1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভারত

ডাক্তারিতে আজকাল ব্যবসা বেশি সেবা কম

ভারতের বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে বাণিজ্যিক মুনাফা বাড়াতে হামেশাই অনৈতিক চিকিৎসা পদ্ধতি নেয়া হচ্ছে৷ জরায়ু কেটে বাদ দেওয়া হচ্ছে মেডিক্যাল কারণ ছাড়াই৷ কর্নাটকের গরিব মহিলাদের দুর্ভাগ্যের কাহিনি উঠে এসেছে তদন্ত রিপোর্টে৷

প্রচলিত বিশ্বাস ডাক্তারি পেশার মতো মহত পেশা আর হয় না৷ অথচ ক্রমশ সেই পেশাতেই কালির ছিঁটে পড়ছে৷ ভারতের বিভিন্ন রাজ্যের বেসরকারি ও কর্পোরেট চিকিত্সা প্রতিষ্ঠানগুলোতে এই নিয়ে হৈ চৈ কম হচ্ছে না৷ ব্যবসায়িক মুনাফা বাড়ানোর লক্ষ্যে অনৈতিক মেডিক্যাল পদ্ধতির প্রয়োগ চলছে আকছার৷ সম্প্রতি ভারতের কর্নাটক ও মহারাষ্ট্রে গ্রামে স্ত্রীরোগে আক্রান্ত হতদরিদ্র মহিলাদের যথেষ্ট মেডিক্যাল যৌক্তিকতা ছাড়াই তড়িঘড়ি অপারেশন করে জরায়ু কেটে বাদ দেওয়া হয়েছে৷ রাজ্য সরকারের বিশেষজ্ঞ কমিটির তদন্ত রিপোর্টে এ ধরনের অভিযোগের সত্যতা উঠে এসেছে৷

গত দু-এক বছরে অন্তত ২২৫৮টি হিস্টারেক্টমি অপারেশন করা হয়েছে যথেষ্ট মেডিক্যাল কারণ এবং মেডিক্যাল অনুশাসনবিধি ছাড়াই৷ রাজ্য সরকারের বিশেষজ্ঞ তদন্ত কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে সংশ্লিষ্ট জেলার ডেপুটি কমিশনার উজ্জ্বল ঘোষ অভিযুক্ত হাসপাতালগুলির লাইসেন্স বাতিল করার আদেশ দেন৷ কর্নাটক মেডিক্যাল কাউন্সিলকে বলা হয়েছে, সংশ্লিষ্ট ডাক্তারদের বিরুদ্ধে যেন পেশাগত নৈতিকতা চিকিতত্সা অনুশাসনবিধি লঙ্ঘন এবং অসাধু উপায় অবলম্বনের জন্য উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হয়৷ কারণ এর খেসারত দিতে হচ্ছে কর্নাটকের গ্রামাঞ্চলের অনেক অল্পবয়সি নারীদের৷ তাঁদের জীবনে অকালে নেমে এসেছে অন্ধকার৷

স্ত্রীরোগের উপসর্গ নিয়ে গ্রামের গরিব পরিবারের বৌ-ঝিরা হাসপাতালে যান ডাক্তার দেখাতে৷ যেমন পিঙ্কু বাই৷ তাঁর বিয়ে হয়েছিল ১৩ বছর বয়সে৷ ১৯ বছরের মধ্যেই তিনটি সন্তানের জননী৷ ২৪ বছরে তলপেটে যন্ত্রণা, যোনিপথে তরল স্রাব নিসরণের উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে যান ডাক্তার দেখাতে৷ ডাক্তাররা বলেন, তার দেহে স্বাস্থ্য জটিলতা রয়েছে৷ জরায়ু ফুলে গেছে৷ অবিলম্বে হিস্টারেক্টমি অপারেশন করে জরায়ু কেটে বাদ না দিলে জীবনসংশয় হতে পারে৷ জীবনের ভয় দেখাতে পিঙ্কু বাইয়ের দুশ্চিন্তা – মরে গেলে কে তাঁর বাচ্চাগুলোকে দেখবে? অতি গরিব পরিবার৷ তাই ধারদেনা করে অপারেশনের খরচ বাবদ ৩০ হাজার টাকা হাসপাতালের বিল দিতে হয়৷ তবু সে পুরোপরি সুস্থ হয়ে উঠেনি৷ কোমরে ব্যথা, ক্লান্তি, দুর্বলতা, মাথা ঘোরা, বুকে ব্যথা৷ দৃষ্টিশক্তি কমজোরি হওয়ায় সে কাহিল৷ কর্নাটকের লাম্বানি জনজাতির নারীদেরও একই দশা৷ একদিকে নিরক্ষতা, দারিদ্র৷ অন্যদিকে চিকিত্সকদের অর্থ লালসায় পেশাগত নৈতিকতার শ্বাসরুদ্ধ৷ নির্দিষ্ট চিকিত্সাবিধির পরোয়া না করে দ্রুত বাণিজ্যিক স্বার্থসিদ্ধি৷ কোনো কোনো রোগিণীর ক্ষেত্রে মূত্রনালিতে সংক্রমণ হলেও, তার নিদান হিসেবে জরায়ু কেটে বাদ দেওয়া হয়৷ বিভিন্ন ডাক্তারি পরীক্ষা, টেস্ট না করেই৷ একই দিনে চারজনের হিস্টারেক্টমি অপারেশন করে গর্ভাশয় কেটে বাদ দেওয়া হয়৷ এদের মধ্যে একজন মারা যায়৷

কর্নাটকের কেআইসি নামে জনস্বাস্থ্য সংক্রান্ত এক এনজিও অভিযুক্ত ডাক্তারদের বিরুদ্ধে আন্দোলনের ডাক দেয়৷ দোষি ডাক্তারদের রেজিস্ট্রেশন বাতিল করার এবং তাঁদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা রুজু করার দাবি জানায়৷ এই এজিও-র সদস্যা টিনা জেভিয়ার মনে করেন, মহিলাদের অজ্ঞতার সুযোগ নিয়ে এক শ্রেণির অসাধু ডাক্তারের কাছে টাকা রোজগার করাই প্রধান৷ ইদানীং কর্নাটকের সংলগ্ন মহারাষ্ট্রের ওসমানাবাদ জেলাও হিস্টারেক্টমি অপারেশনের কেন্দ্র হয়ে উঠেছে৷ আশপাশের গাঁ-গঞ্জ থেকে রোগিণীদের ভিড় বাড়ছে৷

কেন বাড়ছে? এর প্রধান কারণ ব্যাখ্যা করেছেন সমাজসেবী রূপা হাসান৷ তিনি বলেন, প্রত্যন্ত গ্রামের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশই মুখ্যত এরজন্য দায়ী৷ ঐ সব গ্রামের প্রচলিত রীতিনীতি, আচার-বিচার, সংস্কার একেবারে আদ্যিকালের৷ যেমন মেয়েদের মাসিক বা ঋতুস্রাবকালে থাকতে হয় ঘরের বাইরে, দূরে একটা নোংরা গুমটি ঘরে বা গোয়ালঘরে৷ এতে করে যোনিপথে সংক্রমণ হওয়াটাই স্বাভাবিক৷ প্রতিমাসের এই জ্বালা-যন্ত্রণার হাত থেকে রেহাই পেতে অনেকেই জরায়ু কেটে বাদ দেওয়াকে বেশি স্বস্তিকর বলে মনে করে৷ মাথা না থাকলে মাথা ব্যাথাও থাকবে না, ব্যাপারটা এমনই৷ কিছু চিকিত্সক নারীদের যৌনজীবন এবং প্রজনন স্বাস্থ্যের কথা চিন্তা না করেই তড়িঘড়ি হিস্টারেক্টমি অপারেশন করে জরাযু বাদ দিয়ে দেন৷

এই কথারই প্রতিধ্বনি করে স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ ও জেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আর. ভেঙ্কটেশ বলেন, অত্যধিক রক্তস্রাব, সংক্রমণ, ফাইব্রয়েড নিয়ন্ত্রণে অন্যসব চিকিত্সায় কাজ না হলে হিস্টারেক্টমি অপারেশন করা হয়ে থাকে, তাও একেবারে শেষ পর্যায়ে৷ তবে সেটাও করতে হবে বায়োপসি, প্যাপ স্মিয়ার ইত্যাদি পরীক্ষার পর৷ সমাজকর্মী কে. নীলার নেতৃত্বে কর্নাটক রাজ্য মহিলা কমিশনের তদন্ত রিপোর্ট বলছে, যথেষ্ট সাক্ষ্য প্রমাণ এবং নথিপত্র দাখিল করা হয়৷ কিন্তু অভিযুক্ত ডাক্তারদের বিরুদ্ধে আজও কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি৷ তবে একটি তদন্ত রিপোর্টে অভিযোগ করা হয়েছে৷ সরকারি হাসপাতালের জনৈক বড় ডাক্তার বেসরকারি হাসপাতালে গত দু'বছর ধরে অনাবশ্যকভাবে প্রায় ১৪০০টি হিস্টারেক্টমি অপারেশন করেছেন, সেইসব মহিলাদের ওপর, যাদের ৪০ শতাংশের বয়স ৩৫ বছরের নীচে৷ শাস্তি হিসেবে তাঁকে অন্যত্র বদলি করা হয় মাত্র৷

কিছু ডাক্তারের অনৈতিকভাবে চিকিৎসা শাস্ত্রের অনুশাসন লঙ্ঘন করার ফলে গোটা চিকিৎসক সমাজের যে বদনাম হচ্ছে, তাতে তাঁদের প্রতি মানুষের বিশ্বাসবোধ নড়ে যেতে তো পারেই৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়