1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ঢাকার সবচেয়ে দামি ট্যাক্সিক্যাবে কিছুক্ষণ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে ট্যাক্সিক্যাব উদ্বোধন করেছেন, সেই ক্যাবের প্রতি যে কোনো মানুষের আগ্রহ থাকাই স্বাভাবিক৷ এই আগ্রহের বসেই মিরপুর থেকে উঠে পড়া একটি ‘ট্রাস্ট ক্যাবে’৷ গন্তব্য পশ্চিম রাজাবাজার৷

‘ট্রাস্ট ক্যাব' নাম শুনে কারো মনে যদি ‘বিশ্বাস' বা ‘আস্থা' জাতীয় কিছু মাথায় আসে তাহলে ভুল করবেন৷ ‘ট্রাস্ট' শব্দটি এসেছে, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী নিয়ন্ত্রিত সেনা কল্যাণ সংস্থার ‘ট্রাস্ট ট্রান্সপোর্ট সার্ভিসেস' থেকে৷ বিশ্বাস এখানে মুখ্য নয়৷ আর এতক্ষণে নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন, কেন একজন প্রধানমন্ত্রী এই ট্যাক্সিক্যাব উদ্বোধন করতে গেলেন৷

বর্তমানে ঢাকার সবচেয়ে দামি ক্যাব এগুলো৷ হলুদ রংয়ের শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত এই ক্যাবের ভাড়া শুরু হয় ৮৫ টাকা থেকে৷ এরপর প্রতি কিলোমিটার ৩৪ টাকা৷ ‘ওয়েটিং চার্জ' প্রতি দুই মিনিট সাড়ে আট টাকা৷

দামি এই ক্যাবে আমার যাত্রা শুরু হয় মিরপুর থেকে, এক সন্ধ্যায়৷ বাইরে তখন ৩০ ডিগ্রির বেশি তাপমাত্রা৷ তাই গাড়ির ভেতরে ঢুকতেই ঠান্ডাটা বেশ লাগলো৷ পুরো স্পিডে এসি চালাতে ক্যাব চালকের কোনো কার্পণ্য নেই৷ মোটের উপর ‘মাগনা' হিসেবে এয়ার ফ্রেশনার স্প্রে করলেন চালক৷

Bangladesch Dhaka neue Taxen Taxifahrer

ট্যাক্সিক্যাব চালক খোকন মাদবর

‘ওয়েটিং চার্জ' অনেক

হলুদ এই ক্যাবের মধ্য থেকে ঢাকাটা বেশ রঙিন মনে হয়৷ রাস্তার লাল, নীল বাতি আর গাড়ির হালকা হর্ন পরিবেশটা বেশ মোহনীয় করে তুলেছিল৷ সাত বছর আগের ঢাকা আর এই ঢাকার মধ্যকার ব্যবধান খুঁজতে খুঁজতেই চোখ পড়লো মিটারের দিকে৷ গাড়ি জ্যামে দাঁড়িয়ে অথচ খানিক পড়ে পড়েই মিটারের ডিজিটগুলো বদলে যাচ্ছে৷

ইচ্ছা হচ্ছিল চালকের সঙ্গে কথা বলতে৷ কিন্তু ক্যাবের ভেতরে আরোহীদের জন্য কিছু নিয়মনীতি লিখা আছে৷ তাতে আবার চালকের সঙ্গে বাড়তি কথাবার্তা বলা থেকে বিরত থাকার পরামর্শ রয়েছে৷ সেই পরামর্শ মেনেই চুপচাপ বসেছিলাম৷ কিন্তু চালক খোকন মাদবর চুপ থাকার পাত্র নন৷ তিনিই শুরু করলেন, প্রতি দুই মিনিটে সাড়ে আট টাকা ‘ওয়েটিং চার্জ' একটু বাড়াবাড়ি৷ মাদবরের কথায় খানিকটা বিস্মিত হলাম৷ চালক হয়েই বলছেন এ কথা!

সাংবাদিক হিসেবে আগ্রহ গেলো বেড়ে৷ মাদবর বলে চললেন, গাড়ি দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায় এত টাকা বিল হওয়া ঠিক না৷ ওয়েটিং চার্জ আরো কম হওয়া উচিত৷

Straßenverkehr in Dhaka

জ্যামে আটক থাকলেও প্রতি দুই মিনিট অন্তর গুনতে হবে সাড়ে আট টাকা!

