1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

ডিডাব্লিউ-র ‘প্ল্যান বি’ লুফে নিল গ্রিমে পুরস্কার

পাঁচটি দেশের দশজন শিক্ষানবিশ সাংবাদিক৷ প্রশ্ন একটাই: ইউরো সংকট মোকাবিলায় কী করছে তরুণ প্রজন্ম? ডয়চে ভেলের ‘প্ল্যান বি’ মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টটা এ প্রশ্নেরই জুতসই উত্তর দিয়ে ছিনিয়ে নিয়েছে এ বছরের ‘গ্রিমে অনলাইন পুরস্কার’৷

অ্যামেরিকা-ইউরোপের আকাশে আর্থিক মন্দার কালো মেঘ৷ আর এই বৈশ্বিক মন্দার প্রভাব ইউরোপের দক্ষিণাঞ্চলের দেশগুলিতেই বেশি প্রকোপ৷ দেউলিয়া হয়ে যাওয়া গ্রিস তো বটেই, ধীরে ধীরে অর্থ ভাণ্ডারে টান পড়েছে স্পেন, পর্তুগাল, ইটালি, আয়ারল্যান্ডসহ আরো কয়েকটি দেশের৷

বলা বাহুল্য, এই অর্থনৈতিক মন্দায় সবচেয়ে বেশি ভুক্তভোগী ইউরোপের তরুণ প্রজন্ম৷ আর্থিক মন্দার কারণে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে তরুণদের বেকারত্বের হার ক্রমশ বেড়েই চলেছে৷ ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলিতে আজ প্রায় ৫০ শতাংশ তরুণ-তরুণীর কোনো কাজ নেই৷ ফলে লেখাপড়ার পর চাকরি না পেয়ে তারা বাধ্য হচ্ছে সীমাহীন ‘ইন্টার্নশিপ'-এ জড়িয়ে পড়তে৷ তৈরি হচ্ছে একটা নতুন প্রজন্ম – ‘ইন্টার্নশিপ জেনারেশন'৷

দেউলিয়া হয়ে যাওয়া গ্রিস তো বটেই, ধীরে ধীরে অর্থ ভাণ্ডারে টান পড়েছে স্পেন, পর্তুগাল, ইটালি, আয়ারল্যান্ডসহ আরো কয়েকটি দেশের৷

পর্তুগালের বেকারত্ব এভাবে তুলে ধরা হয়েছে ‘প্ল্যান বি’ প্রকল্পে

কিন্তু কীভাবে এ অবস্থার মোকাবিলা করছে তারা? কী ধরনের পরিকল্পনা, ভবিষ্যৎ অপেক্ষা করছে তাদের জন্য? ডয়চে ভেলে বা ডিডাব্লিউ-এর ‘প্ল্যান বি' মাল্টিমিডিয়া প্রোজেক্ট দিয়েছে এ প্রশ্নেরই উত্তর৷ কীভাবে এই হারিয়ে যেতে বসা তরুণ প্রজন্ম নিজেই নিজেদের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা, স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে পারবে – তারই একটা হদিশ দিয়েছে এই প্রকল্প, জুগিয়েছে সাহস৷

গত ২১শে জুন বিশ্বখ্যাত ‘গ্রিমে ইনস্টিটিউট' তাদের ‘জ্ঞান এবং শিক্ষা' ক্যাটাগরিতে ‘গ্রিমে অনলাইন পুরস্কার'-টির জন্য মনোনীত করেছে ‘প্ল্যান বি'-কে৷ বিচারকদের কথায়, ‘‘আর্থিক মন্দার কালো আকাশে এক ঝলক হালকা বাতাস এসে দিয়েছে প্ল্যান বি''৷

হবে না? ‘প্ল্যান বি' যে কঠিন একটা সমস্যাকে খুব সহজ ভাষায়, খুব আন্তরিকভাবে তুলে ধরেছে৷ মাল্টিমিডিয়াভিত্তিক এই প্রজেক্টটাতে একদিকে যেমন জায়গা পেয়েছে ঐ পাঁচটি দেশের নানা মানুষের সাক্ষাৎকার, তেমনই ছোট্ট ছোট্ট রিপোর্ট দিয়ে সমস্যার সমাধানও তুলে ধরা হয়েছে সেখানে৷ ‘সাউন্ডট্র্যাক অফ দ্য ক্রাইসিস' এবং ‘পোস্টকার্ড অফ দ্য ফিউচার' – এই দুটি ‘এলিমেন্ট'-এর মাধ্যমে কথা ও ছবি দিয়ে মানুষের আবেগকে ছোঁয়া হয়েছে৷ দেয়া হয়েছে আর্থিক সংকট সম্পর্কে একটা স্বচ্ছ ধারণা৷

ডয়চে ভেলের মহাপরিচালক এরিক বেটারমান উচ্ছ্বসিত কণ্ঠে সাধুবাদ দিয়েছেন ‘প্ল্যান বি'-র পেছনে যে দশজন শিক্ষানবিশ সাংবাদিক, থুড়ি ‘ইনটার্ন' ছিল, তাদের৷ বলেছেন, ‘‘প্ল্যান বি আদতেই মাল্টিমিডিয়া প্রোজেক্ট হিসেবে সার্থক৷ এটা যেমন ‘মাল্টিলিংগুয়াল', তেমন ‘মাল্টিফ্যাসেটেড' – অর্থাৎ, নানা ভাষা ও মানুষের সমন্বয়ে যথার্থ অর্থে ‘মাল্টি-মিডিয়াল'৷

আসলেই তো! ‘ইন্টার্নশিপ জেনারেশন'-এর এই দশজন ‘ইনটার্ন'-ই যে ‘গ্রিমে অনলাইন পুরস্কার'-এর মতো সম্মান এনে দিয়েছে ডিডাব্লিউ-কে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন