1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ঢাকায় বিদেশি খুন, তোলপাড় অনলাইনে

বাংলাদেশে এক বিদেশি নাগরিক হত্যাকাণ্ড নিয়ে তোলপাড় চলছে টুইটার এবং ফেসবুকের মতো সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে৷ ২৮শে সেপ্টেম্বর রাতে ইটালির নাগরিক তাবেলা সিজার ঢাকার গুলশানে অবস্থিত কূটনৈতিক এলাকায় খুন হন৷

বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের উত্থান নিয়ে সাম্প্রতিক সময়ে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে ব্যাপক আলোচনা দেখা গেছে৷ দেশটির সরকারের তরফ থেকে ব্রিটেনকে এব্যাপারে সতর্ক করা হয়েছে, যা প্রকাশ করেছে গার্ডিয়ান পত্রিকা৷ এই আলোচনার মধ্যেই নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে গতসপ্তাহে ঢাকা সফর পিছিয়ে দেয় অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল৷ আর সোমবার ঢাকার নিরাপদ এলাকা বলে বিবেচিত ‘ডিপ্লোমেটিক জোনে' খুন হন একজন ইটালীয় নাগরিক৷ টুইটারে এই বিষয়ে প্রকাশ হয়েছে অনেক তথ্য৷ সাইট ইন্টেলিজেন্স গ্রুপের প্রধান রিটা কেট্স লিখেছেন, আন্তর্জাতিক জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করেছে৷ এসংক্রান্ত প্রমাণসহ একাধিক টুইট করেছেন তিনি:

জঙ্গি গোষ্ঠীগুলোর ইন্টারনেটভিত্তিক তৎপরতা নজরদারি সংস্থা সাইট'এর প্রকাশিত তথ্যের পর নড়চড়ে বসেছে আন্তর্জাতিক সমাজ৷ ঢাকায় মার্কিন দূতাবাস একাধিক টুইটারে দেশটির নাগরিকদের চলাফেরায় সতর্ক হতে বলেছে৷ সাময়িকভাবে বন্ধ করা হয়েছে একটি বিদেশি স্কুল:

ফেসবুকে এই বিষয়ে মন্তব্য করেছেন অনেকে৷ সাংবাদিক গোলাম মোর্তোজা লিখেছেন, ‘‘একজন ইউরোপের মানুষ গুলিতে নিহত হয় যে দেশে, সেই দেশ নিরাপদ -এটা কি বাংলাদেশের পক্ষে কাউকে বিশ্বাস করানো সম্ভব? বাস্তব অবস্থা যাই থাকুক, অস্ট্রেলিয়া কি বাংলাদেশের কথা বিশ্বাস করবে? আমাদের সর্বত্র ‘বজ্র আটুনি ফস্কা গেরো!''

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত অধ্যাপক আলী রিয়াজ সংক্ষেপে লিখেছেন, ‘‘বাঘ আসছে না আসে নাই?'' ব্লগার রাসেল পারভেজ এই হত্যাকাণ্ড নিয়ে ফেসবুকে বিস্তারিত লিখেছেন৷ তিনি মনে করেন, ‘‘আইসিসিও কো-অপারেশন নামের একটি উন্নয়ন সহযোগিতা তত্ত্বাবধায়ক সংস্থার স্থানীয় প্রকল্প পরিচালক সিজার তাভেল্লা গুলশানে খুন হয়েছেন৷ এই হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করেছে আইএস!!!''

তিনি প্রশ্ন রেখেছেন, ‘‘সিজার তাভেল্লাকে আইএস!!! কিংবা আইএসের আনুগত্য খোঁজায় মরিয়া কোনো উচ্চাভিলাষী বাংলাদেশি জঙ্গিমনস্ক দল কেনো হত্যা করবে? বাংলাদেশের গাদাখানেক অনলাইন নিউজপোর্টাল এবং জাতীয় দৈনিকের সংবাদ পড়ে নিহতের নাম, খুন হওয়ার আনুমানিক সময়, প্রত্যক্ষদর্শীদের জবানে ৩ জন খুনি মোটরসাইকেল নিয়ে গুলশান ৮৩ সড়ক ধরে পালিয়া যাওয়া নিছক কিছু তথ্যের বাইরে অন্য কিছু পাওয়া সম্ভব হয় নি৷''

রাসেল পারভেজ মনে করেন, শুরুতেই এই হত্যাকাণ্ড ‘ইসলামিক স্টেট' ঘটিয়েছে মেনে না নিয়ে অন্যান্য দিকগুলোও তদন্ত প্রয়োজন৷ বিশেষ করে আর্থিক কোনো বিষয়াদি জড়িয়ে আছে কিনা তা দেখাও জরুরি৷

সংকলন: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: জাহিদুল হক

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়