1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

ডায়াপার ছাড়াও বাচ্চা পালন সম্ভব

পশ্চিমা বিশ্বে সন্তান লালন-পালনের এক অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে উঠেছে ডায়াপার৷ ছোট্ট শিশুটি যাতে পেচ্ছাপ করে বিছানা ভেজাতে না পারে সেজন্য এই ব্যবস্থা৷ তবে ডায়াপার কিন্তু শিশুর জন্য বিশেষ উপকারী নয়৷ তাই অনেকেই খুঁজছেন বিকল্প পথ৷

সাধারণত নিয়ন্ত্রিতভাবে পেচ্ছাপ বা হিসি করা শেখার আগ পর্যন্ত অধিকাংশ শিশুর গড়ে দুই থেকে তিন হাজার ডায়াপার ব্যবহার করতে হয়৷ তবে জার্মানির কিছু অভিভাবক ডায়াপার ছাড়াই শিশুকে বড় করার চেষ্টা করছেন৷ আশার কথা হচ্ছে, ডায়পার ছাড়াও তাঁদের সন্তানরা কিন্তু পেচ্ছাপ করে বিছানা ভেজাচ্ছে না৷

১৫ মাস বয়সি আলিসার কথাই ধরা যাক৷ তাঁর মা ফ্রেয়ার ডোনারের বয়স ৩০ বছর৷ প্রতিদিন সকালে আলিসাকে বাথরুমের টয়লেটের উপরে নিয়ে যান ডোনার৷ এরপর মুখ দিয়ে ‘লু লু' শব্দ করতে থাকলে হিসি করতে শুরু করে বাচ্চাটা৷

শুধু তাই নয়, ছোট বা বড় ‘প্রাকৃতিক কর্ম' সারার প্রয়োজন পড়লে বিভিন্ন সংকেতও দেয় আলিসা৷ এভাবেই ডায়পার ছাড়াই প্রথম সন্তান পালন করছেন ডোনার এবং তাঁর স্বামী৷

Workshop windelfrei Freya Donner mit ihre Tochter

মা ফ্রেয়ার ডোনার তাঁর ১৫ মাস বয়সি সন্তান আলিসার সঙ্গে

মজার বিষয় হচ্ছে, এমনটা শুধু তাঁরাই করছেন না৷ ফিনল্যান্ড থেকে শুরু করে ইটালি অবধি ইউরোপের অনেক দেশের অভিভাবকরাই এভাবে সন্তান পালন শুরু করেছেন৷

ফ্রেয়ার ডোনারের কাছে অবশ্য শিশুকে ডায়পার না পরানোটা মুখ্য বিষয় ছিল না৷ তিনি চিন্তিত ছিলেন তাঁর সন্তানের কান্না নিয়ে৷ ডোনার বলেন, ‘‘আলিসা খুব কাঁদতো৷ তাই তা নিয়ে ডায়পার ছাড়া শিশু পালন বিষয়ক এক বইয়ের লেখকের সঙ্গে কথা বলি আমি৷ তিনি জানান, শিশুরা কাঁদার মাধ্যমেই (অভিভাবকের সঙ্গে) যোগাযোগের চেষ্টা করে৷''

তিনি বলেন, ‘‘ডায়পার না পরানোর দিন থেকে আলিসা কান্না অনেক কমিয়ে দিয়েছে৷ মনে হচ্ছে, সে এই সিদ্ধান্তে সন্তুষ্ট৷ আমরা খুব দ্রুত ইতিবাচক ফলাফল পেয়েছি৷''

নির্দেশ মতো হিসি করা

ডোনার শুধু নিজের বাচ্চাকে ডায়পার না পরিয়েই ক্ষান্ত হননি৷ তিনি অন্য অভিভাবকদেরও এই বিষয়ে বোঝানোর চেষ্টা করছেন৷ ২০১২ সালে প্রতিষ্ঠিত ‘বেবিস উইদাআউট ডায়াপার্স' নামক একটি সংগঠনের মাধ্যমে এই কাজ করেন ডোনার৷ বার্লিনে সংগঠনটির প্রশিক্ষণেও অংশ নিয়েছেন তিনি৷

