1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ড. ইউনূসের আপিল খারিজ

গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসের অপসারণের আদেশ বহাল রেখেছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ৷

default

বাংলাদেশ ব্যাংকের ওই আদেশের বিরুদ্ধে ড. ইউনূস হাইকোর্টে রিট করেছিলেন৷ রিট খারিজ হওয়ায় তিনি এর বিরুদ্ধে সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগে আপিল করেন৷ আজ আপিল বিভাগ তার আপিল খারিজ করে হাইকোর্টের আদেশ বহাল রাখে৷ ফলে ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে অপসারণে বাংলাদেশ ব্যাংকের আদেশ দেশের সর্বোচ্চ আদালতে যথাযথ প্রতিপন্ন হল৷

বাংলাদেশ ব্যাংক ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে অপসারণের আদেশ দেয় গত ২রা মার্চ৷ তাঁর চাকরির বয়স সীমা ৬০ বছর অতিক্রান্ত হওয়ায় চাকরি বিধি অনুযায়ী এ আদেশ দেয়া হয়৷ গ্রামীণ ব্যাংকে চাকরির বয়স সীমা ৬০ বছর৷ ড. ইউনূসের বয়স ৭০ বছর৷ এই আদেশের বিরুদ্ধে তিনি পরদিন ৩রা মার্চ হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন৷ আবেদনে বলা হয় গ্রামীণ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ ইউনূসকে অনির্দিষ্ট মেয়াদে নিয়োগ দিয়েছে৷ তাঁর জন্য চাকরির সাধারণ বয়স সীমা ৬০ বছর প্রযোজ্য নয়৷ দু'পক্ষের শুনানী শেষে ৮ই মার্চ হাইকোর্ট ড. ইউনূসের রিট খারিজ করে দেন৷ আদালত বাংলাদেশ ব্যাংকের আদেশকে যথাযথ উল্লেখ করে বলেন, ৬০ বছর বয়স পূর্ণ হওয়ার পর ড. ইউনূসের গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যাবস্থাপনা পরিচালকের পদে থাকার কোন বৈধতা নেই৷ ড. ইউনুস এই আদেশের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে আপিল করলে আদালত তাকে ২৯শে মার্চ পূর্ণাঙ্গ আপিলের অনুমতি দেন৷ আজ প্রধান বিচারপতি এবিএম খায়রুল হকের নেতৃত্বে সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানী শেষে ইউনুসের আপিল খারিজ করে হাইকোর্টের আদেশ বহাল রাখেন৷ রাষ্ট্র পক্ষে শুনানীতে অংশ নেন এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম৷ ড. ইউনূসের আপিলের ব্যাপারে আজ আদালত আদেশ দিলেও গ্রামীণ ব্যাংকের ৯ পরিচালকের আলাদা আপিলের শুনানী এবং আদেশ হবে আগামীকাল৷ তবে এটর্নি জেনারেল বলেন আজকের আদেশেই সব পরিষ্কার হয়েছে৷

ড. ইউনূসের পক্ষে আজ শুনানীতে অংশ নেন ড. কামাল হোসেন৷ তিনি বলেন কাল ৯ পরিচালকের আপিলের ব্যাপারে কাল আদালত আদেশ দেয়ার পর তিনি বিস্তারিত প্রতিক্রিয়া জানাবেন৷

বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে শুনানীতে অংশ নেন তৌফিক নেওয়াজ এবং আজমালুল হক৷ রায় ঘোষণার সময় ড. ইউনূস আদালতে উপস্থিত ছিলেন না৷

১৯৮৩ সাল থেকে ড. মুহাম্মদ ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক৷ তাঁর হাতে গড়া ক্ষুদ্র ঋণদানকারী এই প্রতিষ্ঠানটি বিশ্ব নন্দিত৷ ২০০৬ সালে গ্রামীণ ব্যাংক এবং ড. মুহাম্মদ ইউনূস শান্তিতে নোবেল পান৷ গ্রামীণ ব্যাংকে এখন ২০ হাজার কর্মকর্তা কর্মচারী রয়েছে৷ এই ব্যাংকের গ্রাহক প্রায় এক কোটি৷ গ্রামীণ ব্যাংক এ পর্যন্ত ৬০,৪০০ কোটি টাকা ক্ষুদ্র ঋণ হিসেবে দরিদ্র মানুষকে দিয়েছে৷

এদিকে গ্রামীণ ব্যাংকের পক্ষ থেকে আজ কোন প্রতিক্রিয়া জানান হয়নি৷ ব্যাংকের মিডিয়া সমন্বয়কারী জান্নাতই কাওনাইন ডয়চে ভেলেকে জানান, শিগগিরই তারা আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের অবস্থান ব্যাখ্যা করবেন৷

প্রতিবেদন: হারুন উর রশীদ স্বপন, ঢাকা

সম্পাদনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী