1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ঢাকায় বিশেষ মার্কিন দূত স্টিফেন জে রাপ

বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধের বিচার ১৯৭৩ সালের আন্তর্জাতিক অপরাধ আইনেই সম্ভব বলে জানিয়েছেন ঢাকা সফররত যুদ্ধাপরাধ বিষয়ক বিশেষ মার্কিন দূত স্টিফেন জে রাপ৷ তিনি আজ ট্রাইবুন্যালের প্রসিকউটরদের সঙ্গে বৈঠকের পর একথা বলেন৷

default

১৯৭৩ সালের আন্তর্জাতিক অপরাধ আইনে যুদ্ধাপরাধের বিচার সম্ভব

বিশেষ মার্কিন দূত স্টিফেন জে রাপ আজ ট্রাইবুন্যালের প্রসিকিউটর এবং আইন বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে বৈঠক করেন৷ বৈঠকের পর তিনি জানান, ১৯৭৩ সালের যে আইনে যুদ্ধাপরাধের বিচার হচ্ছে তাতে তিনি সন্তুষ্ট৷ তিনি বলেন, ইতোমধ্যেই আইনের কিছু বিধান সংশোধনের যে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে তা আশাব্যঞ্জক৷ আর এখন পর্যন্ত সঠিকভাবেই বিচারের কাজ এগিয়ে যাচ্ছে৷ তিনি যে বৈঠক করেছেন তাতে তিনি আশ্বস্ত হয়েছেন৷ তবে তিনি মনে করেন, সাক্ষী সুরক্ষা আইনকে আরো গুরুত্বের সঙ্গে দেখা উচিত৷ উল্লেখ্য, এর আগেরবার ঢাকা সফরের সময় অবশ্য তিনি আইনের কিছু সংশোধনের কথা বলেছিলেন৷

ট্রাইবুন্যালের চিফ প্রসিকউটর গোলাম আরিফ টিপু বলেন, স্টিফেন জে রাপ তাদের সঙ্গে আলোচনায় বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধের বিচার প্রক্রিয়ার প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন৷ তিনি বলেন, যুদ্ধাপরাধ আইন এবং কার্যপ্রনণালী নিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনের পূর্ণ সমর্থন রয়েছে৷ যদিও এর আগে ঢাকা সফরের সময় এই মার্কিন দূত আইনের যথার্থতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন৷

বৈঠকে আইন মন্ত্রণালয়ের অনুরোধে উপস্থিত ছিলেন খ্যাতিমান আইনজ্ঞ ব্যরিষ্টার আমীর উল ইসলাম৷ তিনি জানান, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রক্রিয়া এবং বাংলাদেশ সরকার ও জনগণের ভূমিকায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন স্টিফেন জে রাপ৷

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে প্রসিকিউটররা জানান, যাদের রিমান্ড মঞ্জুর হয়েছে তাদের শিগগিরই যুদ্ধাপরাধ মামলায় সেফ হোমে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে৷

প্রতিবেদন: হারুন উর রশীদ স্বপন

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক