1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ড্রোন জগতে নজর কাড়ে মাইক্রোকপ্টার

ড্রোনের ব্যবহার বেড়ে চলেছে৷ তাতে ক্যামেরা বসিয়ে আকাশ থেকে অসাধারণ ছবি, ভিডিও তোলার প্রবণতাও বাড়ছে৷ জার্মানির দুই ইঞ্জিনিয়ার বিশেষ শক্তিশালী ড্রোন তৈরি করে নতুন বাজার দখল করছেন৷

হলগার বুস ও ইঙ্গো বুসকার পেশায় ইঞ্জিনিয়ার৷ তাঁরা রোটর বা পাখা দেখে অনুপ্রেরণা পান৷ তাঁরা দুজনে মিলে সর্বাধুনিক বায়ুশক্তিচালিত জ্বালানি কেন্দ্র তৈরি করেছেন৷ কিন্তু তাতেও তাঁদের আশ মেটেনি৷ কয়েক বছরের প্রচেষ্টার পর তাঁরা একেবারে নতুন এক পণ্য তৈরি করে বাজার দখল করতে চাইছেন৷

এই দুই উদ্ভাবক রোটর ত্যাগ করেননি৷ তাঁরা ছোট আকারের হেলিকপ্টার তৈরি করছেন, যেগুলির আটটি পর্যন্ত রোটর রয়েছে৷ সেই মাইক্রোকপ্টারের মধ্যে অত্যন্ত জটিল ইলেকট্রনিক যন্ত্রপাতি বসানো আছে৷ ৩০০ মিটার উচ্চতায় পৌঁছতে পারে সেটি৷ ফলে হুহু করে বিক্রি হচ্ছে৷ হলগার বুস বলেন, ‘‘প্রথমে বেশ কিছুকাল ধরে শখ মেটাতেই কাজ করেছি৷ কাজের ফলাফল ও ভিডিও ইন্টারনেটে প্রকাশ করার পর বিশাল মাত্রায় আগ্রহ দেখা গেল৷ তাছাড়া এমন যন্ত্র কেনার বড় চাহিদাও স্পষ্ট হয়ে গেল৷ কিছু গ্রাহক আবার নিজেরাই এমন যন্ত্র তৈরি করতে চান৷ তারপর আমরা যন্ত্রাংশ বিক্রি শুরু করলাম৷ সেই কাজে সাফল্যের পর এভাবে ধীরে ধীরে সম্প্রসারণ শুরু হলো৷''

মাইক্রোকপ্টার উড়ালের জন্য প্রস্তুত৷ তাতে বসানো ক্যামেরার সাহায্যে আকাশ থেকে নতুন দৃশ্য দেখা যায়৷ এমন ছোট ক্যামেরা-ড্রোন চটজলদি নানা কাজে সর্বত্র ব্যবহার করা যায়৷ প্রত্নতত্ত্বের কাজ থেকে শুরু করে ক্ষয়ক্ষতির বিশ্লেষণ, দুর্গম এলাকায় গবেষণা – কী না আছে সেই তালিকায়!

মাইক্রোকপ্টার শুধু প্রাপ্তবয়স্কদের খেলনা নয়, জটিল ইলেকট্রনিক যন্ত্রে ভরা৷ দূর থেকে সেটি নিরাপদে নিয়ন্ত্রণ নিশ্চিত করতে হয়৷ জোরালো বাতাস সত্ত্বেও ওড়ার সময় স্বয়ংক্রিয় প্রক্রিয়ায় স্থিতিশীল ছবি তোলা সম্ভব করতে হয়৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়