর হামলার ইতিহাসে এটি দ্বিতীয় বৃহত্তম হামলা৷

শেষ ভিডিও চিত্রে হাকিমুল্লাহ মেহসুদকে, জর্ডানের ডাবল এজেন্টের সঙ্গে দেখা গেছে৷ এদিকে নিউ ইয়র্কের পুলিশ কমিশনার রেমন্ড কেলি বলেছেন, ''তালেবানের দাবির সমর্থনে কোন প্রমাণ নেই''৷ অন্যদিকে পাকিস্তানী নিরাপত্তা কর্মকর্তারা এটিকে বড় ধরনের প্রচারণা বলেই অভিহিত করেছেন৷

প্রতিবেদক: ফাহমিদা সুলতানা

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারুক

সংশ্লিষ্ট বিষয়