1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ডাইনি অপবাদে অবাধে ঘটে চলেছে নারী হত্যা

ভারতের মধ্য, পূর্ব ও উত্তর-পূর্বাঞ্চলে ডাইনি অপবাদে নারীদের পিটিয়ে বা কুপিয়ে হত্যা করা হচ্ছে৷ পুলিশ-প্রশাসন, সরকার এ ধরনের কুসংস্কার প্রতিরোধে কড়া পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থ৷ তাই সংখ্যাটা বাড়ছে৷ কেন? কুসংস্কার, না অন্য কিছু?

ডাইনির অপবাদ দিয়ে নারী হত্যার ঘটনা সমানে ঘটে চলেছে ভারতের আদিবাসী ও জনজাতি অঞ্চলে৷ পুলিশ-প্রশাসন এবং সরকারের নিষ্ক্রিয়তায় দিনে দিনেই সংখ্যাটা বেড়ে চলেছে৷ গত ৭ই আগস্ট পূর্ব ভারতের ঝাড়খন্ড রাজ্যের এক আদিবাসী গ্রামে গভীর রাতে গ্রামের একদল ক্ষিপ্ত লোক ঘরে ঢুকে পাঁচজন মহিলাকে চুলের মুঠি ধরে বাইরে বের করে নগ্ন করে নিষ্ঠুরভাবে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে এবং টাঙ্গি দিয়ে কুপিয়ে খুন করে৷ তাঁদের অপরাধ, গ্রামের একটি ছেলে জন্ডিসে মারা গেলে গ্রামের ওঝা ঐ ঘরের পাঁচজন মহিলাকে ডাইনি বলে চিহ্নিত করেছিলেন৷ বলেছিলেন ওরাই নাকি ছেলেটিকে খেয়েছে৷

ডাইনি অপবাদ দিয়ে প্রায়ই নারী হত্যার ঘটনা ঘটে ভারতে৷ কিন্তু একসঙ্গে পাঁচজনকে ডাইনি বলে খুন করার ঘটনা নজিরবিহীন৷ হত্যার পর অনুতপ্ত না হয়ে খুনিরা দিব্যি বুক ফুলিয়ে বেড়াচ্ছে৷ রাঁচির পুলিশ সুপার অবশ্য বলছেন, এ সম্পর্কে ৩৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ অতীত অভিজ্ঞতা বলছে সাক্ষী প্রমাণের অভাবে এরা সবাই এক সময়ে ছাড়া পেয়ে যাবে৷

গত মাসে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য ওড়িষায় একটি বৌকে ডাইনি বলে দাগিয়ে দিয়ে সন্তানসহ কুপিয়ে হত্যা করা হয়৷ মনে করা হয়, ডাইনির কুদৃষ্টি পড়ায় গ্রামের বাচ্চারা অসুস্থ হয়ে পড়ছে৷ একই রকম ঘটনা ঘটেছে উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য আসামে৷ সেখানে ৬৩ বছর বয়সি এক বৃদ্ধাকে ডাইনি অপবাদ দিয়ে ঘর থেকে টেনে বের করে নগ্ন করে শেষে শিরশ্ছেদ করা হয়৷ কেউ ভাবে না যে, স্বাস্থ্য পরিষেবার অভাবই রোগ ছড়ানোর কারণ৷

সরকারি হিসেব মতে, গত বছরেই এই সংখ্যা ছিল ১৬০ জন, তবে বেসরকারি হিসেব বলছে সংখ্যাটা অনেক বেশি৷ তাছাড়া বেশিরভাগ ঘটনা পুলিশকে জানানোই হয় না৷ পাছে গ্রামের মোড়লদের প্রতিহিংসার শিকার হতে হয়, একঘরে হয়ে থাকতে হয়৷ আর জানালেও বা কি? পুলিশের গড়িমসিতে দোষীদের কদাচি ত্শাস্তি হয়৷ হিউম্যান রাইটস ওয়াচ গ্রুপের দক্ষিণ-এশিয়া বিভাগের অধিকর্তা মীনাক্ষি গাঙ্গুলিও এ জন্য পুলিশ-প্রশাসনকেই দায়ী করেন৷ তাঁর প্রশ্ন, ‘‘পুলিশ থাকতে আইন নিজের হাতে তুলে নেবার সাহস হয় কি করে? কেন পুলিশ কড়া ব্যবস্থা নেয় না?'' আসলে ডাইনি নাম দাগিয়ে দেয় গ্রামের ওঝা আর গুণিনরা৷ গাঁওবুড়া বা প্রধান তাঁর বিরোধিতা করতে সাহস পান না৷ দুর্ভিক্ষ, খরা, জলাভাব, সংক্রমণ রোগ ব্যাধি হলে গ্রামের অশিক্ষিত মানুষ ছুটে যায় গ্রামের ওঝা বা গুণিনের কাছে নিদানের জন্য৷

15.09.2014 DW Global 3000 Hexe 1

ডাইনি অপবাদে প্রায়ই নারী হত্যার ঘটনা ঘটছে...

পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতায় নারীরাই হয় বলির পাঁঠা৷ সুপ্রিম কোর্টের বিশিষ্ট আইনজীবী ইন্দিরা জয় সিং ডয়চে ভেলেকে এক সাক্ষাত্কারে বলেন, ‘‘কুসংস্কার অন্যতম কারণ হলেও অপরাধটা মূলত হয় ব্যক্তিগত শত্রুতা, জমি বিবাদ বা জাতপাত ও লিঙ্গ বৈষম্যের কারণে৷ তাই এর শিকার হন নারীরা – অসহায় বিধবা, সন্তানহীন, অবিবাহিত বয়স্কা মহিলারাই এর শিকার হন বেশি৷

এর প্রতিকার কী?

মোটামুটি সব মহলের অভিমত, ভারতীয় অর্থনীতির সুফল দেশের প্রান্তিক আদিবাসী অঞ্চলে পৌঁছায়নি৷ পিতৃতন্ত্র, দারিদ্র্য, অশিক্ষা, প্রশাসনের উপেক্ষা এবং সামাজিক সচেতনতার অভাবের মিলিত কারণ এই ডাইনি অপবাদ৷ তাই প্রতিকারের জন্য দরকার লিঙ্গ বৈষম্য দূর করা, তৃণমূল স্তর থেকে নীতি প্রণয়ন, প্রচার অভিযান জোরদার করা, শিক্ষা ও যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি করা এবং সর্বোপরি, কড়া আইন প্রণয়ন করা৷ উল্লেখ্য, সম্প্রতি আসাম সরকার দীর্ঘ সাত বছর ধরে ভাবনা-চিন্তার পর ডাইনি হত্যা রুখতে কড়া আইন পাশ করেছে৷ তাতে ডাইনি অপবাদ দিলে অভিযুক্তকে তিন থেকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড এবং ৫০ হাজার থেকে পাঁচ লক্ষ টাকা পর্যন্ত জরিমানার সংস্থান আছে৷ ডাইনি অপবাদে খুন করার অভিযোগে বিচার হবে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩০২ ধারায়৷

Indien Hexenjagd

এই সাধারণ মানুষগুলো কি কখনও ডাইনি হতে পারেন?

তদন্তে গাফিলতি হলে সংশ্লিষ্ট তদন্তকারীর বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে৷ সচেতনতা জাগাতে সক্রিয় ভূমিকা নিতে হবে মিডিয়াসহ সরকারকে, এগিয়ে আসতে হবে সমাজ কর্মীদেরও৷

এই যেমন ঝাড়খন্ডের এক উপজাতি তরুণী লীনা (আসল নামটা তিনি বলতে চাননি )৷ তিনি ছোটবেলায় স্বচক্ষে দেখেছিলেন তাঁর ঠাকুমাকে কিভাবে ডাইনি অপবাদ দিয়ে ঘর থেকে টেনে বের করে বিষ্ঠা খাইয়ে নগ্ন করে স্বজাতির লোকেরা পিটিয়ে খুন করেছিল৷ সেই নিদারুণ ঘটনাই তাঁকে প্রত্যয়ী এবং সাহসি করেছে কুসংস্কারের বিরুদ্ধে লড়াই চালাতে৷ এ মুহূর্তে ঝাড়খন্ডের গ্রামে গ্রামে গিয়ে প্রচার চালাচ্ছেন লীনা, প্রতিরোধ গড়ে তোলার ডাক দিচ্ছেন৷ গ্রামবাসীদের বোঝাতে চাইছেন কুসংস্কার ছড়াচ্ছে কিছু অসাধু ব্যক্তি তাঁদের স্বার্থসিদ্ধির জন্য৷ আদিবাসী সমাজে জমিজমা, বিষয়-সম্পত্তিতে মেয়েদের সমান অধিকার নেই বলে সেই সুযোগে তাঁদের সব কিছু আত্মসাত করার জন্য অসহায় নারীদের ডাইনি অপবাদ দেয়া এক মোক্ষম অস্ত্র৷ ঐ আদিবাসী তরুণী তাই আসামের ডাইনি প্রতিরোধক আইনে দোষী ব্যক্তিদের শাস্তিদানের জন্য আন্দোলন শুরু করেছেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন