1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

পাঠক ভাবনা

‘ডিডাব্লিউর ওয়েবসাইট-এ অনেক তথ্য থাকে’

প্রতিদিন কাজের মাঝে ওয়েবসাইট খুলে দেখি কোনো নতুন প্রতিবেদন আছে কিনা৷ থাকলে তখনই পড়ে নিই৷ কখনো মনে প্রশ্ন জাগে, রেডিও সম্প্রচার বন্ধ হয়ে যাওয়াতে কি ডয়চে ভেলের ওয়েবসাইটের পাঠকের সংখ্যা কমে গেল?

এই বহুমুখী উপযোগিতার অনন্য সুন্দর ওয়েবসাইটকে অগণিত মানুষের কাছে পরিচিত করতে ডয়চে ভেলের সাথে আমাদের মতো পাঠকদেরও সক্রিয় হতে হবে৷ না পারলে যে আমাদেরই ব্যর্থতা৷ ওয়েবসাইটের পাঠকদের সম্পর্কে একটা ধারণা পেতে হলে ডয়চে ভেলের উদ্যোগে একটি অনলাইন সমীক্ষার পরিকল্পনার কথা কি ভেবে দেখা যেতে পারে না? সুভাষ চক্রবর্তী, নতুন দিল্লী থেকে লিখেছেন৷

তিনি আরো লিখেছেন ওয়েবসাইট খুলেই পড়ে নিলাম ‘ওয়ার্ল্ড প্রেস ফ্রিডম ডে'– ‘বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস' সম্পর্কিত সুন্দর একটি প্রতিবেদন যাঁর মূল উদ্দেশ্য হল মুক্ত গণমাধ্যমের লক্ষ্যে যথোচিত পদক্ষেপ নেওয়া ও উত্সাহ জাগিয়ে তোলা আর বিশ্বব্যাপী মুক্ত গণমাধ্যমের পরিস্থিতি খতিয়ে দেখা৷ সরকার ও সমাজের সকল শ্রেণির মানুষকে সাংবাদিকদের কাজের জন্য সুস্থ পরিবেশ দেওয়ার প্রতি সচেষ্ট হতে হবে, দিতে হবে যথাযথ নিরাপত্তা৷ আর অবশ্যই স্মরণ করতে হবে সেই সকল সাংবাদিকদের, যাঁরা তাঁদের পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে জীবনকে উত্সর্গ করে গেছেন৷ অসামান্য সাহস ও মত প্রকাশের স্বাধীনতার প্রতি দায়বদ্ধতার জন্য কারাগারে বন্দী ইথিওপিয়ার নারী সাংবাদিক রিয়ত আলেমুর ২০১৩ সালের বিশ্ব গণমাধ্যম পুরস্কার প্রাপ্তির জন্য রইলো অভিনন্দন৷

ঢাকা সেনানিবাস থেকে জানিয়েছেন মো. সোহেল রানা হৃদয় ‘জার্মানির বাগানে বাংলাদেশের গাছ' শীর্ষক ছবিঘরটি দেখে বেশ ভাল লাগলো৷ লাল সবুজ দেখলেই মনটা ভরে যায়৷ থাক এখানে হিংসা-বিদ্বেষ, মারামারি আর কলহ, তবুও আমার বলে কথা... ধন্যবাদ ডয়চে ভেলেকে৷

সুদর্শন ব্যানার্জী লিখেছেন, আমার কাকা সুহৃৎ ব্যানার্জীর কাছে অন্বেষণ অনুষ্ঠানটির কথা শুনলাম, দেখে খুব ভালো লাগলো৷ আমি উড়িষ্যার পুরিতে থাকি৷ তাই আমাকে প্রতি সপ্তাহে অনুষ্ঠানটি ই-মেল করে পাঠালে বাঁধিত হবো৷

-আপনার আগ্রহের জন্য অনেক ধন্যবাদ৷ আমাদের ওয়েবসাইটে প্রতি সপ্তাহের ‘অন্বেষণ' নিয়মিত দেয়া হচ্ছে, আপনি সেখানে ক্লিক করলেই দেখতে পাবেন৷ আগামীতে বিস্তারিত মতামত জানালে ভালো লাগবে৷

সার্ক দেশগুলির মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসারে এক অভিন্ন মুদ্রা ব্যবস্থার প্রস্তাব দিয়েছেন বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত৷ অন্ততপক্ষে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে এই মুদ্রা চালুর প্রস্তাব করেন তিনি৷

ভারত সফরে এসে ভারতীয় শিল্প মহাসংঘের আয়োজিত ‘ব্যবসা ও বিনিয়োগের মাধ্যমে উপ-আঞ্চলিক উন্নয়নে গতি সঞ্চার' শীর্ষক এক আলোচনাচক্রে বক্তব্য রাখার সময় তিনি এই মন্তব্য করেন, এই প্রতিবেদনটি ভাল লাগলো তবে এটা কি সম্ভব হবে? মো. আবদুল্লাহ, উথালী বাজার, চুয়াডাঙ্গা৷

-ধন্যবাদ সবাইকে, আবারো লিখবেন বন্ধুরা, কেমন৷

সংকলন: নুরুননাহার সাত্তার

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

নির্বাচিত প্রতিবেদন