1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন

ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট, এবার যার জন্য অপেক্ষা

ট্রাম্পের রাজনীতির কোনো অভিজ্ঞতা নেই৷ অথচ ১৯২৮ সালের পর তিনিই প্রথম রিপাবলিকান, যিনি হাউস, সেনেট এবং গভর্নর্সেও জয়ী হয়ে প্রেসিডেন্ট হলেন৷ সেই সুবাদে যুক্তরাষ্ট্রে তিনি প্রায় সর্ব ক্ষমতার অধিকারী৷ তাই ভয় কাটছে না কিছুতেই৷

‘‘এটাই দুঃখ যে একজন শ্বেতাঙ্গ পুরুষ, যিনি খুব সহজেই নারীদের অবমাননা করতে পারেন, দিনের আলোয় সর্বসমক্ষে একজনকে খুনের হুমকি দিতে পারেন, এমনকি করও ফাঁকি দিতে ছাড়েন না – তিনিই কিনা যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন হলেন৷'' – এটা একজন সাধারণ মানুষের কথা৷ কিন্তু জেতার পর নারীবিদ্বেষী, মুসলিমবিদ্বেষী ট্রাম্পকে নিয়ে অনেকেরই যে মাথায় হাত

বিশ্বের অন্যতম ক্ষমতাবান দেশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হয়ে ট্রাম্প যে কোনোরকম খুব অস্বাভাবিক সিদ্ধান্ত নেবেন না, সেটাই বা কে বলতে পারে? 

অনেকে বলছেন, ১৯২০-৩০ সালে বিশ্বযুদ্ধ ও অর্থনৈতিক মন্দায় জর্জরিত জার্মানির নিম্ন মধ্যবিত্তদের ঘাড়ে ভর দিয়ে যেমন ক্ষমতার শিখরে উঠে এসেছিলেন আডল্ফ হিটলার, তেমনই গরিব ‘হোয়াইট কালার ওয়ার্কার'-দের ভোটে মার্কিন প্রেসিডেন্টের আসনে অধিষ্ঠিত হয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প৷

 

এবার ট্রাম্প যদি এখন কারো তোয়াক্কা না করে চরমপন্থি সিদ্ধান্ত নেন, তাহলে কী হবে? কীভাবে নিশ্চিত হবে বিশ্বশান্তি? আন্তর্জাতিক সহযোগিতা চুক্তিগুলি?

তাই ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হিসেবে কেমন হবেন, তা অনেকটাই হয়ত নির্ভর করবে ট্রাম্পের অফিসে কর্মরত রাজনৈতিক বিশ্লেষক, ভাইস প্রেসিডেন্ট, অর্থমন্ত্রী এবং ভবিষ্যত সেক্রেটরি অফ স্টেট বা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ওপর৷ ভাইস প্রেসিডেন্ট হলেন মাইক পেন্স, কিন্তু ট্রাম্প বাকি জায়গায় যদি যোগ্য লোকদের না নির্বাচন করেন, তবে অ্যামেরিকার রশাতলে যেতে হয়ত খুব দেরি হবে না৷

ভিডিও দেখুন 02:17

বন্ধু, ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হওয়ায় আপনিও কি চিন্তিত? জানান আমাদের, লিখুন নীচের ঘরে৷

ডিজি/এসিবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়