1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

ডয়চে ব্যাংকের লোকসানের প্রভাব গোটা ইউরোপে

সপ্তাহের শুরুতেই ইউরোপের পুঁজিবাজারে একটা চমকপ্রদ ঘটনা ঘটে৷ জার্মানির বৃহত্তম ব্যাংক ডয়চে ব্যাংক সোমবার ঘোষণা করে, তারা গত বছরের শেষ ভাগে প্রায় ৪ শতাংশ লোকসান করেছে৷ এই ঘোষণা ইউরোপের পুঁজিবাজারের ওপর বিরাট প্রভাব ফেলে৷

শুধু তাই নয়৷ এর ওপর যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াল স্ট্রিট মঙ্গলবার বন্ধ থাকায় স্বাভাবিকভাবেই ডাক্সসহ ইউরোপের অন্যান্য শেয়ারগুলির সূচকও বেশ নীচের দিকে নেমে যায়৷ ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক মঙ্গলবার জানায় যে, ইউরোর বিনিময় মূল্যের ওপরও ডয়চে ব্যাংকের এই লোকসান একটা প্রভাব ফেলেছে এবং পরবর্তীতেও ইউরো অঞ্চলের ওপর এর একটা পরোক্ষ প্রভাব থাকতে পারে৷ জানা গেছে, গত ছয় সপ্তাহের মধ্যে ইউরোর বিনিময় মূল্য সোমবার সবচেয়ে নীচে নেমে যায়৷

এই লোকসানের মূল কারণ

এর প্রধান কারণ জার্মানির নতুন মন্ত্রীসভায় পরিবর্তন এবং তার পুনর্গঠন৷ ডয়চে ব্যাংকের অন্যতম প্রধান কর্মকর্তা ইয়ুর্গেন ফিচশেন জানান, ২০১৪ সালেও রাজনীতি জগতে নানা পরিবর্তন এবং ব্যাংকের অভ্যন্তরীণ নীতি-নির্ধারকদের মধ্যে অদলবদলের কারণে আরো বড় রকমের চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে পারে ব্যাংকটি৷ তবে ২০০৭ সালে আর্থিক সংকট শুরু হওয়ার পর থেকে এমন বেশ কিছু চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছে ডয়চে ব্যাংক, পরিস্থিতি সামালও দিয়েছে৷ তাই চিন্তার কারণ নেই বলেই আশ্বস্ত করেছেন ইয়ুর্গেন ফিচশেন৷

Graffiti Deutsche Bank Frankfurt am Main

আরো বড় রকমের চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে পারে ডয়চে ব্যাংক

লাভ হয়েছে ব্রিটেনের

জার্মান ব্যাংকটির এই লোকসানের ফলে শেয়ার বাজারে বেশ ভালো অবস্থায় উঠে এসেছে যুক্তরাজ্যের শেয়ার সূচক৷ ২০১৩ সালের শেষ তিন মাসে রয়েল ব্যাংক অফ স্কটল্যান্ড এবং বার্কলে ব্যাংকের শেয়ার প্রায় ১.৩ শতাংশ উপরে উঠেছে৷ এছাড়া, এই লোকসানের পরও ইউরোজোনে সার্বিকভাবে অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নতিই হয়েছে৷ তাই এই এলাকার বন্ড কেনার প্রতি আস্থা বাড়ছে বিনিয়োগকারীদের৷ ফলে ইউরোজোনের বেইলআউটপ্রাপ্ত দেশ স্পেন, ইটালি, পর্তুগাল ও আয়ারল্যান্ডের ইস্যু করা বন্ড এখন সংকটের আগের হারেই লেনদেন হচ্ছে৷

পজোর শেয়ারে দরপতন

ওদিকে সোমবারই ইউরোপের দ্বিতীয় বৃহত্তম গাড়ি নির্মাতা সংস্থা পজো ঘোষণা করেছে যে, তাদের শেয়ার সূচক প্রায় ৪.৯ শতাংশ হারে কমেছে৷ শোনা যাচ্ছে, গত বছর, মানে ২০১৩ সালে তাদের গাড়ি বিক্রির পরিমাণ ২.৮২ মিলিয়ন কমে যাওয়ার ফলেই শেয়ার সূচকে এই ধস নেমেছে৷ তবে পজোর খারাপ সময়টা আরো আগেই শুরু হয়েছে, তিন বছর ধরে বিশ্বে পজো গাড়ি বিক্রির হার কমছে৷

ডিজি/এসিবি (এএফপি, রয়টার্স, এপি, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন