1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

তরুণ অ্যাথলিটদের মস্তিষ্কে আঘাত ঠেকাতে উদ্যোগ

খেলার উত্তেজনার কারণে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে মস্তিষ্ক৷ এ কারণেই শিশু অ্যাথলিটরা যাতে বড় হয়ে এ ধরনের সমস্যা মোকাবিলা করতে পারে সে বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়ার কথা ভাবছে মার্কিন কর্তৃপক্ষ৷

ফুটবল, ক্রিকেট, রেসলিং-প্রতিযোগিতাপূর্ণ যে কোনো খেলায় অনেক সময়ই শোনা যায় উত্তেজিত হয়ে কোন দর্শকের মৃত্যু হয়েছে৷ কারণ উচ্চ রক্তচাপ এবং মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ৷ খেলোয়াড়দের ক্ষেত্রে এ উত্তেজনাটা কিন্তু আরো বেশি৷ এখনকার তরুণ বেশিরভাগ অ্যাথলিটদের মস্তিষ্কে উত্তেজনার কারণে ক্ষত তৈরি হয়েছে বলে জানিয়েছেন মার্কিন কর্তৃপক্ষ৷

বুধবার মার্কিন স্বাস্থ্য উপদেষ্টারা বলেছেন, স্পোর্টস লিগ এবং সরকারি সংস্থাগুলোর উচিত এদিকে দৃষ্টি দেওয়া৷ অনেকেই আবার খেলার সময় দুর্ঘটনাবশত মস্তিষ্কে আঘাত পান, যেটা প্রতিরোধ করা উচিত বলে মনে করছেন তারা৷

এ ধরনের আশঙ্কা কাটিয়ে উঠতে স্পোর্টস লিগগুলো তাদের নিয়মনীতিতে পরিবর্তন আনার কথা ভাবছে৷ ইনস্টিটিউট অফ মেডিসিন অ্যান্ড দ্য ন্যাশনাল রিসার্চ কাউন্সিল-এর বিশেষজ্ঞরা তরুণ অ্যাথলিটদের এ ধরনের সমস্যাগুলো বিশ্লেষণ করে বলেছেন, কীভাবে সমস্যার সমাধান করা যায় সেটা জানতে আরো তথ্যের প্রয়োজন, যা তাঁদের হাতে নেই৷

১৭ জনের ঐ গবেষক দলের গবেষণায় পাওয়া গেছে, সাধারণত প্রতিযোগিতার ক্ষেত্রেই মস্তিষ্কে চাপ তৈরি হয় বেশি এবং মস্তিষ্ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়৷ ২০০১ সালে মস্তিষ্কে ক্ষতের কারণে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছিল দেড় লাখ খেলোয়াড়, ২০০৯ সালে যে সংখ্যাটা বেড়ে দাঁড়িয়েছে আড়াই লাখে৷ ৫ থেকে ২১ বছর বয়সী খেলোয়াড়দের নিয়ে এই গবেষণাটি করা হয়েছে৷ রিপোর্টে বলা হয়েছে, হাইস্কুল ও কলেজে যেসব কিশোর ফুটবল, আইস হকি, রেসলিং খেলে তাদের মস্তিষ্কই বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়৷

এপিবি/এসবি (রয়টার্স, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন