1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

ডিপ্রেশনের ওষুধের ওপর নির্ভরশীল ধনী দেশের মানুষ

আগের চেয়ে এখন অনেক বেশি মানুষ ডিপ্রেশন প্রতিষেধক ওষুধ ‘অ্যন্টিডিপ্রেসেন্ট'-এর দিকে ঝুঁকে পড়ছে৷ ওইসিডি-র তথ্য অনুযায়ী গত ১০ বছরে এই সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে৷ তবে এই ওষুধের কার্যকারিতা প্রশ্ন সাপেক্ষ৷

পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া কম নয়

জার্মানির সাইকিয়াট্রিক অ্যাসোসিয়েশন বিপিই-র মাটিয়াস সাইবট ডয়চে ভেলেকে জানান, ডিপ্রেশনের ওষুধ, অ্যন্টিডিপ্রেসেন্ট বন্ধ করে দিলে দেখা দিতে নানা ধরনের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া৷ বিপর্যস্ততা, মাথা ব্যথা, পেটের গোলমাল ইত্যাদি৷ এই তালিকাটা আরো দীর্ঘ হতে পারে৷ অদ্ভুত হলেও লক্ষ্য করা গেছে, নতুন এক ধরনের ওষুধ আত্মহত্যার ঝুঁকি বরং বাড়িয়ে দেয়৷ এ সব বিষয়ে গবেষকদের মধ্যে জোরে শোরে আলাপ-আলোচনা চলছে৷ কিন্তু তা সত্ত্বেও খুব বেশি চিন্তা ভাবনা না করেই স্মার্টিস-এর মতো ডিপ্রেশনের ওষুধের প্রেসক্রিপশন দেওয়া হচ্ছে৷ অনেক ক্ষেত্রে মানসিক রোগের চিকিৎসকরাই এই ‘মাদক' ধরনের ওষুধের অপব্যবহার করে থাকেন৷ ফার্মাসিউটিক্যাল প্রতিষ্ঠানগুলি তাদের লাভের লোভ অনেক সময় সামলাতে পারে না বলেই এই সব ওষুধের এত বিস্তৃতি ঘটছে৷ এর সাথে যুক্ত হয়েছে কিছু চিকিৎসকের উৎকোচ গ্রহণের প্রবণতা৷ মনে করেন সাইবট৷

বেড়ে চলেছে ওষুধের ব্যবহার

অ্যন্টিডিপ্রেসেন্ট বিরোধী সংগঠনের সঙ্গে জড়িত সাইবট-এর ধারণা যে সঠিক, সেটা বোঝা যায় প্রেসক্রিপশনsর সংখ্যা দেখে৷ অর্গানাইজেশন ফর ইকনমিক কোঅপারেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট, সংক্ষেপে ওইসিডি-এর তথ্য মতে এই ওষুধের ব্যবহার দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে৷ এমনকি গত ১০ বছরে ওইসিডিভুক্ত দেশগুলিতে এই হার দ্বিগুণ হয়েছে৷

Treppenstraße in Kassel 04.10.2013

ডিপ্রেশনের ওষুধ, অ্যন্টিডিপ্রেসেন্ট বন্ধ করে দিলে নানা ধরনের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা দিতে

জার্মানিতেও অ্যন্টিডিপ্রেসেন্ট-এর ব্যবহার বেড়েছে৷ অবশ্য ওইসিডি দেশগুলির গড় হারের চেয়ে কিছুটা কম৷ এক্ষেত্রে শীর্ষ স্থানে রয়েছে আইসল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া ও ক্যানাডা৷ ২০১১ সালে আইসল্যান্ডের ১০ শতাংশ মানুষ মেজাজ প্রফুল্ল রাখার ওষুধ সেবন করেছেন৷ ২০০০ সালে এই হার ছিল ৭ শতাংশ৷ বিশ্বব্যাপী আনুমানিক ৩৫০ মিলিয়নের মতো মানুষ ডিপ্রেশন বা মানসিক অবসাদে ভুগছে৷

রোগীকে দ্রুত শনাক্ত করা সম্ভব

ডিপ্রেশন প্রতিষেধক ওষুধের ব্যবহারের বৃদ্ধি পাওয়ার বহু কারণ রয়েছে: ‘‘এর মূল কারণ ডিপ্রেশন রোগটিকে দ্রুত ও স্পষ্টভাবে শনাক্ত করা সম্ভব হচ্ছে৷'' বলেন জার্মানির সাইকিয়াট্রিক অ্যাসোসিয়েশন-এর প্রধান ক্রিস্টা রোথ সাকেনহাইম৷

দক্ষিণ ইউরোপে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে অনিশ্চিয়তার কারণে ডিপ্রেশনের ওষুধের চাহিদা বেড়েছে৷ বিশেষ করে স্পেন ও পর্তুগালে এই হার ২০ শতাংশ বেড়েছে৷ এছাড়া ওষুধের ক্ষেত্রটাও বেড়েছে৷ আগে অ্যন্টিডিপ্রেসেন্ট শুধু ডিপ্রেশন দমনের জন্য দেওয়া হতো৷ কিন্তু এখন ক্রনিক ব্যথা কিংবা আতঙ্কের কারণেও দেওয়া হয়ে থাকে এই ওষুধ৷

প্রোজাক এবং এই জাতীয় ওষুধের কার্যকারিতা নিয়েও যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে৷ কয়েক বছর আগের বিভিন্ন সমীক্ষা থেকে জানা গেছে হালকা ডিপ্রেশনের ক্ষেত্রে প্লাসিবোর চেয়ে ভালো কাজ করে না এই ওষুধ৷ ‘নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অফ মেডিসিন'-এ সমালোচনা করে বলা হয়েছে, অ্যান্টিডিপ্রেসেন্ট সংক্রান্ত তিন ভাগের এক ভাগ সমীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয়নি৷ এর অর্থ এই সব ওষুধের সম্ভাব্য বিপদ ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া গোপন রাখার চেষ্টা করা হয়েছে৷

সঠিক প্রতিক্রিয়া জানা নেই

মানসিক চিকিৎসক রোথ-সাকেনহাইম বলেন, ‘‘দুঃখজনক হলো একজন এই ওষুধ খেলে তার প্রতিক্রিয়া কেমন হবে, সেটা জানার জন্য আমাদের কাছে নির্ভরযোগ্য কোনো পূর্বাভাষ সিস্টেম নেই৷''

তবে সাধারণত এই সব ওষুধ সেবন করলে রোগী আবার আগের অবস্থায় ফিরতে পারেন৷ অর্থাৎ দৈনন্দিন জীবনে আবার সক্রিয়ভাবে অংশ গ্রহণ করতে পারেন৷ যারা কঠিন ডিপ্রেশনের কবলে পড়েন, তাঁরা যে কোনো উপায়েই এর হাত থেকে উদ্ধার পেতে চান৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়