1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ঢাকায় বড় ভূমিকম্পের আশঙ্কা, ঝুঁকিতে বহু ভবন

রিখটার স্কেলে ৭ মাত্রার বেশি ভূমিকম্প হলে আর তার কেন্দ্র ঢাকার চারপাশের এলাকা হলে রাজধানীর ৭২ হাজার ভবন পুরোপুরি ধসে পড়বে, ধারণা বিশেষজ্ঞদের৷ তাঁদের মতে, এমন ঝঁকি থাকলেও ক্ষয়ক্ষতি মেকাবেলায় পর্যাপ্ত প্রস্তুতি নেই দেশটির৷

অডিও শুনুন 10:20

'গৃহহীনদের আশ্রয় দেয়ার মতো খালি জায়গা নেই ঢাকায়'

গত ৪ জানুয়ারি ভোর রাতে রিখটার স্কেলে ৬.৭ মাত্রার ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠে বাংলাদেশ৷ এই ঘটনায় শুধুমাত্র আতঙ্কেই মারা যান ছয়জন৷ সাধারণ মানুষের আতঙ্ক এবং চিৎকারে সৃষ্টি হয় এক ভীতিকর অবস্থার৷ তাঁদের কথা, এবারের ভূমিকম্পের মতো কম্পন তাঁরা আগে কখনো দেখেননি৷ ভূমিকম্পের সময় তাড়াহুড়ো করে বাইরে বের হতে গিয়ে আহত হন শতাধিক৷ ঢাকায় ছয়টি ভবন হেলে পড়ার খবরও পাওয়া যায়৷ এছাড়া সারা দেশে ৫০টিরও বেশি ভবন হেলে পড়ে অথবা ফাটল ধরে জানা যায়৷

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক এবং ইউএনডিপি-র দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিশেষজ্ঞ এ কে এম মাকসুদ কামাল ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এবারের ভূমিকম্পের কেন্দ্র ছিল ঢাকা থেকে ৩৫০ কি.মি. দূরে মনিপুর রাজ্য৷ কেন্দ্রে এর মাত্রা ছিল ৬.৭৷ ঐ কেন্দ্রে নাকি ৮.৬ মাত্রার ভূমিকম্পের আশঙ্কা ছিল৷ আর সেটা যদি হতো, তাহলে ঢাকাসহ পুরো বাংলাদেশ বিপর্যয়ের মুখে পড়তো৷

তিনি বলেন, ‘‘বাংলাদেশের অভ্যন্তরেই ১২টি ভূমিকম্প ফাটল আছে৷ এ সব জায়গায় ৭.৫ মাত্রার ভূমিকম্প হতে পারে৷ ঢাকার অদূরে মধুপুর ফাটল খুব বিপজ্জনক৷ প্রতি ১০০ বছর পর পর ফাটল থেকে বড় আকারের ভূমিকম্প হয়৷ ১৮২২ এবং ১৯১৮ সালে বাংলাদেশে বড় ভূমিকম্প হয়েছে৷ তাই আরেকটি বড় ভূমিকম্পের দ্বারপ্রান্তে আছি আমরা৷''

অধ্যাপক মাকসুদ কামাল জানান, ‘‘২০০৯ সালে ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের মধ্যে ভবনগুলো নিয়ে জরিপ করা হয়৷ তাতে দেখা যায় যে, আগামীতে যদি ৭.৫ মাত্রার ভূমিকম্প হয় তাহলে তিন লাখ ২৬ হাজার ভবনের মধ্যে ৭২ হাজার ভবন তাৎক্ষণিকভাবে ধসে পড়ব৷ একেবারে অক্ষত থাকবে খুব কম সংখ্যক ভবন৷ এছাড়া গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানির লাইনে বিস্ফোরণ ঘটে এক ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে৷ ঘটবে মানবিক বিপর্যয়ও৷''

তিনি বলেন, ‘‘এই দুর্যোগের জন্য আমাদের প্রস্তুতি পর্যাপ্ত নয়৷ প্রথমত, ভূমিকম্পে যাঁরা গৃহহীন হবেন তাঁদের আশ্রয় দেয়ার মতো খালি জায়গা নেই ঢাকায়৷ উদ্ধার কাজের জন্য দক্ষ জনবল এবং যন্ত্রপাতি নেই৷ নেই চিকিৎসা সুবিধাো৷ তাছাড়া সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতাও নেই৷ তাই ভূমিকম্পের সময় কী কী করণীয় – সে সম্পর্কে অনেকেই জানেন না৷ ফলে পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ হবে৷''

মাকসুদ কামাল বলেন, ‘‘আমাদের এখনই প্রস্তুতি নেয়া উচিত৷ উচিত বিল্ডিং কোড মেনে ভবন তৈরি করা৷ এছাড়া ঝুঁকিপূর্ণ ভবন সম্পর্কেও সিদ্ধান্ত নেয়া উচিত৷''

প্রসঙ্গত, ঢাকার ঝুঁকিপূর্ণ ভবন নিয়ে কোনো সিদ্ধান্তই কার্যকর হচ্ছে না৷ সর্বশেষ সিদ্ধান্ত ছিল ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে ঝুঁকির কথা উল্লেখ করে বাধ্যতামূলকভাবে ‘সাইনবোর্ড' লাগাতে হবে৷ সেটুকুও কার্যকর হয়নি৷''

আপনার কি মনে হয়? ঢাকা কি বড় কোনো ভূমিকম্পের জন্য প্রস্তুত? জানান আপনার মতামত, নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও