1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ডোনাল্ড ট্রাম্পের আদিপুরুষদের বাস ছিল জার্মানিতে

রাইনল্যান্ড প্যালেটিনেটের কালস্টাট গ্রামে আজ মাত্র বারোশ' মানুষের বাস৷ প্রথাগতভাবে ওয়াইন তৈরির জায়গা৷ কি ভাবেন এখানকার মানুষ সুদূর মার্কিন মুলুকে রিপাবলিকানদের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী সম্পর্কে?

কালস্টাট গ্রামের ওয়েবসাইটে গেলে দেখতে পাবেন, সারা গ্রামটা নানা ধরনের ওয়াইন সেলার আর ওয়াইন স্যাম্পলিং রুমে ভর্তি৷ নামগুলো সব পুরনো জার্মান কায়দার: ‘‘ওয়াইনক্যাবিনেট'' কিংবা ‘‘সুম বাখুস''৷ স্থানীয় বাসিন্দা বা আন্তর্জাতিক পর্যটক, কালস্টাটে সকলেরই প্রিয় পানীয় হলো ওয়াইন৷ গ্রামের যতো বাসিন্দা, তার দ্বিগুণ ওয়াইন টেস্টিং-এর সিট আছে, বলে স্থানীয়েরা গর্ব করে থাকেন৷

টুরিস্ট কিংবা কৌতূহলী সাংবাদিক, যে-ই কালস্টাটে খোঁজখবর করতে যান না কেন, তাঁর প্রথম মোলাকাত হবে কালস্টাট পরিবহণ সমিতির গ্যুন্থার আন্থন-এর সঙ্গে৷ অবশ্য আন্থন স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে এই সব খোঁজখবর দিয়ে থাকেন৷ ট্রাম্প বা জার্মানে ‘ট্রুম্প' নামটি প্যালেটিনেট এলাকা ও বাভারিয়ায় খুবই প্রচলিত, বলে জানালেন আন্থন৷ তবে ‘মায়ার' বা ‘ম্যুলার'-এর মতো, এ নাম থাকার মানে এই নয় যে, সব ট্রাম্প বা ট্রুম্প-রাই পরস্পরের আত্মীয়৷

ট্রাম্প সম্পর্কে কেউ মুখ খুলতে রাজি নন

কালস্টাট গ্রামে আজ ট্রাম্প বা ট্রুম্প নামের কেই নেই৷ তবে অনেকেরই নাকি ট্রাম্পের সঙ্গে অতীতে রক্তের সম্পর্ক অর্থাৎ যৌথ পূর্বপুরুষ ছিল৷ স্থানীয় টেলিফোন বুক ঘাঁটলে দেখা যাবে, কালস্টাটের আশেপাশে ডজনখানেক ‘ট্রুম্প' আছেন৷ কিন্তু এই ওয়াইন তৈরির গ্রামাঞ্চলে কেউই প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীকে নিয়ে কথা বলতে রাজি নন৷ দশ-বারো বার টেলিফোন করার পর বোঝা গেল, প্যালেটিনেট অঞ্চলের ট্রুম্প-রা মার্কিন মুলুকে তাদের দূর সম্পর্কের আত্মীয়ের বিষয়ে প্রশ্নের উত্তর দিতে দিতে তিতিবিরক্ত হয়ে উঠেছেন৷ তারা এখন শুধু শান্তি চান৷

সমস্যাটা সম্ভবত একটু আলাদা: স্থানীয় বাসিন্দারা ডোনাল্ড ট্রাম্প সম্পর্কে কি ভাবছেন বা বলছেন, তাই নিয়ে যখন কথা চলেছে, তখন এক মাঝবয়সি মিস্টার ট্রুম্প বললেন, ‘‘তারা সত্যিই কি ভাবছে, কেউই তা বলার সাহস পাচ্ছে না৷ সেটাই হলো সমস্যা৷ অন্তত প্রকাশ্যে নয়৷ বন্ধ দরজার পেছনে কি বলা হচ্ছে, সে আরেক কথা৷'' তবে ডোনাল্ড ট্রাম্প দৃশ্যত কালস্টাটের বাসিন্দাদের একটি বৈশিষ্ট্য পেয়েছেন: ‘‘আমরা আমাদের মনোভাব জোরগলায় প্রকাশ করতে ভালোবাসি'', বললেন কালস্টাটের এক অধিবাসী৷

কালস্টাটে #ড্রাম্ফ বলে কেউ নেই

লাস্ট উইক টুনাইট শো-র কমেডিয়ান জন অলিভার-এর সূচিত হ্যাশট্যাগটিকে ঘিরে সারা দুনিয়ায় যে হাইপ চলেছে, তা বোঝার ক্ষমতা কালস্টাটে কারো নেই৷ ডোনাল্ড ট্রাম্পের পিতামহ ১৮৮৫ সালে মার্কিন মুলুকে যাত্রা করেন, অভিবাসী হিসেবে৷ তখন তাঁর বয়স ছিল ১৬ – কিন্তু তাঁর নাম ‘ড্রাম্ফ' ছিল না৷ বংশের আদিনাম হলেও, ড্রাম্ফ নামটি নেপোলিয়নের আমলে, অর্থাৎ ঊনবিংশ শতাব্দী শুরু হওয়ার সময় বদলে ‘ট্রুম্প' করে নেওয়া হয়েছিল৷

সব মিলিয়ে দেখা গেল, কালস্টাটের মানুষজন ডোনাল্ড ট্রাম্পকে নিয়ে আদিখ্যেতা করতে রাজি নন, অন্তত আপাতত নন৷ ট্রাম্প রিপাবলিকানদের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হলে....এমনকি পরে প্রেসিডেন্ট হলে (!?)....তখন না হয় আরেকবার জিগ্যেস করে নেওয়া যাবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন