1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

‘ডিজিটাল’ প্রদর্শনীতে তারুণ্যের জমজমাট উপস্থিতি

বাংলাদেশে কম্পিউটার মেলার শুরুটা নতুন নয়৷ সেই ১৯৯৩ সালে বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি শুরু করে বাৎসরিক প্রযুক্তি'র আসর৷ সেখান থেকে গুটি গুটি পায়ে আজকের ‘বিসিএস আইসিটি ওয়ার্ল্ড ২০১০'৷

Computer, Games, Convention, বিসিএস আইসিটি ওয়ার্ল্ড ২০১০, কম্পিউটার, মেলা, বাংলাদেশ, মোস্তফা জব্বার, ডেস্কটপ, ল্যাপটপ,

কম্পিউটারের প্রতি আগ্রহের কমতি নেই কোথাও (ফাইল ছবি)

গত ১৭ বছরে এই আয়োজনের পরিধি যেমন বেড়েছে, তেমনি বেড়েছে মানুষের আগ্রহ৷ বেড়েছে ক্রেতার ভিড়৷ ৩০ অক্টোবর থেকে ২ নভেম্বর ঢাকার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সেমিনার কেন্দ্রটিতে বসেছিল তাই তারুণ্যের মিলনমেলা৷

তরুণ প্রজন্মের মেলা

এই দেখুন না, মেলা থেকেই কিনতে হবে ল্যাপটপ৷ তাই, সুদূর সুনামগঞ্জ থেকে ঢাকায় হাজির দুই ভাই, রাকিব আর রাজন৷ জানালেন, ডেস্কটপ আর নয়, এবার ল্যাপটপ চাই৷ মেলা ঘুরে অবশ্য শেষমেষ নেটবুকই কিনলেন রাজন৷ তাঁর কথায়, এটি আকারে বেশ ছোট৷ আমার কাজে লেগে যাবে৷

সঙ্গে একটা ইন্টারনেট সংযোগ নিয়ে নিলে হতো না? এমন প্রশ্নে রাজনের যুতসই উত্তর, মোবাইলে ইন্টারনেট আছে, সেটাকেই নেটবুকে জুড়ে দেবো৷ সাবাস, এই না হলে নতুন প্রজন্ম! এমন প্রযুক্তিপ্রেমীর সংখ্যা কিন্তু মেলা প্রাঙ্গণে একান্ত কম ছিল না৷ আর তাদের মধ্যে তরুণের সংখ্যাই বেশি৷ বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি'র সভাপতি মোস্তফা জব্বার এই বিষয়ে জানান, আনুমানিক প্রায় ২ লাখ মানুষ এসেছিল এবারের মেলায়৷

নতুন প্রযুক্তির ছড়াছড়ি

সাইফুল ইসলাম-এর বয়স ২২ বছর৷ বিবিএ পড়ছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে৷ মেলা ঘুরে বেশ অবাক তিনি৷ কত নতুন নতুন ইন্টারনেট প্রযুক্তির দেখা মিললো এবার৷ মেলা প্রাঙ্গণ জুড়ে ছিল ওয়াইম্যাক্স, ওয়াইফাই ইন্টারনেটের ছড়াছড়ি৷ ছিল ইন্টারনেট রেডিও, ইন্টারনেট গেমস আর আইপি টেলিভিশনের জমজমাট উপস্থিতি৷ সাইফুল ইসলাম অবশ্য বাড়ি ফিরে গেছেন কিছু না কিনেই৷ তাঁর কথায়, সর্বশেষ প্রযুক্তি পণ্য দেখতেই এসেছিলাম মেলায়৷ ডিজিটাল বাংলাদেশ কি সেটার খানিকটা পরিচয় মিলেছে এখান থেকে৷

ডিজিটাল বাংলাদেশ

এবারকার তথ্য প্রযুক্তি মেলার শিরোনামও, ‘নতুন প্রজন্মের জন্য ডিজিটাল বাংলাদেশ৷' ২০২১ সালের মধ্যে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে চায় সরকার৷ সেই চেষ্টায় সামিল বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি৷ মেলা চলাকালে তাই ডিজিটাল বাংলাদেশ নিয়ে ছিল নানা সেমিনার, জ্ঞানগর্ভ আলোচনা৷ তরুণ প্রজন্মের মাঝে ডিজিটাল সচেতনতা গড়াই কি এবারের মেলার উদ্দেশ্য? মোস্তফা জব্বারের কথায়, বুঝতেই পারছেন, বর্তমান সরকার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার পরিকল্পনা করেছে৷ আর বিসিএস আগে থেকেই সে চেষ্টায় শরিক৷

মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘দেশকে ডিজিটাল করতে হলে আগে দেশের মানুষকে ডিজিটাল পণ্যের সাথে পরিচয় করাতে হবে৷ এ ধরনের তথ্যপ্রযুক্তি মেলা দেশের সব শ্রেণীর মানুষকে ডিজিটাল পণ্যের সাথে পরিচয় করিয়ে দেবে৷'

ল্যাপটপ যুগ

সে যাই হোক, এবারকার মেলায় একটা বিষয় কিন্তু বেশ লক্ষণীয়৷ প্রযুক্তি পণ্য বিক্রেতাদের মূল নজরটা ছিল ল্যাপটপ, নোটবুকের দিকে৷ অন্তত যারা এই মেলায় অংশ নিয়েছে, সংখ্যার হিসেবে ৬৯টি স্টল আর ২৬টি প্যাভিলিয়নের অধিকাংশেই ছিল ল্যাপটপ, নেটবুকের আধিক্য৷ ডেস্কটপের চেহারা দেখা যায়নি তেমন একটা৷ বিসিএস সভাপতি স্বীকার করে নিলেন সে কথা৷ তিনি বলেন, ২০১০ সালে বাংলাদেশে ল্যাপটপের বিক্রি বেড়েছে পাঁচগুন৷ আমাদের মেলা থেকেও প্রচুর ল্যাপটপ বিক্রি হয়েছে৷ ডেস্কটপতো এবার তেমন একটা দেখাই যায়নি৷

ভেন্যু সংকট

জার্মানির নানা শহরে প্রায়ই আয়োজন করা হয় মেলার৷ হানোফারের কম্পিউটার প্রযুক্তি মেলা বিশ্বের সবচেয়ে বড়৷ এই মেলার এক প্যাভিলিয়ন থেকে অন্যটিতে যেতে প্রয়োজন পড়ে গাড়ি৷ এমন মেলার সঙ্গে বাংলাদেশের প্রযুক্তি মেলার তুলনা করা বাহুল্য৷ কিন্তু তারপরও ঢাকার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সেমিনার কেন্দ্রটিকে প্রযুক্তি মেলার জন্য পর্যাপ্ত মনে করেননি অনেকে৷ এদেরই একজন, মোহাম্মদপুরের মিথিলা মাহবুব৷ তিনি বলেন, মেলা প্রাঙ্গণ আরেকটু খোলামেলা হলে ভালো হতো৷ তবে, এমন আয়োজনেও সন্তুষ্ট তিনি৷

মেলার আয়োজক কর্তৃপক্ষ অবশ্য জানিয়েছেন, ভবিষ্যতে আরো বড় পরিসরে মেলার আয়োজন করতে চান তারা৷ এজন্য সরকারের সহযোগিতা প্রয়োজন৷ কেননা, মেলার জন্য বড়সড় জায়গার যে বড়ই সংকট বাংলাদেশে৷

প্রতিবেদন: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

নির্বাচিত প্রতিবেদন