1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ঢাকায় ভুয়া চাকরি দাতা প্রতিষ্ঠান বাড়ছে

ঢাকায় চাকরি দেয়ার নামে শতাধিক ভুয়া প্রতারক প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে৷ তারা কেউ পোশাক কারখানায়, আবার কেউবা তাদের কথিত স্বাস্থ্য সেবা প্রকল্পে চাকরি দেয়ার নামে বেকার তরুণ-তরুণীদের কাছ খেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে৷

পুলিশ অভিযান চালালেও কিছুই করা যায়নি৷

বাংলাদেশে পত্রিকার পাতা খুললেই ১০০ ভাগ চাকরির নিশ্চয়তা দিচ্ছে এমন নানা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন চোখে পড়ে৷ বেকার তরুণ-তরুণীরা সেই বিজ্ঞাপনে প্রলুব্ধ হয়ে যখন চাকরির জন্য যান, তখন হন প্রতারিত৷ এরকম এক প্রতারিত যুবকের নাম নওশাদ আহমেদ৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে জানান, পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেখে মতিঝিলের গ্রামীণ বায়িং হাউজ নামে একটি প্রতিষ্ঠানে যান তিনি৷ যাওয়ার পর, তারা তাঁকে গার্মেন্টসে ১২ হাজার টাকা বেতনে কোয়ালিটি সুপারভাইজার পদে নিয়োগ করার ব্যাপারে চূড়ান্ত করেন৷ আর তারপরই শুরু হয় প্রতারণা৷ প্রথমে নিয়োগ-পত্র এবং পরিচয়-পত্রের জন্য ২ হাজার টাকা৷ এরপর প্রশিক্ষণের জন্য তাঁর কাছ থেকে নেয়া হয় আরো ১০ হাজার টাকা৷

Bangladesch Industriepark Ashulia Frauen Arbeiterin

ঢাকায় চাকরি দেয়ার নামে শতাধিক ভুয়া প্রতারক প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে

আদতে কিন্তু প্রশিক্ষণ বলতে অন্য কিছু না শুধু সাত দিন অফিসে বসিয়ে রাখা হয়৷ আর কাজে যোগদানের দিন তাঁকে পাঠানো হয় একটি অখ্যাত পোশাক কারখানায় শ্রমিক পদে৷ বেতন মাত্র ৩ হাজার টাকা৷ শুধু নওশাদ নয়, এরকম আরো শত শত প্রতারিত তরুণ-তরুণী এখন প্রতিকারের জন্য সংবাদমাধ্যমের শরণাপন্ন হচ্ছেন৷ কেন? জানতে চাইলে রেজাউল করিম নামের আরেক প্রতারিত যুবক জানান, তিনি সুহা ফ্যাসান নামে একটি প্রতিষ্ঠানে প্রতারিত হওয়ার পর পল্টন থানায় মামলা করেন৷ কিন্তু প্রতারকরা উল্টে তাঁর বিরুদ্ধেও মিথ্যা চুরির মামলা করে দেয়৷ তিনি জানান, শুধু পল্টন এবং মতিঝিলেই এরকম ৩০টি প্রতিষ্ঠান আছে যারা চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা করে৷

আরেক গ্রপ প্রতারক আছে যারা সারা দেশে তাদের কথিত স্বাস্থ সেবা প্রকল্পে চাকরি দেয়ার নামে বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকে৷ চাকরি প্রার্থীরা চাকরির জন্য গেলে তাঁকে তাঁর উপজেলায় সমন্বয়কারী হিসেবে নিয়োগ দেয় এবং ‘সিকিউরটি মানি' হিসেবে ১০ হাজার টাকা নেয়৷ এরপর তাঁকে আবার বলা হয় ইউনিয়ন পর্যায়ে নিয়োগ দিতে৷ তার মাধ্যমেও নেয়া হয় তাঁদের জামানতের টাকা৷ পরে সারা দেশ থেকে এভাবে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে প্রতিষ্ঠানটি উধাও হয়ে যায়৷ মিরপুর এলাকা থেকে পুলিশ জাহাঙ্গির আলম নামে এ রকম এক প্রতারকে গ্রেপ্তার করেছে, যে গত ২ বছরে ভিন্ন ভিন্ন নামে ১২টি প্রতিষ্ঠান খুলে চাকরির নামে প্রতারণা করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়েছে৷ মিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সালাউদ্দিন আহমেদ ডয়চে ভেলেকে জানান, জাহাঙ্গির আলম সর্বশেষ মিরপুরের শেওড়া পাড়ায় পল্লি বিকাশ লি. নামে একটি প্রতিষ্ঠান খুলে আবারো প্রতারণা শুরু করে৷ খবর পেয়ে তাকে আটক করে তার বিরুদ্ধে মামলা দেয়া হয়েছে৷

ঢাকা মহানগর পুলিশের যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম ডয়চে ভেলেকে জানান, তারা এসব প্রতারক চাকরি দাতা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযান চালান৷ তবে প্রতারিতরা প্রায়ই অভিযোগ না করায় তারা অনেক সময় কোনো ব্যবস্থা নিতে পারেন না৷ তিনি বলেন, রাজধানীতে এ রকম শতাধিক প্রতিষ্ঠান আছে বলে তাদের কাছে তথ্য রয়েছে৷ তাদের গ্রেপ্তার করলেও তারা জামিনে ছাড়া পেয়ে আবার প্রতারণা শুরু করে৷ তাই তিনি এ জন্য চাকরি প্রার্থীদেরও সতর্ক এবং সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়