অনলাইনে একটি ফোরামের মাধ্যমে ড. হাইনরিশ রাটৎস-এর সঙ্গে পরিচিত হন ডোনার৷ এই চিকিৎসক ২০ বছর ধরে শিশুদের চিকিৎসা করছেন৷

অডিও শুনুন 07:54

এ সংক্রান্ত ডয়চে ভেলের প্রতিবেদন শুনুন

ডায়পারের কারণে শিশুদের শরীরে সৃষ্ট ফুসকুড়ি প্রায় প্রতিদিনই দেখেন তিনি৷ গত চার বছর ধরে শিশুদের ডায়পার না পরাতে অভিভাবকদের উৎসাহিত করছেন এই চিকিৎসক৷

ডয়চে ভেলেকে ড. রাটৎস বলেন, ‘‘ইংরেজিভাষী বিশ্বে এটাকে ‘এলিমিনেশন কমিউনিকেশন' বা ইসি বলা হয়৷ মূলধারার চিকিৎসা বিজ্ঞান বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে বটে, কিন্তু অনেক চিকিৎসক এখন এতে আগ্রহী৷''

ছাত্রজীবনেই ড. রাটৎস জেনেছিলেন যে, পেচ্ছাপের উপর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠায় একটি শিশুর ২৪ মাসের মতো সময় লাগে৷ কিন্তু ২০০৯ সালে এক শিশু দেখে বিস্মিত হন তিনি৷ ডায়পার পরায় সে বেশ অসুস্থ হয়ে পড়েছিল৷ চিকিৎসক তখন তাকে ডায়পার না পরানোর জন্য তার বাবা-মাকে পরামর্শ দেন৷

ড. রাটৎস বলেন, ‘‘ক্লিনিক থেকে শিশুটির বাড়ির দূরত্ব ছিল গাড়িতে প্রায় এক ঘণ্টার পথ৷ তাই আমি শিশুটির মাকে বলেছিলাম, ক্লিনিক ত্যাগের আগে শিশুটিকে পেচ্ছাপ করানোর চেষ্টা করতে৷ শিশুটি মায়ের নির্দেশে হিসি করেছিল৷''

তবে প্রশ্ন থেকে যায়

জার্মানির বন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিশু ক্লিনিকের পরিচালক ড. রাইনার গানশ্যাও অবশ্য মনে করেন, শিশুদের ডায়পার ব্যবহার না করানোর নেতিবাচক দিকও আছে৷ বিশেষ করে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার দিকটি এভাবে নিশ্চিত করা কঠিন৷

তিনি বলেন, ‘‘আমি শিশুদের পুরোপুরি বা আংশিক ডায়পার না পরানোটা সমর্থন করলেও মনে করি যে ইসি নিয়ে আমাদের আরো গবেষণা দরকার৷ অধিকাংশ শিশুরোগ বিশেষজ্ঞই এই পন্থা সম্পর্কে ভালোভাবে জানেন না৷ তাঁদের অভিজ্ঞতারও ঘাটতি রয়েছে৷''

ডোনার এবং তাঁর সন্তান আলিসার মধ্যকার যোগাযোগ কিন্তু চমৎকার৷ আলিসা ডায়পার না পরেই রাতে তার মায়ের পাশে ঘুমায়৷ রাতে হিসি করার প্রয়োজন হলে ঘুম থেকে উঠে বিছানার নীচে থাকা ছোট্ট পাত্রটি বের করে নেয় সে৷ অন্ধকার থাকায় ডোনার তখন তাঁর মেয়েকে সহায়তা করেন৷

ডায়পার ছাড়া শিশুদের বড় করতে জার্মানিতে জনসচেতনতা সৃষ্টির চেষ্টা করছেন ডোনার৷ অনেক অভিভাবক এখনো এতে আগ্রহী না হলেও তিনি আশাবাদী৷ ডোনারের কথা হচ্ছে, অভিভাবকদের অন্তত একবার হলেও চেষ্টা করা উচিত৷ এতে ক্ষতি তো কিছু হবে না!

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও