1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ঢাকায় অনির্দিষ্টকালের জন্য সভা, সমাবেশ নিষিদ্ধ

রবিবার থেকে ঢাকায় সব ধরনের সভা, সমাবেশ, শোভাযাত্রা ও মানববন্ধন নিষিদ্ধ করেছে মেট্রোপলিটন পুলিশ৷ পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত এই নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে বলে পুলিশ কমিশনার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছেন৷

এর প্রতিক্রিয়ায় বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ ডয়চে ভেলেকে জানান, সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন সংগ্রাম দমাতেই এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে৷

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় সরকারের প্রস্তাব দেয়ার পরদিন শনিবার ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার সভা সমাবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করলেন৷ শনিবার দুপুরে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি নেতারা দেখা করে ২৫ অক্টোবর ঢাকায় সমাবেশের অনুমতি চাওয়ার এক ঘণ্টার মধ্যে এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়৷

পুলিশ কমিশনার বেনজীর আহমেদ সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছেন, ২০ অক্টোবর থেকে ঢাকায় বিভিন্ন গোষ্ঠী ও রাজনৈতিক দল একাধিক পাল্টা-পাল্টি সমাবেশ ডেকেছে৷ আবার কোনো কোনো মহল এই সমাবেশকে সামনে রেখে মারাত্মক উস্কানিমূলক বক্তব্য দিচ্ছে৷ এতে জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে৷ এর ফলে অন্তর্ঘাতমূলক ও সাংঘর্ষিক পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে, যা ঢাকা মহানগর এলাকার আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি এবং জননিরাপত্তার বিঘ্ন ঘটাতে পারে৷

Premierministerin Bangladesch Sheikh Hasina

সর্বদলীয় সরকার গঠনের প্রস্তাব করেছেন প্রধানমন্ত্রী

তাই পুলিশ কমিশনার তাঁর নিজস্ব ক্ষমতাবলে রবিবার থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকায় সব ধরনের সভা, সমাবেশ নিষিদ্ধ করেন৷ এই সময়ে কোনো ধরনের বিক্ষোভ কর্মসূচি, মানববন্ধন, গণ অবস্থানও করা যাবে না৷ সাধারণের বা যানবাহন চলাচলে কোনো বাধা সৃষ্টি করা যাবে না৷ বহন করা যাবে না কোনো আগ্নেয়াস্ত্র, লাঠি, ছড়ি, বিস্ফোরক বা ক্ষতিকর কোনো দ্রব্য৷

ঢাকা মহানগর পুলিশের যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম ডয়চে ভেলেকে জানান এই নিষেধাজ্ঞার আওতায় প্রকাশ্য বা ঘরোয়া সব ধরনের সমাবেশ বা জমায়েতই রয়েছে৷ তিনি জানান, পুলিশ ব্যাপক নাশকতা এবং সহিংসতার আশঙ্কা থেকে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ বিশেষ করে একটি মহল দা-কুড়াল নিয়ে প্রস্তুতির কথা বলায় জনমনে ব্যাপক আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে৷

এদিকে দুপুর দেড়টার দিকে বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ জয়নুল আবদিন ফারুকের নেতৃত্বে বিএনপি'র একটি প্রতিনিধি দল মেট্রোপলিটন পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে দেখা করেন৷ জয়নুল আবদিন ফারুক ডয়চে ভেলেকে জানান তখন তাদের জানান হয় উপরে কথা বলে ২৫ অক্টোবর সমাবেশের অনুমতির ব্যাপারে সিদ্ধান্ত জানান হবে৷ কিন্তু সেখান ধেকে চলে আসার ঘণ্টাখানেক পর সভা-সমাবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞার কথা জানতে পারেন তাঁরা৷ তিনি বলেন বিএনপির ২৫ অক্টোবরের সমাবেশ বন্ধ করতেই এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে৷ তিনি বলেন এই সরকার ভয় পেয়ে নানা কৌশলে এখন বিরোধী দলের আন্দোলন দমন করতে চাইছে৷ কিন্তু বিরোধী দল চূড়ান্ত আন্দোলন শুরু করবেই৷

বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ বলেন সরকার নির্বাচন চায় না৷ যদি চাইত তাহলে প্রধানমন্ত্রীর শুক্রবারের প্রস্তাবের পর সভা সমাবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা আসত না৷ সরকার আসলে নানাভাবে সময় পার করতে চাইছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়