আমি উৎসুক হয়ে জানতে চাই, ট্যাক্সিক্যাব চালিয়ে আয় কেমন? মাসে বেতন দশ হাজার টাকা আর প্রতিদিন খাওয়ার খরচ ১০০ টাকা, চটপট জানান মাদবর৷ বোঝা গেল, সিএনজি অটোরিক্সা চালকদের মতো আরোহীদের কাছ থেকে বাড়তি আয়ের কোনো উপায় এই ক্যাবে নেই৷ কেননা এটি নিয়ন্ত্রণ করা হয় কেন্দ্র থেকে৷ কখন, কোন জায়গা থেকে যাত্রী উঠছেন সেটা জানিয়ে দেন ক্যাব চালক৷ আর মিটার থেকে বিল প্রিন্ট করে দেয়া হয় যাত্রীকে৷

ফোনে পাওয়া যায়, কিন্তু...

হলুদ এই ট্যাক্সিক্যাব ফোন করেও পাওয়া যায়৷ কিন্তু সেই ব্যবস্থার এক জটিলতার কথাও বললেন মাদবর৷ ফোন করার সময় থেকে যাত্রীর কাছে পৌঁছানো পর্যন্ত এ সব ক্যাবের 'মিটার অন' করা থাকে৷ অর্থাৎ মিরপুর থেকে কেউ গাড়ি ডাকার পর সেই গাড়ি যদি ফার্মগেট থাকে, সেখান থেকে মিরপুর পর্যন্ত পৌঁছানোর বিল মোট বিলের সঙ্গে যোগ হবে৷ অনেক যাত্রী নাকি এতে ক্ষিপ্ত হন৷

ক্ষিপ্ত হওয়াটা অস্বাভাবিকও নয়৷ কেউ যদি ট্যাক্সিক্যাবে উঠেই দেখেন বিল দু'শো বা তিনশো টাকা পেরিয়ে গেছে তাহলে মেজাজ ঠান্ডা রাখবেন কীভাবে? জার্মানির ব্যবস্থা এরকম নয়৷ ট্যাক্সিক্যাব যেখান থেকেই যাত্রীর কাছে আসুক না কেন, শুধুমাত্র যাত্রী গাড়িতে ওঠার পরই সেটির ভাড়ার মিটার চালু করা হয়৷

নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন!

মনে প্রশ্ন জাগছিল, যাতায়াতের জন্য এ সব ক্যাব কতটা নিরাপদ? চুরি, ছিনতাইয়ের আশঙ্কাই বা কতটা? খোকন মাদবরই কথা প্রসঙ্গে তা জানিয়ে দিলেন৷ এয়ারপোর্ট রেল স্টেশনে নাকি এরকম একটি ট্রাস্ট ক্যাবকে নিয়ম থাকা সত্ত্বেও দাঁড়াতে দিচ্ছিল না এক ট্রাফিক পুলিশ৷ ক্যাব চালক সেকথা ‘ট্রাস্ট ট্রান্সপোর্ট সার্ভিসেস'-এর নিয়ন্ত্রণ কক্ষে জানানোর কয়েক মিনিটের মধ্যেই সেখানে হাজির হয় ব়্যাব এবং সেনাবাহিনীর দু'টি গাড়ি৷ সেই ট্রাফিক পুলিশকে তৎক্ষণাৎ গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায় তারা৷

চালকের কাছে শোনা একথা অতরঞ্জিতই মনে হয়েছে আমার কাছে৷ তারপরও গাড়ি কোম্পানির ক্ষমতা সম্পর্কে খানিকটা ধারণা পেয়ে নড়েচড়ে বসলাম৷ এমন গাড়ির কাছে পিঠে চোর, ডাকাত, ছিনতাইকারী না আসার সম্ভাবনাই বেশি৷ আর যাত্রীদেরও সতর্কভাবে গাড়ির মধ্যে থাকা নিয়মকানুন মেনে চলা উত্তম৷

পশ্চিম রাজাবাজার হয়ে আবার মিরপুর ফিরতে সব মিলিয়ে আমার গুনতে হয়েছে এক হাজার টাকা৷ ঢাকায় নতুন এই ট্যাক্সিক্যাবের সংখ্যা একশো'র মতো৷ এর মধ্যে সেনা কল্যাণ ট্রাস্টের ক্যাব ৫০টি, আর বাকিগুলো বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ‘তমা কন্সট্রাকশন্স'-এর৷

ব্লগ: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

নির্বাচিত প্রতিবেদন